জয়নাল আবেদীন: বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহর বিরুদ্ধে রবিবার দুপুর থেকে ২৯টি অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগের তদন্ত শুরু করেছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন। তদন্ত কমিটির নেতৃত্ব আছেন ইউজিসির সদস্য বিশ্বজিৎ চন্দ। অপর দুই সদস্য হচ্ছেন, ইউজিসির আবু তাহের ও প্রশাসন বিভাগের সদস্য জামাল উদ্দিন। তদন্ত কমিটির সদস্যরা ঢাকা থেকে দুপুরে ক্যাম্পাসে এসেই তদন্ত শুরু করেন। প্রথমে তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট রুমে অভিযোগকারী সাত শিক্ষক ও কর্মচারী এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলেন। তবে, বরাবরের মতই উপাচার্য ড. নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ ক্যাম্পাসে ছিলেন না। তদন্ত কমিটির প্রধান বিশ্বজিৎ চন্দ ক্যাম্পাসে উপস্থিত সাংবাদিকদের জানান, আমরা সাত শিক্ষক ও কয়েকজন কর্মকর্তা ও কর্মচারীর লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তে এসেছি। আমরা উপাচার্যের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগগুলো দালিলিক প্রমানাদিসহ সাক্ষী এবং অভিযোগকারীদের সঙ্গে কথা বলবো। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান জানান, ২০১৯ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর শিক্ষামন্ত্রীর কাছে পাঠানো উপাচার্যের বিরুদ্ধে আমরা মহামান্য রাষ্ট্রপতির নির্দেশনা অমান্য করে ক্যাম্পাসে ধারাবাহিক অনুপস্থিতি, ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির ঘটনা ধামাচাপা দেয়া, ইউজিসির নির্দেশনা অমান্য করে জনবল নিয়োগ, শিক্ষক ও জনবল নিয়োগে দুর্নীতি ও অনিয়ম, নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি ভিসি হয়েও অনুপস্থিতি থাকা, নিরাপত্তাহীন ক্যাম্পাস, ইচ্ছেমত পদোন্নতি, আইন লঙ্ঘন করে একাডেমিক প্রশাসনিক পদ দখল ও ক্রয় প্রক্রিয়ায় নীতিমালা লঙ্ঘন করেন এসব অভিযোগ করেছি। তিনি বলেন, ইউজিসির তদন্ত কমিটির কাছে আমরা অভিযোগ প্রমানের কাগজপত্র নিয়ে কথা বলেছি। অভিযোগকারী সাত শিক্ষক হলেন, পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক গাজী মাজহারুল আনোয়ার, রসায়ন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক এইচ এম তারিকুল ইসলাম, ফাইনান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক খায়রুল কবির, গণিত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মশিউর রহমান, গণিত বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক কমলেশ চন্দ্র রায়, লোকপ্রশাসন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সাব্বীর আহমেদ এবং অর্থনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক বেলাল উদ্দিন। গত ১৭ জানুয়ারী উপাচার্য ড. নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহর বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষ উন্নয়ন প্রকল্পের ড. ওয়াজেদ রিসার্স ইনিস্টিটিউট ও শেখ হাসিনা মহিলা হলের কাজে অনিয়মের অভিযোগে তদন্তে আসে শিক্ষা মন্ত্রনালয় তদন্ত কমিটি। তদন্ত করে কমিটি অনিয়মের সত্যতা পান এবং উপাচার্যসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ২৫ ফেব্রæয়ারী সুপারিশ করে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। উপাচার্যের একান্ত সচিব আমিনুর রহমান জানান, ভিসি স্যার ক্যাম্পাসে আসেননি।

Previous articleকলাপাড়ায় নদী রক্ষার দাবিতে মানববন্ধন
Next articleচৌহালী উপজেলা আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।