ধর্ষণ বন্ধে চাই মনমানসিকতার পরিবর্তন

ওসমান গনি: বর্তমানে দেশের সামগ্রিক দিক বিবেচনা করলে মনে হয় সারাদেশে ধর্ষণের প্রতিযোগিতা চলছে। প্রতিদিনই সংবাদমাধ্যম গুলোর দিকে তাকালে তাই প্রমান হয়। এমন কোন দিন নাই যে, আজকে কোথাও ধর্ষণ হয় নাই। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ায় অহরহ এ ধরনের সংবাদ ফলাও করে প্রচার হচ্ছে। যা দেখে শুনে দেশের মানুষ রীতিমতো হতবাক হয়ে যায়। আর ভাবে আমরা কোথায় আছি। কি হবে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজম্মের। আজকে ধর্ষণের বিচারের দাবীতে দেশের রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশ শ্লোগানে শ্লোগানে উত্তাল। সারাদেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়েছে। রাস্তাঘাটে চলাচলকারী পথচারী ও যানবাহন কে পড়তে হচ্ছে ভোগান্তিতে। কিন্তু কেন এমন হবে? আমরা তো মানুষ, আমাদের বিবেক আছে। ভালোমন্দ যাচাই বাছাই করার ক্ষমতা আছে। তাহলে কেন মানুষ বিপথগামী হবে। কেন মানুষ মানুষের অপকর্মের বিচারের জন্য রাস্তায় নেমে আন্দোলন করতে হবে?

আজকে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের একলাশপুরে এক নারীকে ধর্ষকরা বিবস্ত্র করে ভিডিও তৈরি করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেসবুকে আপলোড দেওয়ার পর একযোগে সারাদেশে শুরু হয়ে গেল আন্দোলন। শুধু নোয়াখালীর একলাশপুরের ঘটনা নয় তার আগেও ধর্ষণের বিচারের দাবীতে সারাদেশ একত্র হয়ে আন্দোলন করছিল। তখনও কিছু হয়নি। ধর্ষণের প্রকারভেদ যে কতপ্রকার তা মনে হয় ধর্ষকরাই জানে। আমরা মানুষ হিসাবে কত নীচে নেমে গেছি তা ভাবতেও অবাক লাগে। চলন্ত গাড়ীতে যাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়। তাহলে আমাদের দেশের নারীদের নিরাপত্তার স্থানটি কোথায়। স্বামীর সামনে স্ত্রী ধর্ষণ হয়, মা বাবার সামনে মেয়ে ধর্ষণ হয়। এসব ধর্ষক কারা? তারা কি কোন অদৃশ্য শক্তি। তারা আকৃতিতে মানুষ আসলে তারা মানুষ নয়। মানুষ হলে তাদের বিবেক থাকত। আর বিবেকবান মানুষ হলে তারা কখনও এ ধারনের ধিক্কার জনক কাজে জড়িত হতে পারত না।

ধর্ষণ বন্ধ করতে হলে সবার আগে আমাদের কে আসল মানুষ হিসাবে গড়ে উঠতে হবে। আমাদের বিবেক চেতনাকে জাগ্রত করতে হবে। প্রতিভা কে বিকশিত করতে হবে। এসব করতে হলে মা বাবা তাদের সন্তানদের কে সু- শিক্ষার মাধ্যমে আদর্শ মানুষ হিসাবে গড়ে তোলতে হবে। সু – শিক্ষায় শিক্ষিত কোন মানুষ যেকোন কাজ করার আগে ভেবেচিন্তে করে। কারন চরিত্রের মধ্যে যেন কোন ময়লার স্পট না লাগে। এভাবে দেশের মানুষ কে গড়ে তোলতে পারলে হয়তো অনেকাংশে ধর্ষণের মাত্রা কমতে পারে।

ধর্ষণ বন্ধে দেশের মানুষের চাপে সরকার যতো শক্তিশালী আইন ই করুক না কেন ধর্ষণ কখনো বন্ধ হবে না। আমাদের দেশের মানুষ কোন আইনকেই তোয়াক্কা করে না। আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল না। আমরা জানি আমাদের দেশে মানুষ খুনের শাস্তি হলো মৃত্যুদন্ড। এসব জানার পরও কি দেশের খুনখারাপি বন্ধ হয়েছে? হয়নি। তদ্রুপ ধর্ষণ বন্ধে মৃত্যুদন্ড আইন পাশ করলে কি ধর্ষণ বন্ধ হবে? মনে হয় না। যত আইন ই করা হউক না কেন সব আইনের মধ্যে কিছু ফাঁকফোকর থাকে। অপরাধী যাতে বাচতে পারে সেরকম কিছু একটা থাকে। যেমন খুনের সাজা মৃত্যুদন্ড ফাসি । এ ফাসি থেকে বাচার জন্য রয়েছে রাষ্ট্রপতির বিশেষ ক্ষমা। তবে সেটা সবক্ষেত্রে প্রযোজ্য না। ধর্ষণ করার পর মৃত্যুদন্ড হলে এমন হতেও তো পারে। এভাবে ধর্ষণ বন্ধ হবে না।

ধর্ষণ বন্ধ করতে হলে সবার আগে আমাদের – চল পাল্টে যাই, পাল্টে দেই – এই নীতি অনুসরণ করে সামনে বাড়তে হবে। পাল্টাতে হবে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি ও মনমানসিকতা। আইন করে মানুষকে পাল্টানো যায় না। মানুষ নিজ থেকে পাল্টাতে হবে। যতক্ষণ মানুষের মনে শুভবুদ্ধি উদয় হবে না ততক্ষণ হাজার চেষ্টা করলে মানুষের সহজাতপ্রবৃদ্ধি দূর কর যাবে না। আগে আমি আপনি এক এক করে মনমানসিকতা পাল্টাতে শুরু করি, তাহলে দেখব অনেকে ই নিজ থেকে পাল্টে যাচ্ছে। আস্তে আস্তে গোটা পরিবার, সমাজ, রাষ্ট্র ও দেশ পাল্টে যাবে। বইতে শুরু করবে সুবাতাস সমাজে ও দেশে। নিরাপদ ও নির্ভয়ে নারী পুরুষ সবাই চলাফেরা করতে পারবে। আমাদের মন থেকে আস্তে আস্তে মুছে যাবে ধর্ষণের কলুষিত মনোভাব। রাষ্ট্র কখনও আমাকে আপনাকে পাল্টাতে পারবে না। আমি আর আপনি হলেন রাষ্ট্রের ক্ষুদ্রতম মৌলিক একক। আমি আর আপনি পাল্টালে রাষ্ট্র পাল্টে যাবে।

ওসমান গনি
সাংবাদিক ও কলামিস্ট