গণতন্ত্র মুক্ত, মৃত নাকি অসুস্থ

নাজমুল হক: আজ আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবস। বর্তমান দুনিয়ায় গণতন্ত্র একটি বিশ্বজনীন মতাদর্শ হলেও দিবসটির প্রচলন বেশি দিন হয়নি। ২০০৭ এর ১৫ সেপ্টেম্বর দিবসটির প্রচলন হওয়ার পর থেকে আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবস হিসেবে দিনটি পালন করে আসছে জাতিসংঘ ও তার সদস্য দেশগুলো। দিবসটির উদ্দেশ্য হল গণতান্ত্রিক আদর্শ-নীতির বিকাশ ও সম্প্রসারণ কিন্তু কতটুকু বিকাশ বা সম্প্রসারণ হলো আমাদের গণতন্ত্রের । ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে পরবর্তী বছর বর্ষপূর্তিতে সরকার “গণতন্ত্র মুক্ত দিবস” হিসেবে পালন করে। অন্যদিকে মাঠের বিরোধী দল বি.এন.পি দিনটিকে “গণতন্ত্র হত্যা দিবস” হিসেবে পালন করে। আগামীবছর আমাদের স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি হবে। বয়স অনুসারে আমাদের গণতন্ত্র এখন যুবক , তবে অসুস্থ বা রোগা জীর্ণশীর্ণ এক যুবক । আমার মতে আমাদের গণতন্ত্র এখন ডায়বেটিসে আক্রান্ত। যার মারাত্নক শেষ পরিনতি আমরা এখনও বুঝতে পারছি না ( বিএনপির ভাষ্যমতে সরকার গণতন্ত্রকে নিয়ন্ত্রণ করছে ) ডায়াবেটিসও যতক্ষণ নিয়ন্ত্রণে রাখা যায় ততক্ষণ এর ভয়াবহতা কারও চোখে পড়ে না। তবে যতই নিয়ন্ত্রন হউক ডায়বেটিসের বৈশিষ্ট্য ধীরে ধীরে তা রক্ত ও হার্ট (জনগন), কিডনি (প্রশাসন), চোখ (বিচার বিভাগ) ও মস্তিষ্ক (আইন বিভাগ) সহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ ধীরে ধীরে ডেমেজ করে দিয়ে হঠাৎ ভয়াবহ অসুস্থ্যতা প্রকাশ করে। কেন গণতন্ত্র অসুস্থ ? ২০১৪ এর জাতীয় নির্বাচন অংশগ্রহণ মূলক হয়নি এবং ২০১৮ তে অনুষ্ঠিত হওয়া একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনও জনগনের যথেষ্ঠ আস্থা অর্জন করতে পারেনি। আওয়ামী লীগের জোটে থাকা জাসদের (আম্বিয়া) ও জাতীয় পার্টির (মঞ্জু), জোটে থাকা বাদল , মেনন ও ইনু নির্বাচনী কারচুপির বিষয়টি নিয়ে প্রকাশ্য কথা বলে । এছাড়া টি.আই.বির গবেষনার রিপোর্ট অনুসারেও নির্বাচনে ব্যাপক অনিয়ম এর অভিযোগ তুলে বিচার বিভাগীয় তদন্তের পরামর্শ প্রদান করে।তাছাড়া জাতিসংঘ, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপিয় ইউনিয়ন বাংলাদেশের নির্বাচন নিয়ে যথেষ্ট সংশয় প্রকাশ করেছে। অপরদিকে জাতীয় নির্বাচন পরবর্তী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন, উপজেলা নির্বাচন এবং স্থানীয় নির্বাচনের প্রতি সাধারন মানুষের অনীহা (ভোটার উপস্থিতি খুবই কম) দেখে বুঝা যায় গণতন্ত্র পরিপূর্ণ সুস্থ্য নয়। যাইহোক এই দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ক্ষমতাসীন সরকারের আওতায় অনুষ্ঠিত নির্বাচনে কোন ক্ষমতাসীন সরকারই পরাজিত হয়নি এবং বিরোধী দল কারচুপির অভিযোগ তুলে উক্ত সরকারকে কখনও অভিনন্দন জানায়নি। বিভিন্ন সরকারের আমলে নির্বাচনে প্রশাসনকে যে ভূমিকায় দেখা যায় তার মানে প্রসাশন সম্পূর্ণ অংশই কি তৎকালিক সরকারের নিয়ন্ত্রণে ? আমার মতে এর উত্তর হচ্ছে না। নিচে তার কিছু কারণ তুলে ধরলামঃ

১। প্রশাসন ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থা সবসময়ই সরকারের সাথে তাল মিলিয়ে চলে। যখন যে সরকার তখন তারা সে সরকারের জন্য জান প্রাণ দিয়ে দিলেও, হাওয়া পরিবর্তন হলেই তারা খোলস পাল্টিয়ে ফেলে। আজ যারা নিজেদের আওয়ামীলীগার প্রমাণ করতে চাইছে পরিবর্তন হলে তারাই আওয়ামী লীগের উপর নিপীড়ন করবে। হ্যা, যারা খুব খোলা মেলা ভাবে বড় দুই দলের সমর্থক তারা সরকার পরিবর্তন হলেই তাদের পদপদবীর অস্থিত্বের সংকটে পরে, যার পরিমান সবোচ্চ ২০% অধিক নয়। বাকী ৮০% প্রশাসন সবসময় সরকারের সাথে তাল মিলিয়ে চলে।

