নাজমুল হক: ফেসবুকে আমাদের অনেকের রুচির সংকট চোখে পরার মতো। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অমূলক ব্যাপারে , আমাদের চাহিদা ব্যপক যেমন – হিরু আলম, সেফুদা বা টিকটক অপুর মতো লোকদের অমূলক কথাবার্তা সম্মিলিত প্রচেষ্টায় ভাইরাল করছে অনেকে অথচ বিশ্বখ্যাত গবেষকদের শিক্ষামূলক বা জনকল্যাণমূলক পোষ্টগুলো মানুষ তেমন তোয়াক্কা করেনা আর ভাইরালতো কল্পনাতীত। মনে হচ্ছে পঁচা খাদ্য গ্রহনে আমাদের আগ্রহ বেশি। তাই জ্ঞানী মানুষের চেয়ে ফানি মানুষের আচরণ আমাদেরকর বেশি আকৃষ্ট করে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হিসেবে ৪ ফেব্রুয়ারী ২০০৪ এ Facebook এর যাত্রা শুরু (প্রতিষ্ঠাকালীন নাম ছিল Face mash ) দীর্ঘ ১৫ বছরে যাত্রায় পৃথিবীব্যাপি ২৩২ কোটির ( জানুয়ারি ২০২০ পর্যন্ত) বেশি সদস্য নিয়ে অদম্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। Facebook ব্যবহারের শীর্ষদেশ আমেরিকায় আছে ২১৯ মিলিয়ন ইউজার এবং ২য় শীর্ষদেশ হিসেবে ভারতে আছে ২১৩ মিলিয়ন ইউজার । সিটি হিসেবে শীর্ষে আছে ব্যাংকক যেখানে একসাথে ৩০ মিলিয়ন ইউজার এবং ২য় শীর্ষ সিটি হিসেবে বাংলাদেশের ঢাকায় আছে ২২ মিলিয়ন Facebook ইউজার। ২০১৮ এর শুরুর দিকে BTCL এর জরিপ অনুসারে ১৪৩.১০ মিলিয়ন মোবাইল ব্যবহারকারীদের মধ্যে ৭৪.৭৪ মিলিয়ন ব্যবহারকারী মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহার করে থাকে আবার এই ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের মধ্যে প্রায় ৩০ মিলিয়ন Facebook ব্যবহার করে থাকে মোবাইলে। তবে বৈশ্বিক চিত্র বিবেচনায় বর্তমানে ইন্টারনেট সংযোগহীন জনগোষ্ঠীর শীর্ষ তালিকায়ও রয়েছে বাংলাদেশ। বৈশ্বিক গবেষণা সংস্থা স্ট্যাটিস্টার সম্প্রতি প্রকাশিত ‘ইন্টারনেট ইউজেস ওয়ার্ল্ডওয়াইড’ শীর্ষক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।প্রতিবেদনের তথ্যমতে, বর্তমানে বিশ্বে সবচেয়ে বেশি ইন্টারনেট সংযোগহীন জনগোষ্ঠী ভারতের। দেশটিতে ৬৮ কোটি ৫৬ লাখ বা প্রায় ৫০ শতাংশ জনগণ ইন্টারনেট সংযোগের বাইরে রয়েছে। এ তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা চীনে ৫৮ কোটি ২১ লাখ বা ৪১ শতাংশ জনগণ ইন্টারনেট সংযোগের বাইরে রয়েছে। আর তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে দক্ষিণ এশিয়ার আরেক দেশ পাকিস্তান। দেশটির ১৪ কোটি ২৩ লাখ বা ৬৫ শতাংশ জনগণ ইন্টারনেট সংযোগের বাইরে রয়েছে। ইন্টারনেট সংযোগহীন জনগোষ্ঠীর শীর্ষ তালিকায় এরপর রয়েছে নাইজেরিয়া। দেশটির ১১ কোটি ৮১ লাখ বা ৫৮ শতাংশ জনগণ ইন্টারনেট সংযোগের বাইরে রয়েছে। তালিকায় পঞ্চম অবস্থানে থাকা বাংলাদেশের ৯ কোটি ৭৪ লাখ বা ৫৯ শতাংশ জনগণ ইন্টারনেট সংযোগের বাইরে রয়েছে। এরপরের