রাজনীতি সচেতন হওয়া ও কোন একটি রাজনৈতিক আদর্শকে ধারণ, লালন ও মত প্রকাশের মধ্য দিয়ে দেশ গঠনে ভূমিকা রাখাটাই সাধারণত রাজনীতি চর্চার প্রতিপাদ্য; হোক সেটি ছাত্র, শিক্ষক, পেশাজীবী এবং জাতীয় পর্যায়ের রাজনীতি। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে, আমাদের দেশের বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষজন রাজনীতিকে ব্যবহার করে অবৈধ পন্থায় অর্থ, সম্পদ ও ক্ষমতা অর্জনের নেশায় মত্ত। সবচেয়ে হতাশার ও পরিতাপের বিষয় যে, দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠের শিক্ষকরাও আদর্শিক চর্চা ব্যতিরেকে ব্যক্তি, গোষ্ঠী ও অঞ্চল ভিত্তিক বিভাজনে জড়িয়ে নিজেদের স্বার্থ হাসিলে ব্যস্ত। অথচ তারা জাতির বিবেক হিসেবে সরকার, রাজনৈতিক দল সর্বোপরি সাধারণ জনগণকে দেশপ্রেম, সততা ও সুস্থ্য রাজনীতি চর্চায় উদ্বুদ্ধ করতে পারত।

বিভিন্ন তথ্যসূত্র ও অনুসন্ধান থেকে জানা যায় বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা রাজনীতিকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে জড়িয়ে পড়েছে নানা অনিয়মে শুধুমাত্র পদ-পদবী ও আর্থিক সুবিধা প্রাপ্তির নেশায়, যেমন: কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শিক্ষক নিয়োগে প্রভাব বিস্তার এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বাজেট থেকে আর্থিক সুবিধা আদায়। এ প্রক্রিয়ায় শিক্ষক রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ে বিদ্যমান অন্যান্য সংগঠন এবং স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ের কিছু প্রভাবশালী নেতা। যার ফলশ্রুতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন নিয়োগ কমিটি ও গুরুত্বপূর্ণ পদগুলোতে ঘুরে ফিরে কিছু নির্দিষ্ট শিক্ষকরাই নিযুক্ত হন; আদর্শিক বিবেচনায় নয়, বরং অঞ্চল ও গোষ্ঠী স্বার্থ বিবেচনায়। বিগত ১২ বছরে বেশ কয়েকটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন নিয়োগে অভিযোগ ওঠেছে আর্থিক লেনদেনের ও আওয়ামী পরিবার বাদ দিয়ে জামাত-বিএনপি পরিবারের সদস্যদের নিয়োগ প্রদান। সরকার হয়ত

নিজের লোক মনে করে কাউকে ভিসি নিয়োগ দিচ্ছেন কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরীণ প্রশাসনিক অবকাঠামো ও বিদ্যামান রাজনৈতিক পরিস্থিতির উপর কোন দেখভাল বা নিয়ন্ত্রণ রাখছেন না। দেশের নানা রাজনৈতিক সংকট ও পট পরিবর্তনের সাক্ষী আমি। আওয়ামীলীগের অনেক আন্দোলন-সংগ্রামের অংশীদার । তাই সুযোগ হয়েছে কাছ থেকে অনেকের হঠকারী রাজনৈতিক স্বরূপ দেখার। কিভাবে নিজের গ্রুপ বড় ও শক্তিশালী করার জন্য ভিন্ন মতাদর্শের মানুষকে কাছে টেনে নিয়েছেন, শিক্ষক নিয়োগে আঞ্চলিক প্রভাব বিস্তার করেছেন। উল্লেখযোগ্য বিষয় যে, যারা এত প্রতাপের সাথে বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসন বিগত ১২ বছর চালাচ্ছেন বা নিয়ন্ত্রণ করছেন তাদের অনেককেই ২০০১-২০০৭ সময়টাতে আওয়ামী সমর্থনে সক্রিয় থাকতে দেখা যায়নি। এমনকি ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার যখন শেখ হাসিনাকে গ্রেফতার করেন সেই সময়ে আমি জুনিয়র একজন শিক্ষক হয়েও শেখ হাসিনার মুক্তির জন্য স্বাক্ষর গ্রহণের তালিকায় প্রথম দিকে স্বাক্ষর করি । অথচ শেখ হাসিনার মুক্তির পক্ষে স্বাক্ষর দেননি এমন অনেক বিশ^বিদ্যালয় প্রফেসর ২০০৯-এ আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে রাতারাতি আওয়ামীপন্থি সেজে যায়; যেখানে তারা ২০০১-২০০৭ পর্যন্ত বিএনপি- জামাত এর সাথে সুসম্পর্ক রেখে চলতো, মইনউদ্দীন- ফখরুদ্দীন এর রাজনৈতিক সংস্কারের পক্ষে ছিল, এমনকি ড. ইউনুসের নতুন দল গঠনের ব্যর্থ চেষ্টায় শরীকও হয়েছিল। এখন কথা হচ্ছে শিক্ষকদের সুবিধামত রদবদল ও গতিবিধি সরকার কিভাবে নজর রাখবেন ও নিয়ন্ত্রণ করবেন সেটিই আলোচ্য বিষয়। প্রচলিত শিক্ষক রাজনীতি দল, সরকার ও দেশের কোন উপকারেই আসছে না। বরং বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে তৈরী হচ্ছে সুবিধাভোগী ও সুবিধাবঞ্চিত দুটি বিবাদমান গ্রুপ, ফলশ্রুতিতে বাড়ছে অস্থিরতা ও নি¤œগামী হচ্ছে উচ্চশিক্ষা। এমন পরিস্থিতি থেকে বিশ্ববিদ্যালয় গুলোকে উত্তরণ করতে হলে প্রয়োজন সরকারি নিয়ন্ত্রণ, শিক্ষকদের মূল্যায়ন ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করণের ব্যবস্থা গ্রহণে উপযুক্ত নীতিমালা প্রণয়ন। আমরা

