বাংলাদেশ ডেস্ক: দুনিয়ায় সম্প্রতি প্রধান আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু ভ্যাকসিন। কারণ, করোনা মোকাবিলায় ভ্যাকসিন ছাড়া বিশ্ববাসীর কাছে বিকল্প কোন পথ খোলা নেই। তাই একের পর এক দেশ টিকা আবিষ্কারের সফলতার গল্প শুনিয়ে যাচ্ছে। এই যে দেখুন, অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি-অ্যাস্ট্রাজেনেকা, আমেরিকার মডার্না এবং ফাইজার এন্ড বায়োএনটেক-এর কোভিড ভ্যকাসিন কার্যকরিতার দিক থেকে অনেকটাই আশার আলো দেখাচ্ছে। এর মধ্যে ফাইজারের টিকা যুক্তরাজ্যে জরুরিভিত্তিতে প্রয়োগ শুরু করেছে বরিস সরকার। এই তিন কোম্পানির টিকা ট্রায়ালে এখন পর্যন্ত বেশ কার্যকর ফল পাওয়ায় বেশ আশাবাদী বিশ্ববাসী। যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরাও জানান দিচ্ছেন, মহামারি থেকে রক্ষা পেতে টিকাই মূখ্য ভূমিকা রাখতে পারে।

পশ্চিম গোলার্ধে এবং আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমসহ সাধারণ মানুষের এই তিনটি ভ্যাকসিনের নাম মুখে মুখে থাকলেও আরো দুটি ভ্যাকসিন যে আছে তা কিন্তু ভুলে গেলে হবে না। রাশিয়া এবং চীন তাদের সর্বোচ্চটা প্রয়োগ করে টিকা আবিষ্কারে ভূমিকা রাখছে। চীনের টিকা সিনোভ্যাক তুরস্কসহ বিশ্বের কয়েকটি দেশে ট্রায়াল চলছে। ইতোমধ্যে নিজ দেশের জনগণের উপর প্রয়োগ করে বিশ্বের আরো কয়েকটি দেশে চূড়ান্ত ট্রায়াল চালাচ্ছে বেইজিং। তবে এই ক্ষেত্রে রাশিয়া ব্যতিক্রম। অন্য দেশে ট্রায়ালে না গেলেও সম্প্রতি নিজ দেশের নাগরিকদের উপর গণহারে ‘স্পুটনিক-ভি’ টিকা প্রয়োগের কার্যক্রম শুরু করেছে পুতিন সরকার।

এতো সব ভ্যাকসিন বের হলেও এর কার্যকারিতা নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে কৌতুহলের কমতি নেই। নানা প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হচ্ছে ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানগুলোকে। বিশেষ করে সামজিক এবং রাজনৈতিক অবস্থান থেকেও প্রশ্ন আসছে কোভিড টিকার হালচাল নিয়ে।

এদিকে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা- ডব্লিউএইচও জানায়, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা, ভ্যাকসিনের দ্রুত উৎপাদন ও বিতরণ নিশ্চিতে ‘কোভেক্স’ জোট গঠন করা হয়েছে। ‘কোভেক্স’ নামের বিশ্বজনীন ভ্যাকসিন জোটে ইতিমধ্যে ১৮৪টি দেশ যোগ দিয়েছে বলেও জানিয়েছে সংস্থাটির কর্মকর্তারা। এমনকি ভ্যাকসিনের লাইসেন্সের অনুমোদন দেবে ‘কোভেক্স’।

এই জোটটি কী আসলেই কোভিড ভ্যাকসিন সুষ্ঠুভাবে প্রয়োগ এবং বিতরণে মুখ্য ভূমিকা রাখতে পারবে? বিভিন্ন দেশে করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) টিকা সুবিধা নিশ্চিত করার জন্য একটি আন্তর্জাতিক উদ্যোগ হলো গ্যাভি-কোভেক্স ফ্যাসিলিটি। কিন্তু, এই জোটের মাধ্যমে ভ্যাকসিন বিতরণসহ আনুসঙ্গিক জটিলতা আরো বাড়িয়ে তুলবে বলে মনে হচ্ছে। ‘কোভেক্স’-এর অন্তর্ভুক্ত দেশগুলো (গ্যাভি) সব দেশকে মোট জনসংখ্যার ২০ শতাংশের জন্য টিকা দেবে, এমন আশার বাণী শুনিয়ে যাচ্ছে। প্রতিটি টিকার জন্য সর্বনিম্ন ১ দশমিক ৬ ডলার থেকে ২ ডলার করে দিতে হবে। আসল কথা হল, অংশীদার দেশগুলো তাদের আয়ের স্তরের ভিত্তিতে কোভেক্সের তহবিলে অর্থ প্রদান করে অবদান রাখবে। তবে দরিদ্রতম দেশগুলোকে সর্বনিম্ন অর্থ সহায়তা করে এই সুযোগ পেতে হবে।

গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে, গরীব দেশগুলোকে স্বল্পমূল্যে কোভিড ভ্যাকসিন বিতরণের কথা জানিয়েছে অক্সফোর্ড। বিশ্বের প্রান্তিক পর্যায়ের মানুষকে অক্সফোর্ডের টিকা পাওয়ার আশ্বাস দিয়েছে অক্সফোর্ডের সঙ্গে জড়িতরা।

কোভেক্সর বিষয়টি হচ্ছে ধরুন, আপনি যখন কোন আবাসন প্রকল্প চালু করেন সেটি কেবলমাত্র প্রতীকী হিসেবে উপস্থাপন করা হয়। নকশা প্রণয়নকারী এমনভাবে আবাসন প্রকল্প আঁকেন যা দেখে আপনি মুগ্ধ হয়ে পড়েন। যা অনেকটা কাল্পনিক স্থাপনা। নিকট ভবিষ্যতে বাস্তবে রূপ নেবে এই ধারণা আপনার ভেতর ঢুকিয়ে দেয়া হয়। শুধুমাত্র জমি দেখেই এক সময় আপনি বাড়ি কেনার দিকে ঝুঁকে পড়েন। আপনার অগ্রিম বুকিং-এ আবাসন প্রকল্প হয়ে ওঠে আরো বড়।

একইভাবে কোভেক্স-এর যারা সদস্য হবে তারাও আইন মেনে অর্থ পরিশোধ করবে অথবা অন্য কোনো শর্ত থাকলে সেটি পূরণ করবে। শর্ত পূরণের পর যে পরিমাণ ভ্যাকসিন প্রয়োজন হবে সদস্যদের তা প্রদানের প্রতিশ্রুতি দেয়া হবে। যদি তা না হয়, তবে বড় বড় আবাসন প্রকল্পের ক্রেতাদের মত অবস্থা দাঁড়াবে। তখন দেখা যাবে, একক ক্রেতা, বড় দেশ বা ইইউর মতো অর্থনৈতিক বিভাগ গরিব দেশগুলোর চেয়ে বেশি দামে ভ্যাকসিন কেনার প্রস্তাব দেবে বা কিনতে সক্ষম হবে। এমন পরিস্থিতিতে গরিব দেশগুলো ভ্যাকসিন পাওয়ার ক্ষেত্রে জটিলতা তৈরি হবে। প্রয়োজনমত ভ্যাকসিন তারা কিনতে পারবে না।