অবস্থানে থাকা ইন্দোনেশিয়ার ৯ কোটি ৬৭ লাখ বা ৩৬ শতাংশ জনগণ ইন্টারনেট সংযোগের বাইরে রয়েছে। আর সপ্তম অবস্থানে থাকা ইথিওপিয়ার ৯ কোটি ২৪ লাখ বা ৮১ শতাংশ জনগণ ইন্টারনেট সংযোগের বাইরে রয়েছে। ইন্টারনেট সংযোগহীন জনগোষ্ঠীর শীর্ষ তালিকায় এরপর রয়েছে যথাক্রমে কঙ্গো, ব্রাজিল ও মিসর। দেশ তিনটিতে ইন্টারনেট সংযোগের বাইরে রয়েছে যথাক্রমে সাত কোটি ১৮ লাখ (৮১%), ছয় কোটি ১৪ লাখ (২৯%) ও চার কোটি ৬৬ লাখ (৪৬%) জনগণ (তথ্যসূত্রঃ শেয়ার বিজ)। Facebook , ইউটিউব বা ইন্টারনেটের যে ভার্চুয়াল জগত তা আমাদের দেশের সমাজ-সাংস্কৃতিকে যথেষ্ঠ প্রভাবিত করছে। ভার্চুয়াল জগতটা বাস্তব জগত থেকে ব্যতিক্রম। বাস্তবিক জগতে পারিবার, আত্নীয় স্বজন, বন্ধু-বান্ধব বা পরিচিত কারও সাথে অনেক সময় মুখামুখি কথাবার্তা বা আলোচনা ভালো না লাগালেও একই সময়ে ম্যাসেঞ্জার, ইমু বা ফেসবুকে চ্যাটিং করতে ভালোই লাগে অর্থাৎ ভার্চুয়াল জগত ও বাস্তবিক জগতের পছন্দ-অপছন্দের তারতম্য যথেষ্ঠ। বর্তমানে আমরা নিজেদের জাহির করার জন্য খুব চমৎকার একটি প্ল্যাটফর্ম হিসেবে Facebook কে বেছেঁ নিয়েছি। নিজেদের একান্ত ব্যাক্তিগত ব্যাপার ছাড়াও খাওয়া-দাওয়া , অফিস- আড্ডা, মিটিং-মিছিল , শখ-আহ্লাদ , ভ্রমন বা ধর্মীয় ইবাদত এমন কি মৃতদেহ সমাহিত করার অনুষ্ঠানের বিভিন্ন আপডেট আমরা Facebook এ পোষ্ট করছি । ফেইসবুকে ভাষার শব্দগত কিছু পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে যেমন-Brother কে বলা হয় Bro, Sister কে sis, Picture কে pic , Husband কে hubby ইত্যাদি তাছড়া নতুন নতুন কিছু শব্দের সাথে পরিচিত হচ্ছি যেমন- প্যারা, Lol , GF, BF ইত্যাদি। যাই হোক Facebook যে ভাষায় যথেষ্ঠ প্রভাব বিস্তার করছে তা স্পষ্ট। এখন প্রশ্ন হচ্ছে শব্দগুলো কি বিকৃতি হচ্ছে নাকি বিবর্তন হচ্ছে ? অতীতে আমাদের ভাষায় তৎসম, অর্ধ-তৎসম-তদ্ভব এর প্রভাব আমরা দেখছি যেথানে- চন্দ্র-চন্দ- চাঁদ, হস্ত-হন্ত-হাত বিবর্তিত এই শব্দগুলো আমরা গ্রহন করেছি এখন চন্দ্র না বলে চাঁদ এবং হস্ত না বলে হাত বলি। তেমনি হয়তোবা ভবিষ‍্যতে Bro , Sis , Pic , Hubby , Gf, Bf এই শব্দগুলো Facebook এর বদৌলতে আমরা গ্রহন করবো। Facebook এবং youtube এর প্রভাবে বর্তমানে সিনেমা হল গুলোও বিলুপ্তির পথে তাছাড়া ছাপানো পত্রিকায় মুদ্রণ দিন দিন হ্রাস পাচ্ছে কারন Facebook এবং Google এগুলোর চাহিদা মিটিয়ে দিচ্ছে। তাছাড়া স্মার্টফোনের বদৌলতে খোলামাঠের খেলাধুলা যেমন- গোল্লাছুট, হা-ডু-ডু , কুতকুত , কাবাডি , কানামাছিঁ বিলুপ্তি করে মোবাইল গেমসে অভ্যস্থ হয়েছি আমরা। স্মার্টফোন ও ফেইসবুকের পূর্বের যুগে , একটু অবসর পেলেই প্রিয়জনের সাথে আড্ডা দেওয়া অথবা ফোন করে আপনজনের খোঁজ খবর নেওয়া হতো । আর