আক্রান্ত ও মৃত্যুর গতিপথ কোন দিকে ?

প্রথম ২৫,০০০ আক্রান্ত হয় ৭৩ দিনে

দ্বিতীয় ২৫,০০০ আক্রান্ত হয় ১৪ দিনে

তৃতীয় ২৫,০০০ আক্রান্ত হয় ১০ দিনে

শেষ ২৫,০০০ আক্রান্ত হয় ০৬ দিনে

(তথ্যসূত্রঃ IEDCR) বিশ্বে আক্রান্তে ১৭ নম্বর দেশ হিসেবে কানাডাকে ক্রসকরে , লক্ষাধিক সংক্রমণের ক্লাবে গতকালই ঢুকে গিয়েছে বাংলাদেশ , তবে মৃত্যুর র‍্যাঙ্কিং ৩০ নম্বরে । তাছাড়া বিশ্বের আক্রান্ত ২১৫ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের মৃত্যুর হার সবচেয়ে কম (মাত্র ১.৩%) তবে বেসরকারি হিসাবে মৃত্যুর হার আরো বেশি। লক্ষাধিক আক্রান্ত অন্যান্য দেশের সাথে তুলনা করলে বুঝা যায় , দক্ষিণ এশিয়া কিছুটা ধীর গতিতে আক্রান্ত হয়েছে। আসলে ব্যাপারটা কি তাই ? আমার ব্যাক্তিগত ধারনা দক্ষিণ এশিয়ায় টেষ্ট সল্পতার কারনে আক্রান্ত লক্ষাধিক পৌছাতে বেশি সময় নিয়েছে।
যুক্তরাষ্ট্র এক লক্ষ আক্রান্ত হয় ৬৫ দিনে

ব্রাজিল এক লক্ষ আক্রান্ত হয় ৬৭ দিনে

যুক্তরাজ্য এক লক্ষ আক্রান্ত হয় ৭৬ দিনে

রাশিয়া এক লক্ষ আক্রান্ত হয় ৯০ দিনে

পাকিস্তান এক লক্ষ আক্রান্ত হয় ১০৩ দিনে

বাংলাদেশ এক লক্ষ আক্রান্ত হয় ১০৩ দিনে

ভারত এক লক্ষ আক্রান্ত হয় ১১০ দিনে

(তথ্যসূত্রঃ ওয়াল্ডোমিটারস ডট ইনফো) আমাদের দেশে বর্তমানে আক্রান্তের হার পরীক্ষার প্রায় ২০% এই চিত্র দেখে অনেকে ভুল বার্তা নিতে পারে। ভাবতে পারে প্রায় ৮০% এর রোগ শনাক্ত হচ্ছে না , এটি ভুল ধারনা। যারা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে তাদের ৭-২১ দিন পর পরীক্ষা করলে নেগিটিভ হবে । যাদের কে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সু্স্থ হিসেবে ঘোষণা করে তারা কিন্তু নিশ্চিত নেগিটিভ হচ্ছে ঐ ঘোষিত ৮০% এর মধ্যে। তাছাড়া হাসপাতালে অন্যান্য রোগের জন্য ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিতে গেলে , করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট লাগে। যারদরুন হাজার হাজার করোনা উপসর্গ বিহীন অথবা অন্যান্য রোগে আক্রান্তরা (করোনা রোগী না হয়েও) হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজনে করোনা টেষ্ট করাচ্ছে যারা ঐ শনাক্তবিহীন ৮০% এর মধ্যে। অথচ প্রকৃত করোনা আক্রান্তরা দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করেও টেষ্টের সুযোগ পাচ্ছে না। বিশ্বের অনান্য দেশের তুলনায় আমাদের টেষ্টের তুলনা করলে তার একটি ধারনা পাওয়া যায়।অন্যান্য দেশে প্রতি ১০লক্ষ লোকের বিপরীতে পরীক্ষা
রাশিয়ার পরীক্ষা ১,০০,০০০

স্প্যানের পরীক্ষা ৯৬,০০০

যুক্তরাজ্যের পরীক্ষা ৯৫,০০০

ইতালির পরীক্ষা ৭৫,০০০

যুক্তরাষ্ট্রের পরীক্ষা ৭২,০০০

জার্মানের পরীক্ষা ৫৬,০০০

সৌদিআরবের পরীক্ষা ৩২,০০০

বাংলাদেশের পরীক্ষা ৩,০০০

(তথ্যসূত্রঃ ওয়াল্ডোমিটারস ডট ইনফো ও IEDCR) দক্ষিণ এশিয়ায় যুদ্ধবিগ্রহের দেশ আফগানিস্তান শুধু আমাদের নিচে , বাকি সবাই আমাদের উপরে। প্রতি একজন রোগী পেতে ভুটান টেষ্ট করাচ্ছে ৩৩২ জন , শ্রীলংকা ৪৭ জন , নেপাল ২৫ জন , মালদ্বীপ ১৭ জন , ভারত ১৭ জন সেখানে বাংলাদেশ ৫ জনের কিছু বেশি।
অথচ সংক্রমণ হ্রাসের জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বারবার বলছে টেষ্ট , টেষ্ট এবং টেষ্ট গণ সংক্রমন বা কমিউনিটি ট্রান্সমিশন থেকে পরিত্রাণের একমাত্র রাস্তা।

নাজমুল হক
প্রভাষক ও কলামিস্ট
বনানী বিদ্যানিকেতন কলেজ