বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বাসায় অবস্থান করেও মধ্যরাতে বখাটেদের দ্বারা হেনস্তার শিকার হয়েছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের চার ছাত্রী। বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) রাত ১২টায় ক্যাম্পাসের পার্শ্ববর্তী শেখপাড়া বাজারের একটি বাসায় এ ঘটনা ঘটে। ওই চার ছাত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী।

ভুক্তভোগী ছাত্রীরা জানান, ক্যাম্পাসের পার্শ্ববর্তী শেখপাড়া বাজার সংলগ্ন এলাকার একটি বাসায় তারা চারজন থাকেন। বুধবার রাত ১২ টার দিকে তিন-চারজন যুবক বাসার জানালায় আঘাত করতে থাকে। একই সাথে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করে। ওই সময় প্রচণ্ড ভয়ে তারা চিৎকার করতে থাকেন। এতে বাড়ির মালিকসহ আশপাশে অবস্থানরত লোকজন চলে আসে। মানুষের উপস্থিতি টের পেয়ে বখাটেরা পালিয়ে যায়।

তারা বলেন, ঘটনার পরই আমরা বিভাগের শিক্ষক ও শেখ হাসিনা হল প্রভোস্ট ড. সেলিনা নাসরিনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করি। সেই মুহূর্তে তিনি ফোন রিসিভ করেনি। এছাড়াও শৈলকুপা থানা পুলিশ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরে ড. জাহাঙ্গীর হোসেনের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করি। কিন্তু আমরা প্রাথমিকভাবে কারো কোন সাড়া পাইনি। এরমধ্যে রাত দু’টার দিকে আবারো বখাটেরা জানালার কাছে এসে আমাদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে। আমরা আবারও প্রক্টর স্যারকে ফোন করি। তিনি ফোন রিসিভ করলে বিষয়টি তাকে জানাই। এসময় বখাটেরা পালিয়ে যায়।

ঘটনার চার ঘণ্টা পর ভোর চারটার দিকে পুলিশ আসে। পুলিশ ঘটনা শুনে আবার চলে যায়। এরপর সকালে সহকারী প্রক্টর আমাদের সাথে কথা বলে।

ছাত্রীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, রাত ১২টার ঘটনা প্রক্টর স্যারকে অবহিত করার পর রাত চারটায় ঘটনাস্থলে পুলিশ আসে। এ সময়ের মধ্যে বড় দুর্ঘটনায় ঘটতে পারতো। বিপদের সময় আমাদের পাশে কাউকে পাই নি। এমন নিরাপত্তাহীনতায় আমরা থাকতে চাই না বলেও জানান তারা। এসময়, জড়িতদের বিচারের আওতায় আনার জোর দাবি জানান।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর অধ্যাপক ড. শফিকুল ইসলাম বলেন, সকালের দিকে আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে ভুক্তভোগী ছাত্রীদের সাথে কথা বলেছি। ঘটনায় জড়িতদের শাস্তি নিশ্চিতে প্রক্টর স্যার পুলিশ প্রশাসনের সাথে কথা চালিয়ে যাচ্ছেন।

এদিকে, জড়িতদের শাস্তি নিশ্চিতের প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে বলে জানান বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গীর হোসেন।

এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক বলেন, পরীক্ষা চলাকালীন ছাত্রীদের নিরাপত্তার বিষয়টি নিয়ে প্রশাসনকে আমরা বারবার অভিহিত করেছি। দিন শেষে বহিরাগতদের দ্বারা ছাত্রীরা হেনস্তার শিকার হলো। এ ঘটনায় সুষ্ঠু বিচার হওয়া জরুরি।

শৈলকুপা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আমাকে রাত সাড়ে তিনটার দিকে বিষয়টি জানিয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছিলো। এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Previous articleফরিদপুরে দুই ভাইয়ের ১০ কোটি টাকাসহ সম্পত্তি জব্দের নির্দেশ
Next articleপরকীয়ার জেরে স্বামীকে স্ত্রীর উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।