রবিবার, জুন ১৬, ২০২৪
Homeসম্পাদকীয়মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শুভ জন্মদিন

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শুভ জন্মদিন

বাঙালি জাতির ক্রান্তিলগ্নে বরাবরই পাশে ছিলো আওয়ামী লীগ এবং এখনও রয়েছে। সেই ৭৪ বছর আগে বাঙালি জাতির শৃংখল মুক্তির লক্ষ্যে ’৪৭ এর দেশ ভাগের অব্যবহিত পরেই গঠন করা হয় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ তথা ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগ। বাঙালির ক্রান্তিলগ্নে যেমন আওয়ামী লীগ মুক্তি বার্তা নিয়ে আবির্ভূত হয়ে এখনও তার পথচলা অব্যাহত রেখেছে। বাঙালির মহান নেতা, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

 

বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ১৯৭১ এর ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাধীনতা অর্জনের মধ্য দিয়ে একটা কঠিন লক্ষ্যকে পূর্ণতার কেন্দ্রে উপনীত হয়। এরপর বঙ্গবন্ধুর শাসনামলে যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশ গঠনের এক পর্যায়ে ১৯৭৫ এর ১৫ আগষ্ট বঙ্গবন্ধুসহ তাঁর পরিবারের অনেককে ষড়যন্ত্রকারীরা নির্মমভাবে হত্যা করে। দেশের বাইরে থাকায় বঙ্গবন্ধু’র দুইকন্যা শেখ হাসিনা এবং শেখ রেহানার বেঁচে থাকা, অতঃপর ৬ বছর নির্বাসন থেকে ১৯৮১ সালের ১৭ই মে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যবর্তন, দেশে ফিরে আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

 

১৯৯৬ এর জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে সরকার গঠন বঙ্গবন্ধু কন্যা, দেশরত্ন শেখ হাসিনার রাজনৈতিক জীবনের এক উজ্জ্বল ইশতেহার রচনা করেন। যে ইশতেহারের প্রতিটি পংক্তিতে প্রথমবারের মতো প্রধনমন্ত্রীর দায়িত্ব লাভ ছিলো এক উজ্জ্বলতম রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট। ইতিহাসের পথ বেয়ে ২১ বছর পর আওয়ামী লীগের ক্ষমতায় প্রত্যাবর্তন ছিলো বিশ্বের চোখে এক অকল্পনীয় বিষয়। সেই সময়ে দেশী-বিদেশী গণমাধ্যমের ভূমিকা ছিলো অত্যন্ত দায়িত্বশীল এবং আওয়ামী লীগের পরম স্বজনের মতো। ১৯৯৬ থেকে ২০০১ পর্যন্ত রাষ্ট্রক্ষমতার দায়িত্ব পালন করেন। ২০০৭ এ ক্ষমতা দখল করে সেনা সমর্থিত তত্ত্ববধায়ক সরকার। এই সরকার ক্ষমতা দখল করে প্রথমেই সাবেক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সহ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের টার্গেট করে কার্যক্রম হাতে নেয়া। যার প্রেক্ষিতে জননেত্রী শেখ হাসিনা গ্রেফতারের মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগ বিরোধী অবস্থানটি পরিস্কার করে। এরপর তীব্র আন্দোলন সংগ্রামের মধ্য দিয়ে শেখ হাসিনা কারামুক্ত হন। এরপর আসে জাতীয় সংসদ নির্বাচন। যে নির্বাচনে শেখ হাসিনা রাষ্ট্রক্ষমতার দায়িত্ব পান পুনরায় নির্বাচনে বিজয়ের মাধ্যমে।

 

সেই ২০০৯ থেকে ২০২৩। এই এক যুগের অধিক সময়ে দেশ এগিয়েছে অনেক-অনেক দূর। উন্নয়নে, বিদ্যুত উৎপাদন, খাদ্য উৎপাদন, পদ্মাসেতু নির্মাণ, রূপপুর পারমানবিক কেন্দ্র, পায়রা সমুদ্র বন্দর, ২০টির মতো ফ্লাইওভার নির্মাণ, মেট্টোরেল প্রকল্প, এলিভেটেড এক্সপ্রেস এবং স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদায় উত্তীর্ণ হওয়া সহ এতো সাফল্য জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারকে আন্তজার্তিক পর্যায়ে মর্যাদার আসনে আজ আসীন করেছে। যা এক অভাবনীয় বিষয় এবং বিস্ময়। এই যে সাফল্য, এই সাফল্যের পিছনে তাঁর সুচিন্তিত সিদ্ধান্ত গ্রহণ এবং বাস্তবায়নের বিষয়টি ছিলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তগুলি ছিলো বরেণ্য রাজনীতিক, দক্ষ প্রধানমন্ত্রী, জননেত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ অবদান। এই অবদানে গত ২৫ জুন ২০২২ স্বপ্নের পদ্মাসেতুর উদ্বোধন আরো একটি মাইলফলক হিসেবে বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশকে নিয়ে গেছে অনেক উঁচুতে। এটাই আজ ইতিহাসের পরম নিদর্শন। এই নিদর্শনের প্রতিটি ক্ষেত্রে অসামান্য অবদান রেখেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২৮ সেপ্টেম্বর আমাদের প্রাণপ্রিয় নেত্রী সফলরাষ্ট্র নায়ক, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ৭৭তম শুভজন্মদিন। তাঁর এই শুভ জন্মদিনে তাঁকে জানাই বাংলার জনগণের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা। তাঁর এই শুভ জন্মদিনে সমগ্র বাংলা হৃদয় দিয়ে চায় ‘ওয়ান্স এ্যাগেইন শেখ হাসিনা’।

লেখক : আইনজীবী ও সাধারণ সম্পাদক, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগ

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerkagoj.com.bd/
Ajker Bangladesh Online Newspaper, We serve complete truth to our readers, Our hands are not obstructed, we can say & open our eyes. County news, Breaking news, National news, bangladeshi news, International news & reporting. 24 hours update.
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments