পুতিনের মেয়ের দেহে অ্যান্টিবডি তৈরি করেছে রাশিয়ার ভ্যাকসিন

বাংলাদেশ ডেস্ক: বিশ্বের প্রথম ‘করোনাভাইরাস’ ভ্যাকসিন উদ্ভাবনের দাবিদার রাশিয়া তাদের ভ্যাকসিনের বিষয়ে সফলতার আরেকটি খবর প্রকাশ করেছে। নতুন খবরে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্ট পুতিনের মেয়ের দেহে পরীক্ষামূলকভাবে যে ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হয়েছিল তা সাফল্যজনকভাবে অ্যান্টিবডি তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে।
গত ১১ আগস্ট বিশ্বের প্রথম করোনা ভ্যাকসিন ‘স্পুটনিক-৫’ নথিভুক্ত করেছে রাশিয়া। সেই ভ্যাকসিনটিই রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের মেয়ের দেহে প্রয়োগ করা হয়েছিল। রাশিয়ার গণমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাতকারে প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন দাবি করেছেন যে, সেই ভ্যাকসিনে তার মেয়ের দেহে অ্যান্টিবডি তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে।

রসিভা ২৪ ব্রডকাস্টারকে দেওয়া সাক্ষাতকারে পুতিন জানান, ভ্যাকসিন দেওয়ার পরদিন তার মেয়ের দেহের তাপমাত্রা বেড়ে ৩৮.৪ ডিগ্রী সেলসিয়াস বা ১০১ ডিগ্রী ফারেনহাইট হয়েছিল। দ্বিতীয় দিন তাপমাত্রা কমে ৩৭ ডিগ্রী সেলসিয়াস বা ৯৮ ডিগ্রী ফারেনহাইটে নেমে আসে।

সাক্ষাতকারে পুতিন আরো জানিয়েছেন যে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য সেপ্টেম্বর নাগাদ রাশিয়াতে আরেকটি ভ্যাকসিন অনুমোদন পাবে।

বিশ্বের বহু বিশেষজ্ঞ দাবি করছেন যে, স্পুটনিক পাঁচ ঠিক মতো পরীক্ষা করা হয়নি৷ তার আগেই অনুমোদন দিয়েছে রাশিয়া৷ বিশ্বজুড়ে ওই ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা নিয়ে নানা বিতর্ক থাকলেও, রাশিয়া সাফ জানিয়ে দিয়েছে, তাদের তৈরি ভ্যাকসিন সম্পূর্ণ নিরাপদ।