বর্তমানে একটু অবসর পেলেই আমরা মোবাইলে গেমস খেলা অথবা ফেসবুকে প্রবেশ করে নতুন কোন আপডেটের খোজেঁ থাকি অথবা নিজের দেওয়া পোষ্টে Like ও Comments এর হিসাব কষতে থাকি । যার ধরুন Facebook ইউজার হিসেবে খুব আত্নকেন্দ্রিক এবং হিসাবযন্ত্রে রুপান্তর হচ্ছি আমরা , আর আমাদের মনুষ‍্যত্ব চলে যাচ্ছে অনেক , অনেক দূরে। অনেক ক্ষেত্রেই লক্ষ‍্য করা যায় ফেসবুকেLike , Comment, Share নিয়ে শুরু হয় তেলবাজী। Like হচ্ছে একটি ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া যা কয়েকটি কারনে দেওয়া হয় প্রথমত আমি তোমার সাথে আছি বা তোমাকে সমর্থন করি অথবা তোমার কাজটি পছন্দ করি। দ্বিতীয়ত আমি তোমার সাথে থাকতে চাই কারণ Like দিলে উক্ত আইডির পোষ্ট গুলো , Facebook আমার সামনে বেশি বেশি প্রদর্শন করবে। প্রাইভেছি সেটিংস এর উপর ভিত্তি করে আমাদের এই Like আবার অনেকের কাছে পৌছে যায় অর্থাৎ আমি কোন পোষ্টে Like দিলাম তা অনেকেই দেখতে পায়।অপরদিকে Comments হচ্ছে Like এর চেয়েও আরো বেশি শক্তিশালী প্রতিক্রিয়া অর্থাৎ আরো বেশি সন্তুষ্ট বা পরিতৃপ্ত অথবা বিরক্ত যা লিখে বা ইশারা-ইঙ্গিতে প্রকাশ করা হয়। আর Share হচ্ছে সক্রীয় অংশগ্ৰহণ , শুধু মতামত নয় অর্থাৎ আমি তোমার ঘটনা/ধারনা/চেতনাতে একই রকম উপলব্দি করে প্রচার/অংশগ্ৰহন করলাম। তবে দুঃখের বিষয় বর্তমানে এই Like,Comments ও Share কে অনেক ক্ষেত্রে তেলবাজী বা চামচামি হিসেবে ব্যবহৃত হতে দেখি। ধরুন আপনার উর্ধ্বোতন/ বস/নেতা/ক্ষমতাবান ব‍্যক্তি আপনাকে অপছন্দের কোন কাজ করতে দিলো , আপনি ছলে-বলে কৌশলে তা এড়িয়ে যাওয়ার সর্বোচ্চ চেষ্টা করবেন। অথচ সেই আপনিই , ভার্চুয়াল জগতে অপছন্দের কাজটি করতে ধারে ধারে ঘুরতে থাকেন। ধরুন আপানার উর্ধ্বোতন /বস/নেতা/ক্ষমতাবান ব‍্যক্তি ফেসবুকে একটি ছবি পোষ্ট করল যা আপনার কাছে খুবই অপছন্দনীয় ও বিরক্তকর কিন্তু ছবিটা দেখামাত্র আপনি একটি Like দিয়ে দেন । এইভেবে যে , উর্ধ্বোতন/বস/নেতা/ক্ষমতাবান ব‍্যক্তি আমার Like দেখলে খুশি হবে এবং আমিও ভবিষ‍্যতে এর সুবিধা পাবো , এইটা একধরনের তেলবাজী বা চামচামী যা আমার ভাষায় ডিজিটাল তেলবাজী অর্থাৎ বাস্তবিক আমার কাছে পছন্দীয় নয় তারপরও উর্ধ্বোতন/বস/নেতা/ক্ষমতাবান ব‍্যক্তিকে খুশি করার জন্য Like দিয়ে দিলাম। Comments এর বেলায়ও দেখা যায় উর্ধ্বোতন/বস/নেতা/ক্ষমতাবান ব‍্যক্তিকে খুশি করার জন্য তেলবাজরা বাড়িয়ে বাড়িয়ে মিথ্যা উপমা দিয়ে ,অতিরঞ্চিত মন্তব‍্য করছে যার যোগ‍্য সে নয়। অনেক সময়ই খেয়াল করি চাকরির উর্ধ্বোতন বস অথবা সমাজের বিত্তবান , ক্ষমতাসীন রাজনীতিবীদ বা প্রভাবশালী ব‍্যক্তির জনবিচ্ছিন্ন অর্থাৎ তাদের একান্ত ব্যাক্তিগত পোষ্টে হাজার হাজার Like ও Comments পাচ্ছে । অপরদিকে অধঃস্তন বা সধারন ব্যক্তি খুব জনসম্পৃক্ত এবং জনকল্যানমূলক কোন বিষয়ে Post আপডেট দিলে সেখানে Like ও Comments একেবারে হাতে গোনা। আফসোসের বিষয় হচ্ছে খুবই জনকল্যান মূলক এবং গবেষনাধর্মী একটি পোষ্টে , তেমন কোন Like ও Comments থাকে না। অথচ ফানি ভিডিও , Tik-Tok বা খুবই হাল্কা বিষয় নিয়ে তৈরী করা কৌতকপূর্ণ ভিডিও গুলোতে Like ও Comments থাকে অগনিত। এই বিষয়গুলো আমাদের উপমহাদেশেই লক্ষ্য করা যায়। অন‍্যদিকে উন্নত বিশ্বের দিকে তাকালে দেখা যায় ইউরোপ, আমেরিকা, অষ্ট্রেলিয়া বা কানাডায় জনকল্যান মূলক এবং গবেষনাধর্মী পোষ্টগুলোকে খুবই গুরুত্বের সাথে বিবেচনায় নেয় তাদের ফেসবুক ইউজাররা।ফেসবুকে Like , Comments এবং Share দেখেই আপনার চিন্তার ধরন ও গভীরতা সমন্ধে ধারনা পাওয়া যায়। বর্তমানে ইউরোপ-আমেরিকা ছাড়াও উন্নত বিশ্বের দেশ গুলোর ভিসা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে আবেদকের ব‍্যক্তিগত Facebook আইডি ব‍্যপকভাবে পর্যবেক্ষন করা হয় কারণ এর মাধ‍্যমে ব‍্যক্তির চিন্তাধারা , চেতনা বা ভাবাদর্শ সমন্ধে সহজেই ধারণা পাওয়া যায়। আলোচনা শেষ করবো ফেইসবুকের Like এর আলোচনা দিয়ে । আমার খুব কাছের দুই জন সহকর্মী ফেসবুকের ব্যাপারে খুবই সচেতন এবং প্রায়ই তারা ফেসবুক নিয়ে ব‍্যপক আলোচনায় মগ্ন থাকে। একজন ফেসবুকে খুবই উন্মুক্ত তার ফেসবুক ফ্রেন্ড ৪৯১৩ জন , সে কোন একটি পোষ্ট করলেই ১ দিনের মধ্যে ২৫০-৩০০ Like পাচ্ছে । অন‍্যদিকে অপরজন খুব রক্ষনশীল তার ফেইসবুক ফ্রেন্ড ৬২৬ জন , সে কোন একটি পোষ্ট করলে ১ দিনের মধ্যে ১৫০-২০০ Like পাচ্ছে। উপরিক্তো ঘটনার প্রেক্ষিতে প্রায় সময় আমার সহকর্মী (প্রথম জন-উন্মুক্ত ) বলে থাকে ফেসবুকে নাকি তার জনপ্রিয়তা রক্ষনশীল সহকর্মী (দ্বিতীয়জন) থেকে দ্বিগুন , কিন্তু বাস্তবে কি তাই ? আপনিই হিসাব করুন প্রথম জনের ৪৯১৩ বন্ধুর মধ্যে ৩০০ টি Like পাইলে পছন্দের হার শতকরা ৮% অন‍্যদিকে দ্বিতীয় জনের ৬২৬ বন্ধুর মধ্যে ২০০ টি Like পাইলে পছন্দের হার শতকরা ৩২%। হিসাব অনুযায়ী (প্রথম জন -উন্মুক্ত )সহকর্মীর দাবীকৃত দ্বিগুন জনপ্রিয়তার চেয়ে বরংচ রক্ষনশীল সহকর্মী চারগুন বেশি জনপ্রিয়। তাই শুধু Like এর পরিমান দিয়ে সবকিছু বিবেচনা না করে বরংচ Post এর গুণমান , জনগুরুত্বপূর্ণতা এবং তা কতটা জনকল্যানমূলক তা বিবেচনা করাটাই শ্রেয়। সময়ের পরিক্রমায় ফেসবুক হয়ে যাচ্ছে বৃহত্তর ভার্চুয়াল কবরস্থান কারন অনেক একাউন্ট স্বত্বাধিকারী ইতোমধ্যে মারা গিয়েছে , প্রতিদিনই অনেকে মারা যাচ্ছে। ফেসবুক একাউন্ট স্বত্বাধিকারীর মৃত্যুর পর অনেকদিন তার একাউন্টি চালু থাকে। তাই আমাদের ফেসবুক একাউন্ট থেকে পৃথিবী যাতে ভালো কিছু পায়।

নাজমুল হক
প্রভাষক ও কলামিস্ট
বনানী বিদ্যানিকেতন কলেজ