জয়নাল আবেদীন: বর্নাঢ্য র‌্যালি আলোচনা অনুষ্ঠান এবং সাইন্টিফিক সেমিনারের মাধ্যমে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওয়ার্ড ভিটিলিগো ডে অর্থাৎ বিশ্ব শ্বেতী বা ধবল রোগ দিবস পালিত হয়েছে । স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানের পর রংপুর মেডিকেল কলেজের চর্ম ও যৌন রোগ বিভাগের আয়োজনে দুপুরে বর্নাঢ্য র‌্যালি বের হয় ।

র‌্যালিটি মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের সড়কগুলো প্রদক্ষিন করে মেডিসিন বিভাগে আলোচনা সভার আয়োজন করে । চমর্ ও যৌন রোগ বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ডা: মঞ্জুরুল করিম প্রিন্সের সভাপতিত্বে আলোচনা অনুষ্ঠানে বক্তব্য প্রদান করেন রংপুর মেডিকেল কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা: বিমল কুমার রায়, সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর নূরন্নবী চৌধুরী লাইজু, মেডিসিন বিভাগীয় প্রধান ও মেডিকেল কলেজ ভাইস প্রিন্সিপাল প্রফেসর ডা: মো: মাহফুজার রহমান মেডিসিন বিভাগের প্রফেসর ডা: শাহ সরওয়ার জাহান সহযোগী অধ্যাপক ডা: আব্দুল ওহাব সহ অন্যান্য বিশেষঞ্জ চিকিৎসকগণ ।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন ভিটিলিগো অর্থাৎ শে^তী বা ধবল রোগ কোন ছোয়াছে রোগ নয় শ্বেতী রোগ সাধারণত শরীরের কোনো বিশেষ স্থানের ত্বকের রং উৎপাদনকারী কোষ বা মেলানোসাইট রোগাক্রান্ত হলে বা সংখ্যায় কমে গেলে অথবা মরে গেলে মেলানিন নামক ত্বকের রঞ্জক (রং) তৈরি বন্ধ হয়ে যায় এবং ওই নির্দিষ্ট স্থানে সাদা দাগ পড়ে। শ্বেতী কোনো ছোঁয়াচে রোগ নয় বা প্রানঘাতি নয়। বিজ্ঞানীরা এই রোগের কারণ এখনও জানতে পারেননি।অজ্ঞতার কারণে শ্বেতী আক্রান্ত রোগীকে দেখলে আঁতকে ওঠেন অনেকে। এই রোগ নিয়ে সাধারণের মনে অনেক কুসংস্কার আর ভ্রান্তি আছে। এটি কোনো ছোঁয়াচে বা অভিশপ্ত রোগ নয়, আর যথাযথ চিকিৎসা নিয়ে শ্বেতী নিয়েও ভালো থাকা যায়।শ্বেতী ত্বকের একটি রোগ। ইংরেজি নাম লিউকোডারমা বা ভিটিলিগো। শ্বেতী আক্রান্ত রোগীকে দেখলে আঁতকে ওঠার কিছু নেই। শ্বেতী রোগীরা বেশির ভাগই মানসিক অবসাদে ভোগেন। অন্যরাও তাঁদের এড়িয়ে চলেন। কিন্তু এটি ছোঁয়াচে বা অভিশপ্ত কোনো রোগ নয়, কুসংস্কার এড়িয়ে যথাযথ চিকিৎসা নিলে ভালো থাকা যায়।

বর্তমানে সারা বিশ্বে প্র্রায় ১০ কোটি মানুষ শ্বেতীতে আক্রান্ত। প্রয়াত শিল্পী মাইকেল জ্যাকসনও এই রোগে আক্রান্ত ছিলেন। তাই প্রতি বছর ২৬ জুন তাঁর প্রয়াণ দিবসে বিশ্বজুড়ে পালিত হয় ‘ওয়ার্ল্ড ভিটিলিগো ডে’ বা বিশ্ব শ্বেতী দিবস হিসেবে। বিশেষঞ্জ বক্তারা বলেন সাধারণত মুখমন্ডল, কনুই, বুকের ত্বক প্রথমে আক্রান্ত হতে শুরু করে। কখনো কখনো শ্বেতী চোখের পাশ দিয়ে, নাকের দুই পাশে বা ঠোঁটের কোণ বা ওপরের ত্বকেও শুরু হয়। কারও কারও ক্ষেত্রে শ্বেতী খুব একটা ছড়ায় না, একটা বিশেষ জায়গাতেই সীমাবদ্ধ থাকে। আবার কারও এমনভাবে মুখে, বুকে, হাতে, পায়ে ছড়িয়ে পড়ে যে বোঝাই যায় না একসময় গায়ের রং আসলে কী ছিল! দ্বিতীয় ধরনের শ্বেতীর দাগই মানুষকে শ্র্রীহীন করে তোলে। ৫০ শতাংশ শ্বেতী ধরা পড়ে বয়স বছর দশেক হওয়ার পর। ছোট আকৃতির ও সীমিত শ্বেতী মলম বা ওষুধে সেরে যেতে পারে। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী মলম লাগানো বা ওষুধ সেবনের পাশাপাশি সকালবেলার রোদ লাগাতে হবে শ্বেতী আক্রান্ত স্থানে। বড় আকারের শ্বেতী হলে মলম আর ওষুধে কাজ হতে প্রায় দুই বছর লাগতে পারে। ওষুধে কাজ না হলে অস্ত্রোপচার।

শ্বেতী চিকিৎসায় যে অস্ত্রোপচার করা হয়, তার নাম পাঞ্চ গ্রাফটিং। যে ধরনের শ্বেতী বছর দুয়েক মোটামুটি একই জায়গায় অবস্থান করে, সেই শ্বেতী সারিয়ে তুলতে পারে এই পাঞ্চ গ্রাফটিং।বক্তারা বলেন যত অল্প বয়সে শ্বেতীর চিকিৎসা শুরু করা যায় তত ভালো। তাই শরীরের যেকোনো জায়গায় সাদা দাগ দেখা দিলে দ্রæত চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করুন। অনুষ্ঠানে এই রোগের উপর পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপন করা হয় ।

Previous articleপদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে চান্দিনায় পুলিশের আনন্দ র‌্যালি
Next articleপদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে সুন্দরগঞ্জ আওয়ামী লীগের বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।