২। প্রশাসন ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থা মামলা হামলা বা শক্তি প্রয়োগ যে , সব সময় সরকারের স্বার্থে করে ব্যাপারটি এমন নয় । অনেক সময় তারা এগুলো করে ব্যক্তিগত আর্থিক সুবিধা,পদোন্নতি,বা রাজনৈতিক অনুগ্রহের আশায়। সম্প্রতি লক্ষ্য করলাম ইউরোপের বেলারুশে যে সকল পুলিশরা সরকারের খুব অনুগত ছিলো। তারা পত্রিকা বা মিডিয়াতে যাতে নিজেদের ছবি না আসে সেজন্য খুবই সতর্ক। কারণ সেখানে বর্তমান বিরোধী দলের সরকার গঠনের সম্ভবনা রয়েছে।

৩। প্রশাসন ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থায় যারা খোলা মেলা ভাবে রাজনৈতিক সম্পৃক্তায় জড়িয়ে পড়ে। তারা নিজেদের ভবিষ্যতের নিরাপত্তার স্বার্থেই , সর্বোচ্চ শক্তি নিয়ে নির্বাচনের মাঠে সরকারের পক্ষে থাকেন।

৪) প্রশাসনের মধ্যে নির্বাচনে মাঠ পর্যায়ে যার অবদান বেশি ছিল বলে মনে করে। সে তার উর্ধ্বোতন কর্মকর্তাকে চেইন অব কমান্ড অনুসারে যথেষ্ট সমীহ করে না। উর্ধ্বোতন কর্মকর্তা যারা মাঠ পর্যায়ে যথেষ্ঠ ভূমিকা রাখতে পারেনি বা কিছুটা নিরপেক্ষ থাকার চেষ্ট করেছে তারা কোনঠাসা হয়ে যায়। যারদরুন প্রশাসনে জ্যেষ্ঠতা অনুসারে পদোন্নতির বিচ্যুতি বা অস্থিরতা লক্ষ্য করা যায়।

৫) ১৯৯০ এর পর থেকে ৫ বছর অন্তর অন্তর সরকার পরিবর্তন হওয়ার জেরে প্রশাসন ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনী এবং দলীয় নেতাকর্মীরা বিরোধী দলের সাথে একটা ভারসাম্যর সম্পর্ক বজায় রাখতো। সেই ভারসাম্যটি আস্তে আস্তে সামঞ্জস্যহীন হয়ে যাচ্ছে।

