বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২১, ২০২৩
Homeসম্পাদকীয়ভোটযুদ্ধে সোশ্যাল মিডিয়া

ভোটযুদ্ধে সোশ্যাল মিডিয়া

বর্তমান সময়ে সোশ্যাল মিডিয়া বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম আমাদের জীবনের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে উঠেছে। দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে এর ব্যবহারকারীদের সংখ্যা। বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া বা সাইটগুলোর মধ্যে ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, হোয়াটসঅ্যাপ, টিকটক, ইউটিউব এবং টুইটাররে মত সাইট বা অ্যাপগুলোর ব্যবহারকারী সবচেয়ে বেশি। ডেটা রিপোর্টাল এর দেওয়া তথ্য মতে ২০২৩ সালের জুলাই পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী প্রায় ৪.৮৮ বিলিয়ন সক্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারী রয়েছেন যা বিশ্ব জনসংখ্যার ৬০.৬ শতাংশ। বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীর সংখ্যাও বাড়ছে উল্লেখযোগ্য ভাবে।

বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশনের (বিটিআরসি) সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, দেশে এখন ১২.৬১ কোটির বেশি ইন্টারনেট ব্যবহারকারী রয়েছেন। এদের বেশিরভাগই ব্যবহার করছেন কোন না কোন সোশ্যাল মিডিয়া। ডেটা রিপোর্টাল অনুসারে, ২০২৩ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত বাংলাদেশে প্রায় ৪৪.৭ মিলিয়ন ফেসবুক ব্যবহারকারী ছিল, যা দেশটির মোট জনসংখ্যার ২৬ শতাংশের সমান। জুন, ২০২৩ এ প্রকাশিত ওয়েবসাইটের ট্রাফিক বিশ্লেষণ সংক্রান্ত ওয়েবসাইট স্ট্যাটকাউন্টারের তথ্য মতে বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম হল ফেসবুক, যা মার্কেট শেয়ারের ৭৮.৮৪%। বাংলাদেশের অন্যান্য জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের মধ্যে রয়েছে ইউটিউব (১৫.৪৫%), ইনস্টাগ্রাম (২.০৩%), এবং ইমো (১.৩৩%)।

বর্তমান তথ্য প্রযুক্তির যুগে বিশ্বব্যাপী সোশ্যাল মিডিয়ার ব্যবহার অনেকের কাছেই বিশেষ করে যুবসমাজের কাছে দৈনিক রুটিনওয়ার্কে পরিণত হয়েছে। বাংলাদেশও এর ব্যতিক্রম নয়। ব্যক্তি এবং সমাজ জীবনের বিভিন্ন দিকগুলিতে সোশ্যাল মিডিয়ার প্রভাবকে কোন ভাবেই অগ্রহ্য করা যাবে না। এই সোশ্যাল মিডিয়া বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বাংলাদেশে আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের অন্যতম প্রভাবক হিসেবে কাজ করবে তা বলাই বাহুল্য। সাম্প্রতিক বছরগুলিতে সোশ্যাল মিডিয়ার উত্থান রাজনৈতিক দৃষ্টিকোণকে পরিবর্তন করেছে, বিশ্বব্যাপী জাতীয় নির্বাচনের আচরণ এবং ফলাফলকে উল্লেখযোগ্যভাবে করেছে প্রভাবিত।

রাজনৈতিক দল এবং রাজনীতিবিদরা ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম এবং ইউটিউবের মতো সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের ব্যাপক ব্যবহারের মাধ্যমে নিজেদের প্রচার, বিশেষভাবে তাদের সাথে নতুন ভোটারদের সংযুক্ত, প্রভাবিত এবং সংগঠিত করছেন। উদাহরণস্বরূপ, সোশ্যাল মিডিয়া ২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল। সেসময় ডোনাল্ড ট্রাম্প ভোটারদের সাথে সংযোগ স্থাপন এবং তার বার্তা ছড়িয়ে দিতে সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করেছিলেন। তিনি তার বিরোধীদের আক্রমণ করতে এবং ভোটারদের মধ্যে বিভেদের বীজ বপন করতে ব্যবহার করেছিলেন সোশ্যাল মিডিয়া। ট্রাম্প প্রচারণার ফেসবুক ব্যবহারের সবচেয়ে বিতর্কিত দিকগুলির মধ্যে একটি ছিল তাদের কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা থেকে ডেটা ব্যবহার করা।

কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা ছিল একটি ডেটা অ্যানালিটিক্স ফার্ম যারা লাখ লাখ ফেসবুক ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য তাদের সম্মতি ছাড়াই সংগ্রহ করে। ফার্মটি তখন ভোটারদের সাইকোগ্রাফিক প্রোফাইল তৈরি করতে এই ডেটা ব্যবহার করে। এই প্রোফাইলগুলি তখন ব্যক্তিগতকৃত বিজ্ঞাপন দিয়ে ভোটারদের আকৃষ্ট করার জন্য ব্যবহার করা হয়েছিল। ২০১৬ সালের মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের ফলাফলে ফেসবুক যে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখেছে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। ট্রাম্পের প্রচারণার ফেসবুক ব্যবহার তাদের সিদ্ধান্তহীন ভোটারদের জয় করতে সাহায্য করেছে। উপরন্তু, ফেসবুকে হিলারি ক্লিনটনের প্রচারণার অভাব তাদের জয়ের সম্ভাবনাকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। ২০১৭ অনুষ্ঠিত ইউকে সাধারণ নির্বাচনে সোশ্যাল মিডিয়া একটি ফ্যাক্টর ছিল। কনজারভেটিভ এবং লেবার উভয় দলই সোশ্যাল মিডিয়াকে দারুণভাবে ব্যবহার করে তারা তাদের সমর্থকদের একত্রিত করতে এবং নির্বাচনের দিনে ভোটার সংখ্যা বাড়াতে সক্ষম হয়। কনজারভেটিভরা ভোটারদের আকৃষ্ট করার জন্য তাদের নির্বাচনী প্রচারণা এবং বয়সভিত্তিক বার্তা প্রচার করতে ফেসবুক বিজ্ঞাপনে ২ মিলিয়ন পাউন্ডের বেশি খরচ করেছিল। তারা ভোটদানের গুরুত্ব সম্পর্কে তরুণ ভোটারদের এবং ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিসের জন্য কনজারভেটিভ পার্টির পরিকল্পনা সম্পর্কে বয়স্ক ভোটারদের কাছে বার্তা পাঠিয়েছিল। যা তাদের নির্বাচনের জয়কে করেছে ত্বরানিত। এছাড়া সে সময় ভুল তথ্য এবং বিভ্রান্তি ছড়াতেও সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করা হয়েছিল।