ভ্যাকসিন পাওয়ার ক্ষেত্রে মালয়েশিয়া কিভাবে মিথ্যাচার করছে? এবার চলুন সেই দিকে যাওয়া যাক। প্রায় দুই সপ্তাহ আগে, প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করেছিলেন যে, মালয়েশিয়া সরকার ফাইজার-বায়োএনটেকের সঙ্গে একটি চুক্তিতে পৌঁছেছে। যখন ফাইজারের টিকা অনুমোদন দেয়া হবে মালয়েশিয়ার জনগণের প্রায় ২০ শতাংশ মানুষ টিকা পাবেন। সেক্ষেত্রে দেশটির জনসংখ্যা অনুযায়ী ৬৫ লাখ নাগরিক ভ্যাকসিন পাওয়ার কথা। অন্যদিকে কোভেক্স জোটে যোগ দিয়ে মালয়েশিয়া প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয় যে, তার দেশের জনগণের ১০ শতাংশ টিকার চাহিদা পূরণ করবে। কোভেক্স-এর সঙ্গে প্রতিশ্রুতির ঠিক এক বা দুদিন আগে চীনা ভ্যাকসিনের তৃতীয় ট্রায়ালে ৩ হাজার মালয়েশিয়ার নাগরিকের অংশ নেয়ার কথা।

এতোগুলি সিদ্ধান্তে চারপাশে এমনিতেই অনেক প্রশ্ন সামনে দাঁড়িয়েছে। এতো সব বিষয় অনেকটাই বিরক্ত মালয়েশিয়ার নাগরিকরা। কেউ কেউ ভাবছেন, কেন ফাইজারের টিকা কিনতে এবং কোভেক্স-এর নানামুখী উদ্যোগে এতো অর্থ খরচ করছে সরকার। আবার অনেকে জিজ্ঞাসা করছেন, ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে কেন আমাদের দেশের জনগণকে পরীক্ষা জন্য ‘গিনিপিগ’ হিসেবে ব্যবহার করছি।

এতো কিছুর পরও অনেকে বুঝতেই পারছে না বৈশ্বিক কূটনীতি এজেন্ডার একটি নতুন উপকরণ হয়ে উঠেছে ভ্যাকসিন। কোভিড ভ্যাকসিনের বিষয়টি সাবধানতার সঙ্গে পরিচালনা না করায় আন্তর্জাতিক অঙ্গনে এর খারাপ প্রভাব দেখতে পাচ্ছি। ভ্যাকসিন দীর্ঘদিন ধরেই আন্তর্জাতিক অঙ্গনে দর কষাকষির হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। বিশ্বব্যাপী চলমান সংঘাতের মধ্যেই যুদ্ধবিরতি বা নতুন সংঘাত উস্কে দেয়ার জন্যও এই ভ্যাকসিন কৌশলগতভাবে হাতিয়ার হিসেবে বেছে নিয়েছে ক্ষমতাধর শাসকরা। চীন জানিয়েছে, অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে মালয়েশিয়া আগেই তাদের টিকা পাবে।

অর্থনীতির সঙ্গে লড়াই করতে থাকা দেশগুলি যখন চড়ামূল্যে বিপুল পরিমাণ ভ্যাকসিন সরবরাহ করবে তখনই একটা দেশের উপর দীর্ঘমেয়াদি অর্থনৈতিক প্রভাব পড়ার আশঙ্কা দেখা দেয়। সুতরাং এই কারণেই আমি বলব, দুর্দশার জলে পড়ার আগেই খুব সাবধানতার সঙ্গে পদক্ষেপ নিতে হবে। বিভিন্ন উপায়ে ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো কাছ থেকে সংগ্রহ করতে পারে মালয়েশিয়া। ভ্যাকসিনের দৌড়ে কে বা কারা এগিয়ে তা শীঘ্রই বোঝা যাবে। আর এই খেলায় মালয়েশিয়া নিজের সেরা খেলাটা খেলছে, যাতে তার দেশ এবং জনগণ যেন বিজয়ী হয়।

লেখক: ডা. এম মুরালিধরণ, মেডিকেল ডিরেক্টর। মালয়েশিয়ার ন্যাশনাল ক্যান্সার সোসাইটি- এনসিএসএম।

স্বত্ব: মালয়েশিয়ার স্বাস্থ্য বিষয় দৈনিক ফ্রি মালয়েশিয়া টুডে।