ডাক্তার-নার্স আসছে না, কুর্মিটোলায় শ্বাসকষ্টে রোগীর মৃত্যু

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: কোভিড-১৯ নির্দিষ্ট রোগীর জন্য করা রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসক নার্সের দেখা না পেয়ে অক্সিজেনের সিলিন্ডার ঠেলছেন রোগীর স্বজনরাই। এতে বাড়ছে সংক্রমণের ঝুঁকি। তবে এমন অভিযোগ অস্বীকার করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। সমস্যা সমাধানে হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা একমুখী করার আহ্বান বিশেষজ্ঞদের।

তীব্র শ্বাসকষ্টে ভোগা প্রিয়জনকে বাঁচাতে অক্সিজেনের সিলিন্ডার নিজ হাতে তুলে নিয়েছেন স্বজনরা। কুর্মিটোলা হাসপাতালের স্টাফদের সামনেই সেবার জন্য হাহাকারের এই চিত্র প্রতিদিনের হয়ে দাঁড়িয়েছে ভুক্তভোগী স্বজনদের। নার্স নেই, ডাক্তার নেই। এদিকে বাবার অবস্থা খারাপ, কি করবো। আমার সামনেই বাবা চলে গেলেন কিছুই করতে পারলাম না।

আরেকজন বলেন, আমার মা আজ ১১ দিন ভর্তি এখানে। তারা বলছেন, মহাখালীর আইইডিসিআর থেকে এসে নমুনা নিয়ে যাবেন। ১১ দিনের মাথায় কেউ আসেননি।

নিজেদের সব কিছু করতে হচ্ছে। তাহলে তো এখানে চিকিৎসার কিছু নেই। আমরা তো তাহলে বাসায় রাখতে পারতাম এমন অভিযোগের কথা প্রায় সবার মুখেই।

সেন্ট্রাল অক্সিজেন লাইন না থাকায় মুমূর্ষু রোগীদের বাঁচার লড়াইটা এখানে ভয়ঙ্কর। মারা যাবার পরও প্রিয়জনের মরদেহ ফিরে পেতে অপেক্ষার প্রহর গুণতে হচ্ছে বেশীরভাগ মানুষকে।

হাসপাতাল থেকে ফিরে আসাদের অভিজ্ঞতাও সুখকর নয়। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, হাতেগোনা দু/একদিন ছাড়া দেখা মেলেনি চিকিৎসক নার্সদের। ভুক্তভোগী বলেন, তিনদিন ধরে কোনো চিকিৎসকের দেখা মেলেনি। এমনও অনেক ঘটনা ঘটেছে তারা অনেক নিরাপদ দূরত্ব থেকে প্রশ্ন করছেন রোগীদের।

এই ধরনের অভিযোগ আসেনি বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কন্ট্রোল রুম।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কন্ট্রোল রুমের সহকারী পরিচালক ডা. আয়েশা আক্তার বলেন, তারা (ডাক্তার) যে আসেননি এমন অভিযোগ ঠিক নয়। তারা রোগীদরে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। সেন্ট্রাল অক্সিজেনের লাইনে কাজ চলছে।

ব্যাপক সমন্বয়হীনতার কারণে সমস্যার সমাধান হচ্ছে না বলে মত বিশেষজ্ঞদের।

প্রিয়জনকে বাঁচানোর তাগিদে জীবনের ঝুঁকি নিয়েই হাসপাতালের ভেতরে ঢুকছেন স্বজনরা। ভবিষ্যতে আর একটি মৃত্যুও যেন বিনা চিকিৎসায় না হয় সেদিকে সরকারকে নজর দেবার আহ্বান ভুক্তভোগীদের।