জয়নাল আবেদীন: নিরাপদ পানির অভাবে প্রতিবছর বিশ্বে পানিবাহিত রোগে ১৫ লাখ মানুষ আক্রান্ত হয়। এদের মধ্যে ৮ লাখ ৪২ হাজার মানুষ অকালেই মারা যায়। বিশ্বের প্রতি ৩ জন মানুষের মধ্যে ১ জন হেপাটাইটিস বি কিংবা হেপাটাইটিস সি ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছেন।

২০১৫ সালে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ১৩ লাখ মানুষ মারা গেছে। জনসচেতনতা তৈরি করা গেলে হেপাটাইটিস, ক্যান্সার ও পানিবাহিত রোগের মত মরণব্যাধি থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভাব।মঙ্গলবার দুপুরে রংপুর সদর হাসপাতালে জেলা সিভিল সার্জনের কনফারেন্স রুমে অনুষ্ঠিত সচেতনতামূলক এক কর্মশালায় এমন-ই তথ্য উঠে এসেছে। দিনব্যাপী এ কর্মশালায় পানিবাহিত রোগ, হেপাটাইটিস ও ক্যান্সার প্রতিরোধে সচেতনতা বৃদ্ধির উপর গুরুত্বারোপ করা হয়।কর্মশালায় মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ড. প্রদীপ কুমার পাণ্ডে। রংপুর বিভাগীয় পরিচালক স্বাস্থ্য (ভারপ্রাপ্ত) ডা. আবু মোঃ জাকিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, রংপুর সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র মাহামুদুর রহমান টিটু, ডিআইজি রংপুর রেঞ্জ অফিসের পুলিশ সুপার শহিদুল্লাহ কাওছার, রংপুর সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. কামরুজ্জামান তাজ, ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. কানিজ সাবিহা, জেলা স্বাস্থ্য তত্ত্বাবধায়ক অরবিন্দু সরকার মোদক প্রমুখ।হেপাটাইটিস বি ও সি ভাইরাস রক্তে সংক্রমিত হলে লিভার সিরোসিস এবং শেষ পর্যন্ত লিভার ক্যান্সার হয়ে মৃত্যু হতে পারে বলে কর্মশালায় তুলে ধরা হয়। বাংলাদেশের বিরাট জনগোষ্ঠীকে হেপাটাইটিস থেকে রক্ষা করতে রোগটি সম্পর্কে সচেতন করা প্রয়োজন। এক্ষেত্রে সচেতনতা, নবজাতককে হেপাটাইটিস প্রতিরোধে বার্থ ডোজ, নিরাপদ রক্ত পরিসঞ্চালন, একই সিরিঞ্জ বারবারব্যবহার না করা, বছরে অন্তত দুইবার রক্তের পরীক্ষা করা, আক্রান্ত হলে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দূরত্ব বজায় রাখা, নিরাপদ যৌনচর্চার ব্যাপারে সতর্ক হওয়া, প্রতিষেধক টিকা, নিরাপদ খাদ্য ও পানীয় জলের ব্যবস্থা করা গেলে এ রোগ প্রতিরোধ সহজ হবে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।বক্তারা বলেন, বিশ্বে ২০০ ধরণের ক্যান্সার রয়েছে, যার কারণে প্রতিবছর লাখো মানুষের মৃত্যু হচ্ছে। ২০১২ সালে সারা বিশ্বে ৮০ লাখ মানুষ ক্যান্সারে মারা গেছে। বাংলাদেশে ১৩-১৫ লক্ষ মানুষ ক্যান্সারে আক্রান্ত। প্রতিবছর প্রায় দুই লক্ষ মানুষ নতুন করে ক্যান্সারে আক্রান্ত হচ্ছে। অথচ সচেতনতা বৃদ্ধি করা গেলে এসব মৃত্যুর ৩০ শতাংশ অতি সহজে প্রতিরোধ করা সম্ভব।কর্মশালায় ক্যান্সারের কয়েকটি কারণ তুলে ধরা হয়- তার মধ্যে বয়স, খাবার, জীবনযাপনের ধারা, পারিবারিক ইতিহাস, পরিবেশ এবং পেশাগত কারণ অন্যতম। আর মরণ এই ব্যাধি প্রতিরোধে বিশেষজ্ঞরা ধূমপান সম্পূর্ণভাবে ত্যাগ করা, সুষম খাবার গ্রহণ, আর্সেনিকমুক্ত পানি পান, নিয়মিত হাঁটাচলা, ব্যায়াম, ভেজাল ও নিন্মমানের কসমেটিকস পরিহার, দীর্ঘসময় সরাসরি সূর্য্যর নিচে না থাকা, বেশ কিছু জীবাণুর বিরুদ্ধে টিকাগ্রহণ, পরিবেশ দূষণ, বিশেষ করে বায়ু এবং পানি দূষণ বন্ধ করার উপর গুরুত্বারোপ করেন।ড. প্রদীপ কুমার পাণ্ডে বলেন, বাংলাদেশের এক তৃতীয়াংশ পানির উৎসে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্ধারিত মানের চেয়ে বেশি মাত্রায় ম্যাঙ্গানিজের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। মলের জীবাণু রয়েছে এমন উৎসের পানি পান করছে ৪১ শতাংশের বেশি মানুষ। এক্ষেত্রে স্বল্প শিক্ষিত নগরবাসী সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে। শহরাঞ্চলের এসব পরিবারে যে পানি খাওয়া হয়, তার এক তৃতীয়াংশেই উচ্চমাত্রার ই-কোলাই ব্যাক্টেরিয়া থাকে। যা ডায়রিয়ার অন্যতম কারণ। বাসাবাড়িতে পানি সরবরাহের সময় এতে আরও বেশি ভাইরাস-ব্যাক্টেরিয়া চলে যায়।শিল্প ও কারখানা, গৃহস্থালির আবর্জনা, কৃষিক্ষেত্র থেকে পানিদূষণ, তেজস্ক্রিয় পদার্থ থেকে পানি দূষণ, খনিজ তেল থেকে পানি দূষণ, তাপীয় দূষণ, বায়ুদূষণের কারণে পানি দূষণ ও আর্সেনিক দূষণকে পানি দূষণের কারণ হিসেবে উল্লেখ করেন। গবেষক পাণ্ডে বলেন, পানি বাহিত রোগ থেকে বাঁচতে বিশুদ্ধ পানি পান করতে হবে। পানি বিশুদ্ধ করতে হলে ফুটিয়ে, ফিল্টারিং, ক্লোরিন ট্যাবলেট বা ব্লিচিং, পটাশ বা ফিটকিরি, সৌর পদ্ধতি, আল্ট্রা ভায়োলেট রশ্মি ও আয়োডিন ব্যবহার করা জরুরি।স্বাস্থ্য শিক্ষা ব্যুরোর লাইফস্টাইল, হেলথ এডুকেশন এন্ড প্রমোশন এবং বর্ণমালা কমিউনিকেশন লিমিটেড এই কর্মশালায় আয়োজন করে। এতে রংপুর জেলা ও বিভাগীয় স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা, বিভিন্ন পর্যায়ের চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মী, জনপ্রতিনিধি ও গণমাধ্যমকর্মীরা অংশ নেন।

Previous articleরংপুরে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট অনূর্ধ্ব-১৭ শুরু
Next articleবড়লোকের বখে যাওয়া সন্তানদের বিপথে নিতে অমির জুড়ি নেই!
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।