পেশা নিয়ে দাম্ভিকতা নয় প্রয়োজন নম্রতা

নাজমুল হক: বলুনতো ভারতের প্রেসিডেন্ট কে…? নরেন্দ্র মোদী কিন্তু প্রধানমন্ত্রী।অস্ট্রেলিয়া, ব্রাজিল বা আর্জেন্টিনার প্রধানমন্ত্রী /প্রেসিডেন্ট কে…? অথচ আমরা টেন্ডুলকার, রিকি পন্টিং, রোনাল্ডো বা মেসির সাথে পরিচিত। আমি প্রতিবেশী দেশ ভারতে গিয়েছিলাম কয়েক বার, সেখানে প্রায় ১০০ জনের কাছে জানতে চেয়েছিলাম বাংলদেশের প্রেসিডেন্ট কে…? ৯৮ জন বলতে পারেনি। অপরদিকে ক্রিকেটার সাকিবের নাম বলতেই তারা সবাই (১০০ জনই ) চিনেছে। তাহলে কে বেশি সফল…? প্রেসিডেন্ট নাকি খেলোয়াড়রা। আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তার শিক্ষককে স্যার বলে সম্বোধন করে এবং শিক্ষকের সম্মানে নিজের লাল গালিচা ছেড়ে দেয়। এতো সম্মান শিক্ষকের কিন্তু ১০০ জন অভিভাবকের ৯৫ জনই নিজের সন্তানকে শিক্ষক বানাতে চায় না। বিচারক, প্রশাসন বা পুলিশ ক্যাডার এতো সফলতা তাদের জীবনে অথচ তাদের অনেকে চায় তার সন্তান যেনো ভবিষ্যতে ডাক্তার হয়…! তাহলে প্রকৃত সফল কে….? এমনো দেখেছি বাংলাদেশের সবচেয়ে বাঘা বাঘা ডাক্তার মাশরাফি বা সাকিবের সাথে ছবি /সেলফি তোলার জন্য দীর্ঘ অপেক্ষায় বা উদগ্রীব হয়ে আছে। সাকিব যখন বাংলাদেশকে শেষ বলে ১ রান করে জয়ের প্রান্তে নিয়ে গেলো তখন দেখলাম বিখ্যাত সে অধ্যাপক (ডাক্তার) সাহেব বাচ্চাদের মতো লাফাচ্ছে। তাহলে সফলতা কার বেশি…? অথচ এই ডাক্তার সাহেবরা নিজের সন্তানদের খেলতে দিতে চায় না…! বিশ্বখ্যাত একজন খেলেয়াড়ের সাক্ষাতকারে বলেছিলো তার সন্তানকে সে আকাশে উড়াতে চায় অর্থাৎ পাইলট বানাতে চায়…! অথচ ২ দিন আগে পত্রিকায় দেখলাম শিল্পী মিলা তার পাইলট স্বামীকে সংসার বিচ্ছিন্নের জেরে মুখে এসিড মেরেছে। তাহলে কোন পেশাকে সফল বলবো বলেন…? হিরো আলম বা টিকটক অপুর ভক্তদের কাছে নাসার বিজ্ঞানী বা অক্সফোর্ডের প্রফেসরের কোন মূল্য নেই। মূল্যায়নের ব্যাপারটি খুব জটিল। অনেক সময় খেয়াল করেছি বুয়েট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় পড়ার সুযোগ হয়েছে যাদের, তাদের অনেকের কথায় দম্ভপ্রকাশ পায়। তাদের অনেকের ধারনা জাতীয় বা প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা পড়ে তাদের তুলনায় তারা হাজারগুন এগিয়ে। নিজেকে জাহির করার জন্য আগেই প্রতিষ্ঠানের নাম বলে গর্বভরে তা প্রকাশ করে। আচ্ছা পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ বিশ্ববিদ্যালয় ম্যাসাচুেসটস বা হাভার্ডের বর্তমান কোন ছাত্রের নাম বলতে পারবেন…? ছাত্র দূরে থাক ঐ বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলরের নাম কেউ বলতে পারবেন…? তাহলে কিসের এতো গর্ববোধ…! আচ্ছা বলুনতো বাংলাদেশ যারা সফল ব্যবসায়ি বা শিল্পপতি হিসেবে আইকন, তাদের কর্ণধাররা কয়জন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়েছেন…!কিন্তু তাদের নিয়ন্ত্রণে লক্ষ লক্ষ পাবলিক বা প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা চাকর হিসেবে থাকে অর্থাৎ সাবলীল ভাষায় বললে চাকরি করে। এই হিসেবে বুঝা যায় সাধারন বিশ্ববিদ্যালয় বা কম পড়ালেখাই বেশি সফলতার রহস্য…! আবার অনেক ব্যবসায়ী বা শিল্পপতির সাথে কথা বলে জেনেছি উচ্চশিক্ষার আফসোসটা তাদের মনে পীড়া দেয়। এবার বলুন ক্যারিয়ারে কারা বেশি সফল…? এইবার আমার নিজ জীবনে ঘটে যাওয়া একটি বাস্তব ঘটনা বলছি। গত কোরবানির ঈদের সন্ধায় আমার বেসিনের পাইপ লাইনে চর্বি জমা হয়ে বেসিনের লাইন বন্ধ হয়ে যায়। ঢাকা সিটি ফাকা কোথাও মিস্ত্রী পাচ্ছি না, নিজের চেষ্টায় (পাইপ খোঁচাতে গিয়ে) বিপদ আরো বাড়লো। বেসিনের পাইপের সাথে ওয়াশরুম ও মটরের পাইপও আটকে যায়। পাইপ আটকানো অবস্থায় মটর চালু করায় মটর (সার্কিট জ্বলে) অচল হয়ে যায়। পানির অভাবের দরুন আমার ফ্ল্যাট সহ অন্যান্য ফ্ল্যাটে খাওয়া এবং ওয়াস রুম ব্যবহার বন্ধ হয়ে যায়। মটরের দোকান বন্ধ কোথাও মিস্ত্রি নেই, কোন রকম রাত্রি পারি দিলাম। পরের দিন অনেক জায়গায় যোগাযোগ করেও মটর বা মিস্ত্রি কোনটাই পেলাম না। বাড়িতে ২০ টি ফ্ল্যাটের প্রায় ১২০ জনের খাওয়া-গোসল বন্ধ। পরের দিন গ্রামে বেড়াতে যাওয়া পরিচিত একজন মিস্ত্রিকে খুব অনুনয়-বিনয় করে বিশেষ ব্যবস্থায় ঢাকায় আনি। সে এসে ১ ঘন্টায় মোটরের সার্কিট ও পাইপ লাইন ক্লিয়ার করে দেয়। হাফ ছেড়ে বাঁচি আমরা। বাড়িতে থাকা ডাক্তার, ইন্জিনিয়ার বা প্রফেসার যে কাজটি ৪৫ ঘন্টায় পারেনি সেই কাজটি সাধারণ মিস্ত্রি ভাইটি মাত্র ১ ঘন্টায় করলো। তাহলে প্রফেশনের মূল্যায়নটা কিভাবে করবেন বলুন…? রবিন্দ্রনাথ ঠাকুর ১৮৯৯ সালে কণিকা কাব্যগ্রন্থে ভক্তিভাজন কাব্যাংশে এই অঞ্চলের মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি (আত্ম দাম্ভিকতা) তুলে ধরেছিলেন।