নির্বাচনী প্রচারণার সময় ফেসবুকে বেশ কিছু ভুয়া খবর শেয়ার করা হয়। যার বেশীরভাগই লেবার পার্টির সুনাম নষ্ট করার জন্য তৈরি করা হয়েছিল। প্রায় একইভাবে ২০১৮ সালে ব্রাজিলের রাষ্ট্রপতি নির্বাচনেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল সোশ্যাল মিডিয়া। আর কয়েক মাস পরেই বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। বিভিন্ন রাজনৈতিক দল এবং তাদের নেতা নেত্রীরা ইতিমধ্যেই তাঁদের রাজনৈতিক প্রচার প্রচরণা এবং রাজনৈতিক কর্মকান্ড শুরু করে দিয়েছেন। পোস্টার লাগানো, লিফলেট বিতরণ, সভা সমাবেশ, মিছিল, পদযাত্রার মত বিভিন্ন রাজনৈতিক কর্মকান্ডের পাশাপাশি ভোটারদের সম্পৃক্ত করা এবং তাদের রাজনৈতিক আন্দোলন সংগ্রামে যুক্ত করার জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়াকেও। রাজনীতিবিদরা তাদের আদর্শ, রাজনৈতিক বক্তৃতা, পরিকল্পনা, কর্মসূচির বার্তাগুলি সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে খুব সহজেই একটি বড় সংখ্যক শ্রোতাদের কাছে পৌঁছে দিতে পারছেন। ভোটারদের কাছে পৌঁছাতে টেলিভিশন, রেডিও এবং সংবাদপত্রের মতো ঐতিহ্যবাহী মিডিয়ার সীমাবদ্ধতা সোশ্যাল মিডিয়া ভেঙ্গে দিয়েছে, রাজনীতিবিদদের সুযোগ করে দিয়েছে ভোটারদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করার। অপেক্ষাকৃত তরুণ ভোটারদের সম্পৃক্তকরণ এবং তাদের রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় যুক্ত করার জন্য সোশ্যাল মিডিয়া একটি দুর্দান্ত মাধ্যম। রাজনীতিবিদরা তাদের আদর্শ, কর্ম পরিকল্পনা জানাতে এবং ভোটারদের কাছ থেকে প্রতিক্রিয়া পেতে সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করতে পারেন। এটি ভোটারদের সাথে সম্পর্ক গড়ে তুলতে, তাদের একত্রিত ও প্রভাবিত করতে এবং তাদের ভোটে নিয়ে আসার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে।

ভোটযুদ্ধে সোশ্যাল মিডিয়া অস্ত্র যে শুধু ভাল কাজে ব্যবহার হয় তা কিন্ত নয়। আমাদের দেশে গুজব ছাড়াতে সোশ্যাল মিডিয়াকে অন্যতম হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা হয়। সোশ্যাল মিডিয়ায় তথ্য আদান- প্রদানের গতি এবং সহজলভ্যতাকে কাজে লাগিয়ে মিথ্যা কিংবা বিভ্রান্তিকর তথ্য দ্রুত বিস্তার ঘটতে পারে যা জনমতকে করতে পারে প্রভাবিত, ব্যাঘাত ঘটাতে পারে নির্বাচনী প্রক্রিয়ায়, নষ্ট করতে পারে নির্বাচনী পরিবেশ এবং দেশের ভাবমূর্তি। এছাড়া নির্বাচনের সময় ম্যানিপুলেশন, বিদেশী হস্তক্ষেপ, সাইবার বুলিং, জাল অ্যাকাউন্ট, ব্যক্তিগত গোপনীয়তা নষ্ট, বিদ্বেষপূর্ণ আচরন, রাজনৈতিক ঘৃণা ছড়ানোর মত অপরাধ কান্ডে ব্যবহৃত হতে পারে সোশ্যাল মিডিয়া। তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে যত বেশি মানুষ সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করবে, রাজনীতিবিদরা ভোটারদের কাছে পৌঁছাতে এবং তাদের বার্তা পৌঁছানোর জন্য এটির উপর ততবেশি নির্ভরশীল হবেন। সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীদেরও এর সঠিক ব্যবহার এবং কিছু বিষয়ে সতর্ক থাকা উচিত। মিথ্যা তথ্য সম্পর্কে হতে হবে সচেতন। যেকোন সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে সোশ্যাল মিডিয়াতে পাওয়া তথ্যগুলোর একাধিক সূত্র খোঁজা এবং তা সর্বদা যাচাই করা উচিত।

মৃদুল কান্তি ধর
সাবেক শিক্ষার্থী, ইএমবিএ (মার্কেটিং ডিপার্টমেন্ট)
ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments