রফিক সুলায়মান: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনের শোকদিবসের ভাষণটি সামান্য বিলম্বে আজ শুনলাম। বঙ্গবন্ধুর পর আওয়ামী লীগের কোন নেতার কাছ থেকে এই মাপের ভাষণ আমরা আর পাই নি – নির্মম হলেও এটা সত্য।

আমি ভাষণটি দুইবার শুনেছি। এটি চেতনা সঞ্চারী এবং ইতিহাস আশ্রিত। ইতিহাস, দর্শন এবং পলিটিক্স সম্পর্কে চরম ও পরম পাঠ ও অনুধ্যান না থাকলে এই মাপের বক্তব্য রাখা সম্ভব নয়। সাদ্দামের বক্তব্যটি এমন সময়ে এসেছে, যখন ছাত্রলীগ নিয়ে এক ধরনের হাহাকার চলছে সারাদেশে। এই ভাষণ ছাত্রলীগের ৭০ বছরের ইতিহাসের সেরা ভাষণ কিনা সেটি ছাত্রলীগের ইতিহাস নিয়ে যাঁরা চর্চা করেন, তাঁরা বলতে পারবেন। প্রগতিশীল রাজনীতির অক্লান্ত অনুসারী হিসেবে বলতে পারি ভাষণটি গত ৪৭ বছরের আওয়ামী রাজনীতির শ্রেষ্ঠতম ফসল। সাদ্দামের ভাষণটিও একদিন আওয়ামী লীগের সম্পদ হিসেবে গণ্য হবে বলে আমার বিশ্বাস।

ভাষণটিতে কিউবান বীর ফিদেল কাস্ত্রোর একটি উদ্ধৃতি ব্যবহৃত হয়েছে। প্রয়াত সাংবাদিক গাফফার চৌধুরী কাস্ত্রোর জবানীতে উদ্ধৃতিটি প্রথম ব্যবহার করেছিলেন, ‘আমি হিমালয় দেখি নি, আমি মুজিবকে দেখেছি।’ ২০১৯ সালে হল্যান্ডে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত Sheikh Mohammed Belal স্যার শোকদিবসের এক অনুষ্ঠানের উদ্বোধন শেষে কিউবান রাষ্ট্রদূত সোরায়া আলভারেজকে কিছু বলার জন্য আমন্ত্রণ জানালে তিনিও হিমালয় এবং মুজিবের ফ্রেইজটির উল্লেখ করেছিলেন। আওয়ামী ও মুজিববিরোধী যাঁরা বলতেন যে কাস্ত্রো এমন কথা কখনো বলেন নি; তাঁদের মুখে ছাই পড়েছে।

সাদ্দাম তাঁর বক্তৃতায় মার্থা ওয়াশিংটন এবং উইনি ম্যান্ডেলার প্রসঙ্গ এনেছেন বেগম মুজিব সম্পর্কে বলতে যেয়ে। বঙ্গবন্ধুকে বিনির্মাণ করতে আড়াল থেকে যে মহিয়সী নারী অনন্য ভূমিকা পালন করেছেন, তাঁকে এমনভাবে এর আগে কেউ মূল্যায়ন করেছেন বলে আমার জানা নেই। ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের আগে বেগম মুজিবের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর একান্ত আলাপচারিতা থেকেই তিনি পেয়েছিলেন ‘অসংকোচ প্রকাশের দুরন্ত সাহস।’ পাকিস্তানি গোয়েন্দা দল, দলীয় নেতৃত্ব, ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের বেগম মুজিব কতোটা আপন করে নিয়েছিলেন – সে কথাও আমাদের জানিয়েছে সাদ্দাম হোসেন।

সাদ্দাম ১৭৫৭ থেকে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পর্যন্ত বাংলার বীরদের আত্মত্যাগের ইতিহাস টেনে বলেছেন, ‘বঙ্গবন্ধু ছিলেন সকলের সংমিশ্রণে তৈরী এক মহানায়ক। তিতুমীর, সূর্যসেন, বিনয়-বাদল-দিনেশের উদাহরণও টেনেছেন।

সাধারণ শ্রোতা এবং নজরুল-অনুরাগী হিসেবেও ভাষণটির প্রতি আমার মোহাবিষ্টতার কারণ নিবিড় ও ঘন। সাদ্দাম এক জায়গায় বঙ্গবন্ধু ও বিদ্রোহী কবিতার জন্মের এক যোগসূত্র টেনেছেন। প্রায় কাছাকাছি সময়েই ঘটেছিলো দুটো ঘটনা – এক মহাপুরুষ ও এক মহাকাব্যের চেয়েও দ্যুতিময় কবিতার জন্ম। একজন টুঙ্গিপাড়ায়; আর কবিতাটির জন্ম তালতলা লেনের এক বাড়ীতে, কমরেড মুজাফফর আহমদের মেসে। এরকম একটি অভূতপূর্ব যোগসূত্র উত্থাপন করে সাদ্দাম হোসেন একটি জাতীয় দায়িত্ব পালন করেছেন বলে আমি মনে করি। কাস্ত্রো যেমন হিমালয়ের কথা বলেছেন, নজরুলও তেমনি হিমাদ্রীর কথা বলেছেন।

যাঁরা ছাত্র রাজনীতি করেন, যাঁরা ছাত্রলীগ করেন, যাঁরা মনে করেন বক্তৃতা মানেই চিল্লাফাল্লা নয়, বক্তৃতা মানেই অপজিশনকে গালাগালি করা নয় – তাঁদের জন্য সাদ্দাম হোসেন একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন। আর ছাত্রলীগের রাজনীতিতে যে ক্ষত সৃষ্টি হয়েছে, সেখানেও মলমপট্টির কাজ করেছে এই ভাষণ। ধন্যবাদ, সাদ্দাম হোসেন।

রফিক সুলায়মান (সাংবাদিক, লেখক ও কলামিস্ট)

Previous articleটানা ছুটিতে পর্যটকদের পদচারণায় মুখরিত কুয়াকাটা সৈকত
Next articleইভিএম -এ ইন্টারনেট সংযোগ না থাকার কারণে হ্যাকিং বা কারচুপির কোন সুযোগ নেই
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।