নাজমুল হক: ১ সপ্তাহ পর ( ৮ মার্চ ) করোনার বর্ষপূর্তি হবে। ১ বছরে সংক্রমণ ১% এর কম হলেও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৯০% এর বেশি মানুষ । করোনার যে সময়ে ৫,২০০ জনের মৃত্যু হয় একই সময়ে আত্মহত্যা করে ১১,০০০ এর বেশি। যা ২০১৯ এর চেয়ে ১৩% বেশি। আমাদের ১৬ কোটি মানুষের ১% কিন্তু ১৬ লাখ। অথচ করোনায় প্রায় ১ বছরে আক্রান্ত ৫,৪৬,৮০১ অর্থাৎ ১% এর ৩ ভাগের ১ ভাগ। সংক্রমণ ১% এর কম হলেও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৯০% এর বেশি মানুষ। একটু খেয়াল করুণ যুক্তরাষ্ট্রে পৃথিবীর সবচেয়ে উন্নত চিকিৎসা ব্যবস্থা থাকলেও মৃত্যু হয়েছে ৫,২৫,৭৭৬ প্রায় আমাদের আক্রান্তের সমান। গতবছর ঠিক এই সময়ের করোনা আতঙ্কে পুরো দেশ বিপর্যস্ত ছিলো। প্যানিক পার্চেস শব্দটি মনে আছে তো…!! আতঙ্কে মানুষ মাস্ক, স্যানিটাইজার,স্যাভলন বা নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য এতো পরিমানে কিনলো যে, ৭০ টাকায় ১ টি সার্জিকেল মাস্ক কিনতে হয়েছিলো আর এখন ৭০ টাকায় ৫০ টি মাস্ক পাওয়া যাচ্ছে। জাতিগত ভাবেই আমরা খুব আবেগপ্রবণ অথচ আমাদের সবচেয়ে বড় বাণিজ্যিক পার্টনার চীন খুব ঠান্ডা মাথায় এবং নীরবে সংকট মোকাবিলা করছে। চীনের উহানে সৃষ্ট করোনায় তৎকালীন ১ নম্বরে থাকা চীন এখন ৮৬ নম্বরে। ৪২৫ দিনে মোট মৃত্যু ৪৬৩৬ যা আমেরিকার প্রায় ১ দিনের মৃত্যুর সমান। আমেরিকায় প্রতি মিলিয়নে (১০ লক্ষ) আক্রান্ত ৮৮,৪০১ অথচ চীনে প্রতি মিলিয়নে আক্রান্ত মাত্র ৬২ জন, বাংলাদেশে প্রতি মিলিয়নে আক্রান্ত ৩,২৭৬ জন। বেলজিয়ামে প্রতি মিলিয়নে মৃত্যু ১৯০১ জন আর চীনে প্রতি মিলিয়নে মৃত্যু মাত্র ৩ জন, বাংলাদেশে প্রতি মিলিয়নে মৃত্যু ৪৯ জন (তথ্যসূত্রঃ Worldometer)। করোনার দীর্ঘমেয়াদী একটি ক্ষতির ঘটনার প্রত্যক্ষ সাক্ষী আমি। গত সপ্তাহে নিজ চোখের সামনে ঘটে যাওয়া একটি ঘটনা কোনভাবেই ভুলতে পারছি না। আমার একজন সহকর্মী, আলী ভাই (ছদ্মনাম) একসময় চাকরির পাশাপাশি ক্ষুদ্র ব্যবসায় জড়িত ছিলো। স্ত্রী-সন্তান নিয়ে সচ্ছল জীবন ছিলো তার, লকডাউনে চাকরি ও ব্যবসা হারিয়ে এলেমেলো জীবনের শুরু। ব্যক্তিত্ববজায় রেখে চলা মানুষটি , নিজের চরম কষ্টের কথা কারো সাথে কখনো শেয়ার করেনি। বিগত এক বছর যাবৎ অর্ধাহারে বা অনাহারে দিন কাটাচ্ছিলো। উচ্চশিক্ষা থাকলেও যে কোন কাজের জন্য প্রস্তুত ছিলো সে , কিন্তু কোন কাজই পাচ্ছিলো না। সেই কোরবানি ঈদে একবেলা গোস্ত খেয়েছিলো । বিগত একবছরে মাছ-গোস্ত দূরের কথা দুই বেলার বেশি খাওয়ার সুযোগ হয়নি তার পরিবারের। প্রায় বলতো ভাই খুব ক্লান্ত, আসলে পুষ্টিকর খাদ্যের অভাবে যা হয়। বছর খানেক যাবৎ পরিবারের সদস্যদের জন্য কোন পোশাক কিনতে পারেনি। খাবার যেখানে মুখ্য , পোশাক কেনা তো সেখানে বিলাসিতা। আর্থিক বিপর্যস্ত হয়ে ধারকর্জ করে কোনরকম সংসার চালাচ্ছিলো সে। আর্থিক দৈন্যদশা এবং দেনার চাপ কুড়ে কুড়ে খাচ্ছিলো। গত সপ্তাহের বন্ধে, খেলার আয়োজন ছিলো আমাদের এলাকায়। আলী ভাইকে সাথে করে নিয়ে আসি সেখানে। ভাবছিলাম মানসিক চাপে থাকা আলী ভাই কিছুটা Refresh হবে। খেলার শেষদিকে আলী ভাই হঠাৎ মাঠে বসে পড়লো, তার বাম পা ও মুখ কিছুটা বাকা হয়ে যাচ্ছিলো। তাড়াতাড়ি পার্শ্ববর্তী হাসপাতালে নেওয়া হলো। দ্রুত সময়ে ডায়াগনোসিস করে ডাক্তার বললো স্ট্রোক করেছে। কথা জড়িয়ে যাচ্ছে তারপরও অল্প অল্প করে কথা বলছিলো, রক্তচাপ বা Pressure তখন ১৯০ (আপ) বলা চলে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে সে । সেই মুহুর্তে আমাকে বললো তার বাচ্চাদের নিয়ে আসতে। মায়ের সাথে হাসপাতালে আসা ছোট ছেলেটার বয়স ৬ এবং মেয়াটার বয়স ৩, মেয়েটার কথায় অনেক আহ্লাদ। বাবা ডানহাতে (যেহেতু বাম হাত ও পা প্যারালাইজড) মেয়েটাকে বুকে আগলিয়ে জড়িয়ে ধরে বাকাঁ মুখেই চুমো দিয়ে ধরে রাখলো, বাবার দুই চোখ গড়িয়ে পানি পড়ছিলো। বুঝলাম মেয়েটা বাবার কতো আপন…মেয়েকে বুকে জড়িয়ে নিজের জীবন মূল্যহীন মনে হচ্ছিলো বাবার কাছে। দৃশ্যটি দেখে কেনো জানি বুকটা খাঁ খাঁ করে উঠলো। দাড়িয়ে চিন্তা করছিলাম আলী ভাইয়ের সমস্যা, পুকুর থেকে কি সাগর তৈরি হলো…!! দুইদিনে আলী ভাইয়ের অবস্থা কিছুটা উন্নত হয়েছে তবে একপাশ প্যারালাইজড। গতকাল গিয়েছিলাম দেখতে আস্তে আস্তে কানের সামনে এসে বললো…”ভাই চলন্ত মানুষটা অচল হয়ে গেলাম, আমার বাচ্চাদের দিকে খেয়াল রাইখেন”। মনে হচ্ছিলো নিজের জীবনের চেয়েও সন্তানের প্রতি মানুষের ভালোবাসাটা বেশি।।

নাজমুল হক
প্রভাষক ও কলামিস্ট
বনানী বিদ্যানিকেতন কলেজ

Previous articleজয়পুরহাটে জাতীয় বীমা দিবস পালিত
Next articleঅনলাইনের মাধ্যমে ব্যবসায়ীরা নিজের ভ্যাট নিজেই প্রদান করছে: রংপুরের ভ্যাট কমিশনার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।