রথযাত্রা, লোকারণ্য, মহা ধুমধাম,

ভক্তেরা লুটায়ে পথে করিছে প্রণাম।

পথ ভাবে ‘আমি দেব’, রথ ভাবে ‘আমি’,

মূর্তি ভাবে ‘আমি দেব’ হাসে অন্তর্যামী।

অথচ উন্নত দেশের দিকে তাকালে দেখা যায় সেখানে পেশায় কোন পার্থক্য করা হয়না। প্রধানমন্ত্রী থেকে ক্লিনার পর্যন্ত সবাই মর্যাদা নিয়েই কাজ করে। সেখানে বড় বড় রাষ্ট্রীয় পদবীধারীরা সবার মতো সমান সুযোগ ভোগ করে, কারও জন্য বাড়তি সুযোগ নেই। অনেক দেশের রাষ্ট্রপ্রধানকে দেখেছি সুপার শপে সিরিয়াল দিয়ে দাড়িয়ে শপিং করতে। পেশায় মর্যাদার পার্থক্যের দৃষ্টিভঙ্গি না বদলালে, দেশ বদলাবে কিভাবে…? পরিবর্তন কি এমনিতেই হয় পরিবর্তন করতে হয়।।

Previous articleচৌহালীতে যমুনায় মাছ ধরতে গিয়ে পানিতে ডুবে শিক্ষকের মৃত্যু
Next articleচান্দিনায় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অচেতন করে ব্যাংক লুটের চেষ্টা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।