আবারও ধাওয়া খেয়ে ক্যাম্পাস ছাড়লেন ইবি ছাত্রলীগ সেক্রেটারি

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিবকে ফের ধাওয়া দিয়েছে বিদ্রোহী গ্রুপের কর্মীরা। সোমবার বিকেল ৪টার দিকে প্রকাশ্যে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে তাকে ধাওয়া দিয়ে ক্যাম্পাস ছাড়া করা হয়।

এর আগে গত শুক্রবার বিকেলে রাকিব ক্যাম্পাসে আসলে একই গ্রুপের কর্মীরা তাকে ধাওয়া দিয়ে ক্যাম্পাস থেকে বের করে দেয়া হয়। গত ১৪ সেপ্টেম্বর ছাত্রলীগ থেকে শোভন-রাব্বানীর পদত্যাগের পরেই রাকিবকে ক্যাম্পাসে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে এই গ্রুপটি।

জানা গেছে, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিব মাস্টার্স (স্নাতকোত্তর) দ্বিতীয় সেমিস্টারের পরীক্ষা দিতে ক্যম্পাসে আসে। পরীক্ষা শেষে দলীয় টেন্ডে যান তিনি। এ সময় সেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি সেলের কর্মচারী ইলিয়াস জোয়ার্দ্দার, ডেইলি বেসিস কর্মচারী রাসেল জোয়ার্দ্দারসহ ৫-৭ জন কর্মচারী, বহিরাগত এবং বেশ কয়েকজন দলীয় কর্মী উপস্থিত ছিলেন। রাকিবের টেন্ডে বসার বিষয়টি জানতে পেরে সবকটি ছাত্র হল থেকে দেশীয় অস্ত্রসহ জড়ো হয় ছাত্রলীগের বিদ্রোহী গ্রুপের কর্মীরা। পরে তারা রাকিবের অবস্থান জানতে পেরে প্রধান ফটকে মিছিল নিয়ে যায়। খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে ক্যম্পাস ছেড়ে চলে যান রাকিব। এ সময় লাঠি হাতে ছাত্রলীগের বিদ্রোহী গ্রুপের মহড়ায় সাধারণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে ব্যাপক আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

পরে বিদ্রোহী গ্রুপের কর্মীরা উপাচার্যের সঙ্গে দেখা করে। এ সময় তারা ক্যাম্পাসকে বহিরাগত মুক্তকরণ, ছাত্রলীগে শিক্ষক-কর্মকর্তা বা কর্মচারীদের হস্তক্ষেপ বন্ধের দাবি জানায়।

এ সময় উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-উর-রশিদ আসকারী বলেন, ‘আমরাও বহিরাগতমুক্ত ক্যাম্পাস চাই। এ বিষয়ে তোমরা প্রক্টরকে সাহায্য কর। এছাড়া ছাত্রলীগের বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়োগপ্রাপ্ত কোনো কর্মচারী জড়িত থাকলে বিষয়টি আমি দেখব।’

এবিষয়ে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব বলেন, ‘পরীক্ষা দিতে ক্যাম্পাসে গিয়েছিলাম। পরীক্ষা দিয়ে টেন্ডে কিছুক্ষণ অবস্থান করেই কুষ্টিয়া চলে এসেছি। পরে কী হয়েছে আমার জানা নেই।’