২১-৪০ বছর বয়সীরা সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত কেন ?

বর্তমানে বাংলাদেশে ধূমপানকারীর সংখ্যা নূন্যতম এক কোটি ৮০ লাখ বিশ্বব্যাংকের এক সম্মিলিত জরিপে এই তথ্য উঠে এসেছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে বাংলাদেশি পুরষদের প্রায় ৪০% ধুমপায়ী। আবার এই ধুমপায়ীদের প্রায় ৬৩% এর বয়স ২১ থেকে ৪০ বছর বয়সী। করোনাভাইরাসেও আক্রান্তের শীর্ষে আছে ২১ থেকে ৪০ বছর বয়সীরা মোট আক্রান্তের প্রায় ৫৫%। এই বয়সীরা ধুমপানের কারনে আক্রান্ত বেশি হওয়ার সম্ভবনাকে উড়িয়ে দেওয়া যায় না। GBD এর তথ্য মতে বিশ্বের ১ বিলিয়ন বা ১০০ কোটি মানুষ ধুমপায়ী। প্রত্যোক ধুমপায়ীর পরিবারে নূন্যতম ৪ জন করে সদস্য ধরলে পরোক্ষ ভাবে ৪০০ কোটি মানুষ ধুমপায়ীর সংস্পর্শে থাকে। অন্যদিকে WHO এর Gats Report অনুযায়ি বাংলাদেশে ধুমপায়ীর সংখ্যা ১ কোটি ৯২ লক্ষ অর্থাৎ (৪ জন সংস্পর্শ হিসাব করলে) প্রায় ৮ কোটি মানুষ ধুমপায়ীর সংস্পর্শে আছে। অবচেতন মনে এই ধুমপায়ীরা করোনাভাইরাস সংক্রমণে কি ভয়ঙ্কর বিপত্তি ঘটাচ্ছে একটু খেয়াল করুন , ধুমপায়ীরা সাধারণত সিগারেট পাণ করার সময় হাত ধুয়ায় অভ্যস্ত নয়। এটি মারাত্মক বিপদজনক , কারন সিগারেট পাণ করার সময় ভাইরাস যুক্ত (সম্ভাব্য) হাতের আঙ্গুল ঠোঁটে (ভাইরাস প্রবেশের সবচেয়ে স্পর্শকাতর জায়গা) স্পর্শ করছে। অন্যদিকে চা-সিগারেটের দোকানীর সাথে সারাদিনে অনেক লোকের বা হরেক-রকম মানুষের লেনদেন হয় যারদরুন তার হাত ভাইরাসে সংক্রমণ হওয়ায় সম্ভাবনা অনেক বেশী। অথচ দোকানী সেই ভাইরাস যুক্ত (সম্ভাব্য) হাতের আঙ্গুলে ফিল্টার (সিগারেটের যে অংশ ঠোঁটে থাকে) ধরে ধুমপায়ী গ্রাহকদের দিচ্ছে। আর ধুমপায়ী গ্রাহকরাও ফিল্টারটি সরাসরি ঠোঁটে দিয়ে সিগারেট জ্বালাচ্ছে অর্থাৎ কোভিড ১৯ বা করোনা ভাইরাসকে সরাসরি চুমু দিয়ে আক্রান্ত হচ্ছি। যে কোন প্যাকেট থেকে সিগারেট বের করতে হয় আঙ্গুল দিয়ে ফিল্টার ধরে। আমার ব্যাক্তিগত মতামত এই মুহুর্তে ধুমপান আত্নহত্যার সামিল। তারপরও যে সকল ধুমপায়ীরা জীবনকে তুচ্ছ মনে করে তাদের ক্ষেত্রে টোব্যাকো কোম্পানির উচিত এই ভয়ঙ্কর মহামারীর সংকটাবস্থায় সব সিগারেট উল্টো প্যাকেট করা অর্থাৎ তামাকের অংশ (জ্বলন্ত বিন্দু) উপরে এবং ফিল্টারটি নিচের দিকে দিয়ে প্যাকেটজাত করা। তখন তামাকের জ্বলন্ত বিন্দু ধরে সিগারেট বের করলে হাতের আঙ্গুলে ভাইরাস থাকলেও (সিগারেট জ্বালালে) জ্বলন্ত আগুনে তা ধ্বংস হয়ে যাবে ভাইরাসটি ধুমপায়ীর তেমন ক্ষতি করতে পারবে না।তাছাড়া প্রত্যোক বার ধুমপানের সময় হাত ও সিগারেটের ফিল্টার জীবাণুমুক্ত করা। অন্যদিকে অনেকেই সিগারেটের সাথে চা পান করায় অভ্যস্ত আবার অনেকে শুধুই চা পানে অভ্যস্ত। এক্ষেত্রেও অনেকে মনের অগোচরে করোনাভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হতে পারে। আমরা জানি করোনা আক্রান্ত কেউ কোন কাপে চা পান করলে পরবর্তীতে যদি তা সাবান দিয়ে অথবা ৭০ ডিগ্রির উপরে তাপের পানি দিয়ে বেশ কিছুক্ষন ধৌত করা না হয়। তবে পরবর্তীতে ঐ কাপে কেও চা পান করলে সে ভাইরাসে আক্রান্ত হবে। কারন কাপে ঠোটের চুমুকের লালা পানি দিয়ে ধৌত করলে ভাইরাস মুক্ত হবে না। এক্ষেত্রে ওয়ান টাইমের পাত্রগুলো সবচেয়ে নিরাপদ। তারচেয়েও নিরাপদ চা-সিগারেটের দোকানগুলোতে মহামারীর সময় না যাওয়া।

নাজমুল হক
প্রভাষক ও কলামিস্ট
বনানী বিদ্যানিকেতন কলেজ