শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪
Homeসম্পাদকীয়'এক অপ্রকাশিত ভালোবাসা'

‘এক অপ্রকাশিত ভালোবাসা’

বাবা’দের পছন্দের বিষয়ে জানা খুবই মুশকিল। তাঁরা হাতেগোনা কয়েকটি মাত্র পোশাকে কাটিয়ে দেন বছরের পর বছর বিন্দুমাত্র অনুশোচনা ছাড়া। নিজের প্রিয় খাবার কি, নিজের পছন্দ কি, অপছন্দ কি তা হইতো একেবারেই ভুলে যান বাবা’রা। কিন্তু সন্তানের প্রিয় পোশাক, প্রিয় খাবার, প্রিয় জিনিস, সব প্রয়োজন সবটা থাকে নখদর্পনে। সন্তানের বেড়ে ওঠায় বাবার ভূমিকা অতুলনীয় হলেও তা পড়ে থাকে এক পাশে।তবে, বাবাদের নিয়েও সন্তানেরও গর্ব হই। কোষও একটা পড়েছিলাম, প্রতিটা স্বার্থক, স্বাবলম্বী মেয়ের একজন বাবা আছেন যে তাঁর মেয়েকে বিশ্বাস করেন, সমাজকে নই। কথাটি আমার জন্য পুরোপুরি সত্য। কিন্তু আশেপাশের বাকি আট- দশ জনের মতো আমি বাবার প্রতি আমার ভালোবাসা ঠিকঠাক প্রকাশ করতে পারিনি কোনদিনই, তবে কমতি নেই বিন্দুমাত্রও। ঘটা করে শ্রদ্ধা ভরে ভক্তি প্রকাশ করা হয়ে ওঠেনি কখনো ঠিকই কিন্তু, অপ্রকাশিত ভাবে ভক্তি – শ্রদ্ধার কোনো কমতি নেই। হইতো বাবাদের প্রতি অধিকাংশ সন্তানের ভালোবাসা ই বুঝি এইরকম অপ্রকাশিত হয়ে থাকে।

আমার বাবা আমার মহানায়ক, আমার জীবনযুদ্ধের সত্যিকারের নায়ক, আমার আদর্শ। বাবা এমন এক অনুভূতির নাম যা কখনো মুখে বলে বা খাতায় লিখে শেষ করা যাবেনা। সন্তানের অভাব, অভিযোগ বা অনুযোগ বাবাকেই বলা হয়ে থাকে। আরও বলা হই অনেক কথায়। তবুও কেন যেন আরও থেকে যায় বিশাল কথার পাহাড়। যা বলবো বলবো করে কখনোই বলা হয়ে ওঠেনা। কিছুটা অভিমানে, হইতো বা কিছুটা মধ্যবিত্তের সংকোচে কিংবা বাকিটা গোপনে – সেই কথা গুলো থেকে যায় কেবলই নিজের ভিতরেই। ইচ্ছে থাকলেও অনেক সময়ই বলা হয়ে ওঠেনা বাবার প্রতি ভালোবাসা, কৃতজ্ঞতা বা মুগ্ধতার কথা।

কিন্তু বিশ্বব্যাপী অনেক মানুষ আছেন যারা মাতা পিতার কদর না বুঝে বৃদ্ধ বয়সে তাঁদের বৃদ্ধাশ্রমে ঠেলে দিয়ে আসেন। ধিক্কার জানায় সেই সকল কুরুচিপূর্ণ মানবজাতিকে যারা পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ সম্পদকে চিনতে পারেনা। তাদের হইতো মনে করা উচিত যে বাবার ওরশ এবং শতকোটি শুক্রাণুর মধ্য থেকে একটি শুক্রাণুর ভ্রুণ আজ এই আমি। বাবা না থাকলে আজ আমরা যে পৃথিবীর মধ্যে দাপট দেখাচ্ছি তা কখনোই সম্ভব হতোনা। বাবার প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করতে টাকা লাগেনা৷ নিঃস্বার্থ ভাবে ভালোবেসে যাওয়া পৃথিবীর সেই শ্রেষ্ঠ বাবাদের যেকোনো পরিস্থিতিতেই ভালোবাসা উচিত। মায়ের প্রতি ভালোবাসার অন্তরালে বাবার প্রতি ভালোবাসা আজীবন প্রতিটি সন্তানের অন্তরে স্থায়ীভাবে বসবাস করুক। সন্তানেরাও যদি বাবাকে ভালোবাসে, সম্মান করে, শ্রদ্ধা করে তাহলে পৃথিবীর সমস্ত বাবারা’ই ভালো থাকবেন। আর প্রতিটা সন্তানও সুখী হবে।

আসলে পিতার প্রতি সন্তানের ভালোবাসা প্রকাশের জন্য বিশেষ কোনো দিনের প্রয়োজন হইনা,তবুও বিশেষভাবে স্মরণ করে রাখার জন্যই এই দিনটির আয়োজন করা। সবসময় বাবাকে আন্তরিক ভালোবাসা ও শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে রাখার জন্যই আমরা এই দিনটিকে পালন করবো।

রুমানা আক্তার রুনি, শিক্ষার্থী, রসায়ন বিভাগ,
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments