তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে স্কুল এন্ড কলেজ ও কেজি স্কুল নামে গড়ে উঠা বোর্ডের অনুমোদনহীন শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিচ্ছে অন্য স্কুল থেকে। এসব প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ডে লেখা রয়েছে প্লে থেকে পঞ্চম বা নবম শ্রেণি পর্যন্ত। অথচ কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ড কর্তৃপক্ষ বলছেন এই ধরনের প্রতিষ্ঠানের কোনো অনুমোদন নেই। গত ১৮ নভেম্বর দক্ষিন চরবংশী ইউনিয়নে নাম সর্বস্ব চারটি প্রতিষ্ঠান ধরা পড়ে। শহরের দেনায়েতপুর গ্রামের ২০১৩ সালে প্রতিষ্ঠিত টিউলিপ স্কুল এন্ড কলেজটি ২০১৭ সালে ও নতুন বাজার সাউথ এশিয়ান স্কুল এন্ড কলেজটি ২০১৪ সালে আর্থিক সংকট দেখিয়ে দেউলিয়া হয়ে বন্ধ হয়ে যায়। ডিসেম্বর মাসে স্কুল প্রতিষ্ঠা করে জানুয়ারী মাসে নতুন বইয়ের জন্য স্থানীয় নেতাদের দিয়ে শিক্ষা কর্মকর্তাদের দিয়ে চাপ প্রয়োগ করার অভিযোগ উঠেছে। এসব প্রতিষ্ঠানে ব্যাপারে সরকারি কোনো সুনির্দিষ্ট দিক নির্দেশনা না থাকায় নেতিবাচক ব্যবস্থা নিতে পারছে না শিক্ষা প্রশাসন কিংবা বোর্ড কর্তৃপক্ষ। বরং অনুমোদনবিহীন এসব স্কুলে সরকারি বই সরবরাহ অব্যাহত রেখেছে উপজেলা মাধ্যমিক ও প্রাথমিক শিক্ষা অফিস। নবম শ্রেণি পর্যন্ত স্কুল ছাড়াও শহরে ও গ্রামে কেজি স্কুল রয়েছে শতাধিক। এছাড়া ভর্তি হলে সমাপনী ও জেএসসিতে জিপিএ-৫ পাওয়ার শতভাগ গ্যারান্টিসহ নানা অফার রাখা হয়েছে শিক্ষার্থীদের সামনে। যথাযথ কর্তৃপক্ষের মনিটরিংয়ের অভাবে এই ধরনের প্রতিষ্ঠান দিন দিন বেড়ে চলছে। এদিকে অবৈধ প্রতিষ্ঠানগুলো টাকার বিনিময়ে নিবন্ধনের চেষ্টা চালাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। উল্লেখ্য রায়পুর উপজেলায় বেসরকারী কেজি স্কুল ৬৫টি ও তার মধ্যে ২০টিতে মাধ্যমিক শাখা চালু রয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শহরের সরকারি কলেজে আসন সংকট এবং মানস¤পন্ন স্কুল ও কলেজে শিক্ষার্থী ধারণের ক্ষমতা কম থাকাকে পুঁজি করে বাসাবাড়িতে ও জমি ভাড়া নিয়ে কেজি স্কুল এবং স্কুল এন্ড কলেজ নামে এই ব্যবসা চলছে। এদের মধ্যে কিছু স্কুল ও কলেজ আবার জন্ম নিয়েছে কোচিং সেন্টারের পথ ধরে। কোচিং সেন্টারে ক্লাস নেওয়া শিক্ষকরাই আবার শিক্ষকতা করছেন এসব স্কুল ও কলেজে। শহরের বিভিন্ন স্থানে বড় বড় সাইনবোর্ড ও ব্যানার নিয়ে গড়ে ওঠা এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক রয়েছেন একই পরিবারের কয়েকজন। পাঠদানের অনুমতি না থাকায় এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি করানো হয় অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীদেরও। এক্ষেত্রে সমাপনী পরীক্ষা দিতে এই স্কুলগুলোর শিক্ষার্থীদের নিয়ে দ্বারস্থ হতে হয় অনুমতি থাকা এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের। অনুমতি আছে এমন স্কুলের শিক্ষার্থী হিসেবে চালিয়ে দেওয়া হয় অনুমতি না থাকা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের। প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে একাডেমিক পাঠদানের অনুমতি আছে প্রিন্সিপাল কাজী ফারুকী স্কুল এন্ড কলেজ, আইডিয়াল স্কুল এন্ড কলেজ, হায়দরগঞ্জ মডেল স্কুল, কেরোয়া এমএমএ কাদের একাডেমী। মধুপুর প্যারাডাইম স্কুল এন্ড কলেজ, হায়দারগঞ্জ বাজারে জোনাকী স্কুল এন্ড কলেজ, শায়েস্তানগর গ্রামে বেগম রোকেয়া, চরবংশী মডেল স্কুল, সিকদারকান্দি স্কুল এন্ড কলেজ, চরবংশী ন্যাশনাল আইডিয়াল, বংশী বাজার মডেল স্কুল, ইসলামগঞ্জ আইডিয়াল স্কুল, চরকাছিয়া আইডিয়াল স্কুল, এশিয়ান মডেল, গোল্ডেন লাইফ, কেএস কিন্ডার গার্ডেন, মেরিন সান, মাহাবুবা স্কুল এন্ড কলেজ, স্ট্যান্ডাট স্কুল এন্ড কলেজসহ শতাধিক অনুমোদনবিহীন প্রতিষ্ঠান।

মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কামাল হোসেন ও প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা টিপু সুলতান বলেন, কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে রায়পুরে অনুমোদনবিহীন রয়েছে প্রায় শতাধিক স্কুল এন্ড কলেজ। এসব প্রতিষ্ঠানে ভর্তির ব্যাপারে প্রতি বছর ডিসেম্বরে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সতর্ক করে দেওয়া হচ্ছে। টিউলিপ স্কুল এন্ড কলেজ ও সাউথ এশিয়ান স্কুল এন্ড কলেজটি দেউলিয়ার সংবাদ শুনেছি। এছাড়াও চরবংশী ইউনিয়নের চারটি সাইনবোর্ড সবর্স্ব প্রতিষ্ঠানের নামে শিক্ষার্থীদেরকে সমাপনী পরীক্ষায় অংশগ্রহন করানো হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এসব ঘটনায় তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শিল্পী রানী রায় বলেন, শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক অনুমোদনবিহীন কোনো স্কুল অথবা কলেজে শিক্ষার্থী ভর্তি করা যাবে না। প্রতিষ্ঠানগুলোর ব্যাপারে খোঁজ নেওয়া হচ্ছে। উপজেলা টাস্কফোর্স কমিটি নিবন্ধনের জন্য আবেদন করা প্রতিষ্ঠানের তালিকা যাচাই-বাছাই শেষে জেলা শিক্ষা অফিসসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পাঠানো হবে।