৬) গনতন্ত্রের ভারসাম্য নষ্ট হলে দলীয় নেতাকর্মীরা মনে করবে জনগনের ভোটের চেয়ে তাদের পেশী শক্তি বজায় রাখা জরুরী, যেটি তাদেরকে জনগন থেকে বিচ্ছন্ন করে ফেলবে। এই ধরনের ভারসাম্যহীন গনতন্ত্রে অনেক নেতাকর্মীর মধ্যে ধারনা তৈরী হবে, দল আর কখনও ক্ষমতার বাহিরে যাবে না। তাই অনেক নেতাকর্মী বেপরোয়া হয়ে উঠে।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে বাংলাদেশের গণতন্ত্রের ভবিষ‍্যৎ কোন দিকে যাচ্ছে ? আমাদের দেশের গনতন্ত্র কি চীন ও রাশিয়ার অনুরুপ গনতন্ত্রের দিকে ধাবিত হচ্ছে ? যেখানে একটি দল প্রায় ৩০-৪০ বছর দেশকে শাসন করে উন্নয়নের দিকে এগিয়ে নিয়ে যায় এবং সাধারন জনগন তার পিছনে মৌন সর্মথন দিয়ে যাবে। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশের প্রেক্ষাপট বিবেচনা করলে রাশিয়া ও চীনের সাথে বাংলাদেশের রাজনৈতিক, সামাজিক, ভৌগলিক ও অর্থনৈতিক বেশ পার্থক্য বিদ্যমান যার ধরুন তাদের শাসন ব্যবস্থার সাথে আমাদের শাসন ব্যবস্থার অনেক পার্থক্য পরিলক্ষিত হয়। জাতি হিসেবে আমরা খুবই স্বাধীনচেতা যারদরুন পাকিস্তানের শক্তিশালী হানাদার সেনাবাহিনীকে মোকাবিলা করে আলাদা রাষ্ট্র তৈরি করেছি । আমরা নম্রতা পছন্দ করি শক্তি প্রয়োগ নয়। আমার এক বন্ধুর কাছ থেকে , রিক্সাওয়ালা ঘুয়ার্তিমি বা অন্যায্য ভাবে ১০ টাকা বেশি নেওয়ার কারনে বন্ধুটি রিক্সাওয়ালাকে অন্যায় ভাবে থাপ্পড় মারে। যারদরুন আমি বন্ধুর ব্যপক সমালোচনা করি অথচ ঐ বন্ধুই আরেকদিন এক রিক্সাওয়ালাকে খুশি হয়ে ১০০০ টাকা বেশি দিয়েছে। কারন রিক্সাওয়ালা , তার অসুস্থ বাচ্চার জন্য অশ্রুসিক্ত হয়ে তার কাছে সাহায্য চেয়েছিল। অর্থাৎ আমরা অন্যায্য বা ঘুয়ার্তিমি চেয়ে নম্রতা বেশি পছন্দ করি। অন্যদিকে জাতি হিসেবে চীন খুবই রক্ষনশীল, যার কারনে হাজার বছর আগে যুদ্ধবিগ্রহের ঝামেলা এড়ানোর জন্য তারা মহাপ্রাচীর নির্মান করেন এবং গত প্রায় ছয় দশক ধরে তারা কোন দেশের সাথে সস্মুখ বৃহৎ যুদ্ধে অংশগ্রহন করেনি। চীনারা সামাজিক ও পারিবারিক ভাবে একজনের শাসনে অব‍্যস্থ এছাড়া তাদের অর্থনৈতিক অবস্থা খুবই শাক্তিশালী এবং বেকারত্ব দিন দিন হ্রাস পাচ্ছে তাই শাসক শ্রেণীর প্রতি সাধারন জনগনের অনাস্থা খুবই কম। অপরদিকে রাশিয়া আয়তনে পূথিবীর অর্ধেক হলেও জনসংখ্যা মাত্র সাড়ে ১৪ কোটি তাদের চাহিদার তুলনায় সম্পদ অনেক বেশি তাছাড়া ১৯৯২ সালে যেখানে বেকারত্বর হার ছিল প্রায় ৮% বর্তমান তা নেমে প্রায় ৪% চলে এসেছে এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির হার উত্তোরত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। অন্যদিকে ভ্লাদিমি পুতিনের আমলেই রাশিয়া সামরিক দিক দিয়ে সবচেয়ে শক্তিশালী অবস্থানে আছে। অন্যদিকে চীন ও রাশিয়ায় বিগত ৭০ বছরে অর্থাৎ বর্তমান প্রজন্মের কেউ স্বাধীকার আন্দোলনের ইতিহাসে জড়িত নেই।অন্যদিকে বিগত ৭০ বছরে বাংলাদেশ ১৯৫২, ১৯৬৯, ১৯৭১, ১৯৯০ ছাড়াও ছোট-বড় বিভিন্ন স্বাধীকার আন্দোলনের অনেক ইতিহাস রয়েছে। তাছাড়া ১৭ কোটি মানুষের ছোট্ট দেশে হাজারো অভাব অভিযোগ, বেকারত্ব , দূর্নীতি ও দলীয় আন্তঃকোন্দল , ৭২ বছরে পা দেওয়া মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিকল্প নেতৃত্ব , বিরোধী দল হিসেবে জাতীয় পার্টির অগ্রহণযোগ্যতা এবং দলীয় কোন্দল স্পষ্টতা সবকিছু নিয়ন্ত্রন করে দীর্ঘ মেয়াদে সকলের আস্থা অর্জন করা খুবই কঠিন কাজ।
সর্বশেষ বলতে চাই। মাঠের বিরোধী দল বিএনপির আসন সংখ্যা যাই থাকুক, ব্রিটিশ সংসদের আদলে আমাদের সংসদেও বিরোধী দল হিসেবে একটি ছায়া মন্ত্রিপরিষদ গঠন করা উচিত। বিরোধী দল ভবিষ্যতে সরকার গঠন করলে যাদের যে মন্ত্রণালয় দেবে বলে পরিকল্পনা করছে, তাই ছায়া মন্ত্রিপরিষদ। ছায়া মন্ত্রীরা হোমওয়ার্কিং করে চলমান সরকারের মন্ত্রীদের আলোচনা, গঠনমূলক সমালোচনা, ভুলভ্রান্তি, বাজেট বা পরামর্শ দিয়ে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে অনেক দূর। কিছুদিন আগে পত্রিকায় দেখলাম সিডিপির গবেষণা প্রতিবেদন অনুসারে গত এক দশকে আমাদের অর্থনিতী এখন সবচেয়ে চাপের মধ‍্যে আছে যা আমাদের জন‍্য ভালো সংবাদ নয় । এক সাগর রক্তের বিনিময়ে অর্জিত আমাদের স্বাধীনতা যার নেতৃত্বে ছিলো জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। তাছাড়া আওয়ামী লীগের শিকড় অনেক গভীরে প্রোথিত। তাই আমরা দৃঢ় আশাবাদী দেশের সবচেয়ে প্রাচীন দল বাংলাদেশ আওয়মী লীগ ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য বাংলাদেশকে একটি শক্তিশালী গনতান্ত্রিক ও টেকসই উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করবে। যেখানে উন্নয়ন ও গনতন্ত্র হাত দড়াদড়ি করে পথ চলবে।

নাজমুল হক
প্রভাষক ও কলামিস্ট
বনানী বিদ্যানিকেতন কলেজ