যুদ্ধ ও মহামারির চেয়েও কি ভয়ঙ্কর সড়ক দুর্ঘটনা ?

নাজমুল হক: সাধারণ ছুটির (অঘোষিত লকডাউন) আগের মাসে ফেব্রুয়ারিতে সড়ক দুর্ঘটনায় ৫৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে (তথ্যসূত্র-কালেরকন্ঠ)। গত আগস্ট মাসে রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের রিপোর্ট অনুযায়ী সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৭৯ জনের মৃত্যু হয়েছে , জুলাইয়ের তুলনায় দুর্ঘটনা বৃদ্ধির হার ৩.০৭% এবং প্রাণহানি বৃদ্ধির হার ৬.৪৬%। অর্সাৎ সাধারন ছুটির পর দেশ যতো স্বাভাবিক হচ্ছে দুর্ঘটনা ততোই বৃদ্ধি পাচ্ছে। পরিসংখ্যান বলছে সামনে আরো ভয়াবহতা বাড়বে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) এর হিসেবে প্রতি বছর বাংলাদেশে প্রায় ২১,০০০ লোক সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত হয় অর্থাৎ গড়ে প্রতিদিন ৫৮ জনের মৃত্যু হয়।২০১৮ বেসরকারি সংগঠন নৌ, সড়ক ও রেলপথ রক্ষায় জাতীয় কমিটি (যাত্রী কল্যাণ সমিতি) তথ্য অনুযায়ী ২০১৮ তে ৬০৪৮ টি সড়ক দূর্ঘটনায় ৭৭৯৬ জনের প্রানহানী হয়েছে অর্থাৎ গড়ে প্রতিদিন ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। ২০১৯ সালে তা আরো বেড়ে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর সংখ্যা দাড়ায় ৭৮৫৫ জনে। প্রতিদিনের সড়ক দূর্ঘটনায় মৃত্যুর সংখ্যা সবচেয়ে কম সরকারি হিসেবে , তাও প্রায় ৯ জন। সবচেয়ে কম সরকারি হিসাব ধরলেও দুই দশকে সড়ক দুর্ঘটনায মৃত্যুর সংখ্যা প্রায় পৌনে এক লক্ষ। অথচ দুই দশকের যুক্তরাষ্ট্র-আফগান যুদ্ধে প্রান হারায় অর্ধলাখ মানুষ। তাই সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু , যুদ্ধের চেয়ে কোন অংশে কম নয়। মহামারী করোনা ভাইরাসে গতকাল পর্যন্ত (১৮০ দিনে) অর্ধবছরে বাংলাদেশে মৃত্যু ৪৪১২ জনের কিন্তু WHO এর বাংলাদেশের সড়কের মৃত্যুর পরিসংখ্যানতো তার চেয়েও ভয়ঙ্কর। প্রতিদিন ৫৮ জন হিসেবে ১৮০ দিন বা অর্ধবছরে মৃত্যু ১০,৪৪০ অর্থাৎ সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু মহামারীর মৃত্যুর দ্বিগুণের বেশি। ” বিশ্বে সবচেয়ে বেশি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে বাংলাদেশে। বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে কম গাড়ি ব্যবহার করেও সর্বাধিক মানুষ মারা যাচ্ছে সড়ক দুর্ঘটনায়। বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনায় যত মানুষ হতাহত হয় তা দেশের সবগুলো অপরাধী কর্মকান্ড মিলিয়েও হয় না। তারপরও বছরের পর বছর ধরে সড়ক দুর্ঘটনা কমার পরিবর্তে বেড়েই চলেছে। বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বেশি গাড়ি ব্যবহার করেন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকরা। আর সবচেয়ে কম সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে যুক্তরাজ্যে। প্রতিবছর বিশ্বে সড়ক দুর্ঘটনায় দেড় লক্ষাধিক লোকের মৃত্যু হচ্ছে এবং আহত হচ্ছে আরও পাঁচ কোটি মানুষ। সড়ক দুর্ঘটনায় আগে শীর্ষে ছিলো নেপাল। নেপাল সড়ক দুর্ঘটনা রোধকল্পে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করে এখন দ্বিতীয় স্থানে চলে আসায় বাংলাদেশই প্রথম স্থানে চলে গেছে। সড়ক দুর্ঘটনার ওপর ইউরোপীয় অর্থনৈতিক কমিশন, ইউএনইসিই, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে এ ধরনের তথ্যের উল্লেখ করে বলা হয়েছে” (তথ্যসূত্র-জনকণ্ঠ) যদিও সকল মৃত্যুর যন্ত্রনা একই ধরনের তবে সকল মৃত্যুর মূল্য বা প্রভাব একই ধরনের না!! বিভিন্ন মৃত্যুর রাষ্ট্রিয় প্রভাব বিভিন্ন ধরনের। বাংলাদেশে প্রতিবছর ১২০০০ শিশু পানিতে ডুবে মারা যায় অর্থাৎ প্রতিদিন পানিতে ডুবে মারা যায় ৩২ শিশু , নিউইয়র্ক ভিত্তিক গবেষনা প্রতিষ্ঠান ব্লুমবার্গ ফিলালথ্রপিসের অর্থায়নে ইন্টারন্যাশনাল ইনজুরি রিসার্চ ইউনিট , সেন্টার ফর ইনজুরি প্রিভেনশনঅ্যান্ড রিসার্চ (CIPRB) এবং আন্তরজাতিক উদারময় গবেষণা কেন্দ্রে (ICDDRB) যৌথগবেষনায় এই তথ্য উঠে এসেছে। করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুকে পৃথিবী যেভাবে মূল্যায়ন করছে। সড়ক দূর্ঘটনা ও পানিতে ডুবে তার চেয়েও বেশি মানুষের মৃত্যু কি পৃথিবী সেইভাবে মূল্যায়ন করছে ? সড়ক দুর্ঘটনা বা পানিতে ডুবে মৃত্যুগুলো আমাদের মনে নাড়া দেয়না কেন , আমি জানিনা ? সম্ভবত এই মৃত্যু গুলো আমাদের কাছে প্রভাবহীন অথবা আমরা এগুলোর ব্যর্থতা মেনে নিয়েছে। গণমাধ্যম কি এই মৃত্যুগুলোকে করোনাভাইরাসের মতো প্যানিক তৈরি করতে পেরেছে ? আমাদের দেশের সড়ক ব্যবস্থাপনায় এখন চরম বিশৃঙ্খলতা বিরাজ করছে। বাংলাদেশের ৭০% সড়ক ব্যবহার করছে মাত্র ৫% গাড়ি মালিকদের ব্যাক্তিগত গাড়ি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) এর তথ্য মতে সড়ক দূর্ঘটনায় মৃত্যুর ৩২% নিরীহ পথচারী অথচ পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে পথচারী মৃত্যুহার মাত্র ৯% এবং ভূটানে মাত্র ৩%। সড়ক দূর্ঘটনায় যাত্রী মৃত্যুহার ৪১% এবং চালক মৃত্যুর হার ২৭% এবং বাকী ৩২% পথচারী। বৈশ্বিক সড়ক দূর্ঘটনায় মৃত্যুর ৯০% হয় অনুন্নত দেশে। সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত ৬৫% লোকই পরিবারের উপার্জনক্ষম ব্যক্তি যারা জিবীকার জন্য রাস্তায় বের হয় , যার ধরুন তার মৃত্যুতে সম্পূর্ন পারিবারটি পথে বসে যায় (সূত্র:The Daily Star)। উন্নত দেশগুলোতে সড়ক দূঘটনায় নিহত বা আহত ব্যাক্তির প্রাথমিক ধাক্কা কাটিয়ে উঠতে সরকার ক্ষতিগ্রস্থ ব্যক্তি/পরিবারকে উপযুক্ত ক্ষতিপূরন দিয়ে থাকে। বাংলাদেশের সড়ক ও পরিবহন ব্যবস্থা এখন একটি ভয়ঙ্কর মৃত্যুর ফাঁদ । প্রতিদিনই এই ফাঁদে পরে নিরীহ মানুষের পাশাপাশি মৃত্যুবরন করছে বিশিষ্ট শিল্পী, সাহিত্যিক, শিক্ষক, জাতীয় দলের খেলোয়াড়, রাজনিতীবিদ, সাংবাদিক, জজ, ব্যারিষ্টার এমনকি রাষ্ট্রদূতও অর্থাৎ প্রায় সব পেশার মানুষই সড়ক দূর্ঘটনায় মৃত্যুর মিছিলে সামিল হয়েছে। এত লাশ, এত মৃত্যুর পরও ভয়ঙ্কর এই মৃত্যু ফাঁদটি সংস্কার না হয়ে বরংচ দিন দিন আরও ভয়ঙ্কর হচ্ছে। আর কত বড় মাপের মানুষ বা আর কত লক্ষ নিরীহ মানুষের লাশ পড়লে আমরা এর থেকে উত্তরনের পথ পাব ,জানিনা। একটু ভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে চিন্তা করে দেখলাম সড়ক দুর্ঘটনায় সবচেয়ে আশাব্যঞ্জক ছিল ২০২০ সালের লকডাউনের তিন মাস (২৫ মার্চ-৩০ মে) এপ্রিল – জুন পর্যন্ত বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনা হয়নি বললেই চলে। এই ৩ মাসে WHO এর হিসেব মতে সড়ক দুর্ঘটনায় ৫৮*৯০=৫২২০ জন মানুষের মৃত্যু হওয়ার কথা ছিলো !! কিন্তু মহামারীর জেরে লকডাউনের কারনে সড়কে কোন মৃত্যু হয়নি। বরংচ তারচেয়ে অনেক কম মৃত্যু হয়েছে কোভিড ১৯ আক্রান্ত হয়ে অর্থাৎ করোনায় ঐ ৩ মাসে (৩০ জুন পর্যন্ত) মৃত্যু হয়েছিলো ১৭৮৩ জন। তারমানে মহামারী করোনা ভাইরাস থেকেও তিনগুণ বেশি মৃত্যু সড়কে ? অথচ BUET এর গবেষনা প্রতিষ্ঠান ARI (Accident Research Institute) জানায় সরকারের কার্যকরী পদক্ষেপে সড়কের দুর্ঘটনা বা অব্যবস্থাপনার ৫০-৭০% ঠিক করা সম্ভব।

নাজমুল হক
প্রভাষক ও কলামিস্ট
বনানী বিদ্যানিকেতন কলেজ