কলেজ ছাত্রীদের মন্ত্রীদের কাছে পাঠিয়ে ভিডিও করা হতো

সদরুল আইন: কলেজ ছাত্রীদের চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে ফাঁদে ফেলা হত সেখানে। রাজনৈতিক নেতা, আমলাদের কাছে তাদের পাঠিয়ে ভিডিও ক্লিপ বানানো হত। পরে ওই ভিডিও ক্লিপ দেখিয়ে ব্ল্যাকমেল করা হত কাস্টমারদের।

এমনি এক মধুচক্রের সন্ধান পেয়েছে ভারতের পুলিশ।

জানা যায়, সম্প্রতি একটি যৌন কেলেঙ্কারি তদন্ত করছিল স্পেশাল তদন্তকারী দল (সিট)। এই ইউনিটের প্রধান সঞ্জীব শামি এ ঘটনার সঙ্গে কংগ্রেস-বিজেপি দুই দলেরই বড় বড় নেতারা যুক্ত থাকার কথা জানিয়েছেন।

উদ্ধারকৃত ভিডিও ক্লিপ যাচাইবাছাই করতে গিয়ে সাবেক মন্ত্রী আর বেশ কয়েকজন আমলার সম্পৃক্ততার বিষয়ে নিশ্চিত হয়।

এ ঘটনার তদন্তকালে ভারতের বিরোধী দল কংগ্রেসের আইটি সেলের এক নেতার স্ত্রীকেও আটক করেছে পুলিশ।

এছাড়া গ্রেপ্তার আরেকজন মহিলা এনজিওর নামে মধুচক্র চালাতেন বলে পুলিশের ভাষ্য। বিজেপি বিধায়ক ব্রিজেন্দ্র প্রতাপ সিংয়ের বাড়ি ভাড়া নিয়ে ওই চক্রটি চালানো হতো।

পুলিশের দাবি, প্রত্যেক মহিলারই নিজস্ব গ্যাং রয়েছে। যেখানে কলেজ ছাত্রীদের চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে ফাঁদে ফেলা হত। রাজনৈতিক নেতা, আমলাদের কাছে তাদের পাঠিয়ে ভিডিয়ো ক্লিপ বানানো হত। পরে ওই ভিডিও ক্লিপ দেখিয়ে ব্ল্যাকমেল করা হত কাস্টমারদের।

সম্প্রতি ভিডিও দেখিয়ে এক আইএস অফিসারকে ২ কোটি টাকা দাবি করা হয়। ইন্দোরে এক কর্মকর্তাকে ব্ল্যাকমেল করে ৩ কোটি টাকা চায় চক্রটি।

এরপরই থানায় ওই কর্মকর্তার করা এফআইআর তদন্তে নেমে ওই মহিলাদের গ্রেপ্তার করা হয়।