শোকে স্তব্ধ লেবানন: নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১০০, আহতের সংখ্যা ৪ হাজারের বেশি

বাংলাদেশ ডেস্ক: লেবাননের রাজধানী বৈরুতে ভয়াবহ দুটি বিস্ফোরণের ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১০০ জন হয়েছে। আহতের সংখ্যা ৪ হাজারের বেশি।

বিবিসি জানায়, ভয়াবহ দুটি বিস্ফোরণের পর লেবাননের শহরটি কেঁপে উঠে। বিস্ফোরণের শব্দে বাসিন্দারা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন।

শহরের প্রাণকেন্দ্র থেকে ঘন ধোঁয়ার কুণ্ডলী উঠতে দেখা গেছে। ১৫০ মাইল দূরের এলাকাতেও কম্পন অনুভূত হয়।

লেবাননের প্রধানমন্ত্রী হাসান দিয়াব বুধবার তিনদিন ব্যাপী রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা করেছেন। পাশাপাশি দুই সপ্তাহের জরুরি অবস্থা ঘোষণার ব্যাপারে ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন।

বৈরুতের বন্দরের একটি রাসায়নিকের গুদাম থেকে ওই বিস্ফোরণ ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে লেবানন কর্তৃপক্ষ।

প্রধানমন্ত্রী হাসান দিয়াব প্রতিরক্ষা কাউন্সিলের বৈঠকে মন্তব্য করেন, গুদামটিতে প্রায় ২ হাজার ৭৫০ টন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট মজুদ ছিল এবং তাই বিস্ফোরিত হয়েছিল মঙ্গলবার।

বৈঠকে তিনি বলেন, এটি অগ্রহণযোগ্য যে, কোন ধরণের সুরক্ষা ব্যবস্থা ছাড়া প্রায় ২ হাজার ৭৫০ টন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট একটি গুদামে ছয় বছর ধরে ছিল।

লেবাননের প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, এটা মেনে নেওয়ার মত না এবং এই ইস্যুতে আমরা চুপ থাকতে পারি না। যারা এই বিপর্যয়ের জন্য দায়ী তাদের শাস্তি পেতে হবে।

তবে ঠিক কী কারণে বিশাল এই বিস্ফোরণ ঘটলো তা সম্পর্কে সুস্পষ্টভাবে এখনো কিছু বলা হয়নি

এদিকে ইসরায়েল-লেবানন সীমান্তে কিছু দিন ধরে উত্তেজনা চললেও এ বিস্ফোরণের সঙ্গে কোনো ধরনের সংশ্লিষ্টতা থাকার কথা নাকচ করেছে তেল আবিব।

ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়া বিভিন্ন ভিডিওতে দেখা যায়, বৈরুতের বন্দর এলাকা থেকে বড়ু গম্বুজ আকারে ধোঁয়া উড়ছে, এর কিছুক্ষণের মধ্যে বিকট বিস্ফোরণে গাড়ি, ভবন উড়ে যেতে দেখা যায়।

এই বিস্ফোরণকে বোমা হামলার সঙ্গে তুলনা করে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, ভয়ংকর এই বিস্ফোরণ দেখে মনে হচ্ছে বোমা হামলার কারণে হয়েছে।

লেবানন রেডক্রস জানিয়েছে, আহত বহু মানুষকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে চিকিৎসার জন্য।

আল জাজিরা তাদের প্রতিবেদনে লিখেছে, ‘বৈরুত হাসপাতালের করিডোরও ভরে গেছে আহত ও রক্তাক্ত মানুষে।’

এ ঘটনায় নিহতদের মধ্যে একজন বাংলাদেশি আছেন বলে নিশ্চিত করেছেন লেবাননের বাংলাদেশ দূতাবাস। তিনি সেখানে বৈধভাবে একটি স্প্যানিশ কোম্পানিতে কাজ করতেন।

এ ছাড়া বিস্ফোরক গুদামের নিকটবর্তী বাংলাদেশ নৌবাহিনী জাহাজ বিজয়-এর ২১ জন সদস্য আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে ২০ জন শঙ্কামুক্ত রয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত ২০১০ সাল হতে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজ লেবাননে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে অংশগ্রহণ করে আসছে। ভূ-মধ্যসাগরে মাল্টিন্যাশনাল মেরিটাইম টাস্কফোর্সের সদস্য হিসেবে বর্তমানে নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজ ‘বিজয়’ ইউনিফিলে বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় নিয়োজিত রয়েছে।