ঢাকা মেডিকেলে করোনা ইউনিটে ৯ দিনে ৮৯ জনের মৃত্যু

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে করোনা ইউনিটে ৯ দিনে ৮৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। রোববার (১০ মে) পর্যন্ত করোনা ইউনিটে তাদের মৃ্ত্যু হয়।

ঢামেক সূত্র জানায়, গত ২ মে থেকে ঢাকা মেডিকেলের করোনা ইউনিটে রোগী ভর্তি শুরু হয়। রোববার পর্যন্ত মোট নয় দিনে প্রায় ৮৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে সাত জনের করোনা পজিটিভ ছিল। ২ মে প্রথম দিনেই ১ জন মারা যায়। এই নয় দিনের মধ্যে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু হয়েছিল ১৫ জনের।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ঢামেক কোভিড ইউনিটের ওয়ার্ড মাস্টার মো. রিয়াজ গণমাধ্যমকে বলেন, গত নয় দিনে ঢামেকের নতুন কোভিড-১৯ হাসপাতালে মারা গেছে ৮৯ জন।

তিনি জানান, বর্তমানে হাসপাতালে রোগী ভর্তি আছেন ১৯৫ জন। এর মধ্যে আইসিউতে আছেন ১০জন। গত ২ মে থেকে ১০মে পর্যন্ত রোগী ভর্তি হয়েছিল প্রায় প্রায় ৬০০ জন। অনেকেই চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়ে বাসায় গেছেন। আবার অনেকেই হাসপাতালের কাউকে কিছু না বলে চলে গেছে।

এ বিষয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম নাসির উদ্দিন বলেন, মৃত্যুর সঠিক সংখ্যা আমার জানা নেই। তবে মৃত্যুর হার নয় দিনে অনেক। এদের মধ্যে করোনা সন্দেহের সংখ্যা অনেক বেশি। পাশাপাশি কোভিডে আক্রান্ত হয়েও মারা গেছে কযেকজন।

তিনি আরও বলেন, হার্টের রোগী, শ্বাসকষ্ট নানা ধরনের অসুখ নিয়ে রোগীরা সরাসরি কোভিড ইউনিটে ভর্তি হচ্ছে। অন্য কোনো কারণে শ্বাসকষ্ট হলেও সরাসরি চলে যাচ্ছে কোভিড ইউনিটে। করোনা ভয় থেকেই মানুষ এমনটা করছে।

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম নাসির উদ্দিন বলেন, আগামী দু’দিনের মধ্যে হাসপাতালের নতুন ভবনে কোভিড রোগীদের জন্য ভর্তি কার্যক্রম শুরু করতে পারব। সেখানে হৃদরোগ বিভাগসহ মেডিসিন বিভাগ রয়েছে। কোভিড আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার পাশাপাশি তারা অন্য কোনো রোগে আক্রান্ত হলে সেখানে দ্রুত চিকিৎসা দিতে পারবে।

এছাড়া ঢামেক বার্ন ইউনিট কোভিড ইউনিটকে সার্জারি ইউনিট করা হবে। এখানে কোভিড রোগীদের ভর্তি করে সার্জারির বিষয়টি দেখা হবে।