জানি যে, কমিউনিস্ট পার্টি দীর্ঘদিন যাবৎ চীনে ক্ষমতায়। দলটির শীর্ষনেতা ও বর্তমান প্রেসিডেন্ট শি জিন পিং-এর দুর্নীতির বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান আজকে দেশটিকে বিশ্ব দরবারের অনন্য এক উচ্চতায় নিয়ে গেছে স্বাধীনতা প্রাপ্তির ৭০ বছরে । চীনের প্রতিটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপর রয়েছে সিপিসি-এর নিয়ন্ত্রণ, শুধু তাই নয় দেশটির প্রতিটি নাগরিকও রয়েছে সরকারি নিয়ন্ত্রণে। তাই বলে কী চীনে নাগরিক জীবন ব্যাহত হয়েছে? পিছিয়ে আছে উন্নয়ন? শিক্ষা, জ্ঞান-বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে চীন এখন অনেক এগিয়ে। বিশ্বের র‌্যাংকিং- এ টপ ১০০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে রয়েছে চীনের বেশ কয়টি বিশ্ববিদ্যালয়। চীনের প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে ছাত্র ও শিক্ষকদের জন্য লেখাপড়া ও গবেষণার সুন্দর পরিবেশ ও পর্যাপ্ত সুবিধা, ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য রয়েছে সুস্থ শারীরিক ও মানসিকভাবে বেড়ে উঠার বিভিন্ন ধরণের কার্যক্রম যা তাদের পরবর্তী জীবনে আদর্শ নাগরিক হিসেবে জীবন পরিচালনা ও দেশ গঠনে অবদান রাখছে। প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভিসি/প্রেসিডেন্টের সমান্তরালে নিয়োগপ্রাপ্ত থাকেন পার্টির দুইজন লোক যাদের পদবী হল ভাইস পার্টি সেক্রেটারী। আর প্রতিটি অনুষদ/স্কুলে ডীনের সমান্তরালে নিয়োগপ্রাপ্ত থাকেন ১ জন করে পার্টির লোক, যার পদবী হল পার্টি সেক্রেটারী। তারা সবাই প্রাদেশিক সরকারের আস্থাভাজন ও শিক্ষকদের মতই বেতনভুক্ত। বিশ্ববিদ্যালয়ে পার্টির নিয়োগপ্রাপ্ত লোকদের মূল কাজ হলো বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক প্রাশাসনিক ব্যবস্থা ও ছাত্র শৃঙ্খলা দেখাশোনা করা, শিক্ষকদের সাথে ছোট ছোট গ্রুপে বসে মিটিং করে শিক্ষা-গবেষণার আপডেট করা বা কোন সুপারিশ থাকলে তা সরকারকে পৌঁছে দেওয়া, ছাত্র ও শিক্ষদের মধ্যে প্রতিভাবান ও দক্ষ লোক নির্বাচন করা যাতে তারা সিপিসির নেতৃত্বে আসতে পারে। সমস্ত কাজগুলোই পার্টির লোকরা করে থাকে সততা ও নিপেক্ষতার সাথে। কারো উপর ক্ষমতা প্রয়োগ করে না বা কাউকে অন্যায় সুবিধাও দেয় না। যার ফলে ছাত্র শিক্ষকরা তাদের শিক্ষা ও গবেষণা কার্যক্রম সুন্দরভাবে পরিচালনা করে যাচ্ছে। আমাদের দেশের মত তথাকথিত রাজনৈতিক চর্চার সুযোগ নেই সেখানে। এ

প্রক্রিয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়গুলো এগিয়ে যাচ্ছে জ্ঞান-বিজ্ঞান চর্চায় এবং ভবিষ্যৎ নেতৃত্বও তৈরী হচ্ছে সুন্দর একটি প্রক্রিয়ায়। তাই আমরা মনে করি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ঘোষিত রূপকল্প ২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়নের লক্ষ্য অর্জনের জন্য দক্ষ মানব সম্পদ তৈরী ও জ্ঞান-বিজ্ঞানের উৎকর্ষ সাধনকল্পে দেশের সকল পাবলিক-প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার স্বার্থে চীনের মডেলে সরকারি নিয়ন্ত্রণ জরুরি যেটি কিনা বিশ^বিদ্যালগুলির স্বায়ত্ব শাসন বজায় রেখেও সম্ভব।

লেখক: প্রফেসর ড. সৈয়দ মোঃ এহসানুর রহমান
বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
পিএইচডি অধ্যাপক, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্বিবদ্যালয়

Previous articleছাত্রাবাসে গণধর্ষণ ও চাঁদাবাজি মামলার বিচার একসঙ্গে চলবে: হাইকোর্ট
Next articleঈশ্বরদীতে করোনার টিকাদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন নুরুজ্জামান বিশ্বাস এমপি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।