শেখ হাসিনা সম্মাননা পদক পেলেন ইবি উপাচার্য

মুখলেসুর রাহমান সুইট: কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. হারুন উর রশিদ আসকারী এক বিরল সম্মানে ভুষিত হয়েছেন। মি. আসকারী জননেত্রী শেখ হাসিনা সম্মাননা পদক-২০১৯’ পেয়েছেন ।
শনিবার ঢাকা প্রেসক্লাবের ভিআইপি সেমিনার কক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৩তম জন্মদিন উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু পেশাজীবী পরিষদের আয়োজনে ‘জনকল্যানে শেখ হাসিনা’ শীর্ষক আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় শিক্ষাক্ষেত্রে অবদান রাখায় তাকে এ সম্মাননা পদক প্রদান করা হয়।
বঙ্গবন্ধু পেশাজীবী পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও বাংলাদেশ কৃষকলীগের জাতীয় কমিটির সদস্য মোঃ জহির উদ্দিন মবু’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ঝিনাইদহ সংরক্ষিত মহিলা আসনের খালেদা খানম এমপি, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ, উপজেলা চেয়ারম্যান এসোসিয়েশনের সভাপতি হারুন অর রশীদ হাওলাদার, বাংলাদেশ কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট খোন্দকার শামসুল হক রেজা, বাংলাদেশ ফুটবল দলের সাবেক অধিনায়ক কায়সার হামিদ ও দৈনিক বঙ্গজননী পত্রিকার প্রধান সম্পাদক আলী নিয়ামত। বঙ্গবন্ধু পেশাজীবী পরিষদের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট আল মাহমুদ পলাশ অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন।
উল্লেখ্য, সাহিত্য, শিল্পকলা, সংগীত, সাংবাদিকতা, খেলাধুলা, শিক্ষা, গবেষণা ও সাংগঠনিক কাজে বিশেষ অবদানের জন্য ‘জননেত্রী শেখ হাসিনা সম্মাননা পদক-২০১৯’ পদক প্রদান করা হয়ে থাকে।
মি. আসকারি ১৯৬৫ সালের ১ জুন রংপুর জেলার মিঠাপুকুর থানার আসকারপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি দুই যুগের অধিককাল ধরে সৃজনশীল, মননশীল এবং গবেষণাধর্মী লেখালেখির সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন। ইতোমধ্যে ১টি সম্পাদনা গ্রন্থসহ মোট ৮টি গ্রন্থ এবং শতাধিক প্রবন্ধ-নিবন্ধ-কলাম রচনা করেছেন।
তাঁর উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ উত্তরাধুনিক সাহিত্য ও সমালোচনা তত্ত্ব (ঢাকা ২০০২) বিভিন্ন বিশ্বিবিদ্যালয়ের সাহিত্য বিভাগে পঠিত হয়। পেশাগত দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি মি. আসকারী মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন এবং একটি আধুনিক, প্রগতিশীল, অসাম্প্রাদায়িক, বিজ্ঞানমনস্ক সমাজ বিনির্মাণে বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে কাজ করে চলেছেন। তিনি সৃষ্টিশীল লেখালেখি এবং শিক্ষাক্ষেত্রে অবদানের জন্য ঐতিহ্য স্বর্ণপদক ২০১৯ পেয়েছেন।
মি. আসকারী লেখক, কলামিস্ট, কথাসাহিত্যিক, সমালোচক, রাজনীতি বিশ্লেষক, শিক্ষাবিদ এবং বর্তমানে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।