বাংলাদেশ ডেস্ক: করোনা ভাইরাসের উৎস অনুসন্ধানে চীনের উহান শহরে যাচ্ছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার একটি দল। আন্তর্জাতিক বিজ্ঞানীদের ১০ জনের দলটি আগামী মাসেই উহানে পৌঁছাবে। জাতিসংঘ এ তথ্য জানিয়েছে।

স্বাধীন তদন্তের অনুমতি দিতে শুরু থেকেই অনিচ্ছুক ছিল চীন। উহানে প্রবেশের অনুমতি পেতে বেইজিংকে রাজি করাতে কয়েক মাস সময় লেগেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার। ধারণা করা হয়, চীনের উহানের একটি পশু বাজার থেকে বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাস ছড়িয়েছে।

করোনার এ উৎস অনুসন্ধান নিয়ে বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে চীনের উত্তেজনা শুরু হয়। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন শুরুতে করোনা ছড়িয়ে পড়ার তথ্য গোপন চেষ্টার জন্য অভিযুক্ত করে বেইজিংকে।

তদন্তের লক্ষ্য কি?

উহানে তদন্ত করতে যাচ্ছে এমন একজন জীববিজ্ঞানী মার্কিন বার্তা সংস্থা অ্যাসোসিয়েটেড প্রেসকে জানান, বিশ্ব স্বাস্থ্য কাউকে দোষারোপ করতে নয়, বরং পরবর্তী সংক্রমণ ঠেকাতে অনুসন্ধান করবে।

জার্মানির বরার্ট কোচ ইনস্টিটিউটের ফ্যাবিয়ান লিনডার্জ জানান, কোনো দেশকে দোষী সাব্যস্ত করা আমাদের উদ্দেশ্য নয়। অনুসন্ধান করে তথ্যপ্রমাণের ভিত্তিতে আমরা বোঝার চেষ্টা করব, আসলে কী হয়েছিল। পরবর্তী ঝুঁকি কমিয়ে আনতে কী ধরনের পদক্ষেপ নিতে হবে, তা নির্ধারণ করা। ডা. লিনডার্জ বলেন, ভাইরাসের উৎস খুঁজে বের করতে চাই আমরা। সংক্রমণ কি উহান থেকে ছড়িয়েছে; নাকি অন্য কোথাও থেকে। উহানে অনুসন্ধান কার্যক্রম চার থেকে পাঁচ সপ্তাহ স্থায়ী হতে পারে বলেও জানান তিনি।

কবে কোথায় প্রথম করোনা শনাক্ত হয়?

ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার প্রথম দিকে বলা হয়েছিল, হুবেই প্রদেশের উহান শহরের একটি মাছের বাজার থেকে করোনা ছড়িয়েছে। ওই সময় বলা হয়, প্রাণী থেকে মানুষে ভাইরাসটি সংক্রমিত হয়। তবে বিশেষজ্ঞরা এখন এ দাবিকে বাড়িয়ে বলা বলছেন। গবেষকরা বলছেন, কয়েক দশক ধরে বাদুর থেক মানুষের শরীরে করোনা ভাইরাস সংক্রমিত হচ্ছে বলে ধারাণা করা হচ্ছে। তবে তা এখনো প্রমাণিত নয়।

গত ডিসেম্বরে উহান সেন্ট্রাল হাসপাতালের চিকিৎসক লি ওয়েনলিয়াং সম্ভাব্য নতুন রোগের সংক্রমণ নিয়ে অন্য চিকিৎসকদের সতর্ক করার চেষ্টা করেছিলেন। তখন তাকে ভুয়া তথ্য ছড়ানো বন্ধের জন্য বলে পুলিশ। পরে মিথ্যে তথ্য ছড়ানোর দায়ে তার বিরুদ্ধে তদন্ত হয়।

করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা করাতে গিয়ে ফেব্রুয়ারিতে আক্রান্ত হন লি। এপ্রিলে তিনি মারা যান। সন্দেহ এবং অভিযোগ উঠে উহানের গবেষণাগার থেকে করোনা ভাইরাস ছড়িয়েছে।

তখন মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, চীনা দূতাবাসে থাকা তাদের কর্মকর্তারা করোনা সংক্রমক নিয়ে আতঙ্কিত। মার্কিন জাতীয় গোয়েন্দা বিভাগের পরিচালক বলেন, ভাইরাস যেহেতু মানুষের তৈরি না, জিনগতভাবে পরিবর্তিতও নয়, তাই কর্মকর্তারা তদন্ত করে দেখছেন প্রাণী থেকে মানুষে ছড়িয়েছে নাকি, দুর্ঘটনাবশত গবেষণাগার থেকে সংক্রমণ শুরু হয়েছে।

সম্প্রতি চীনা গণমাধ্যম জানায়, করোনা ভাইরাস সম্ভবত চীনের বাইরে কোথাও থেকে শুরু হয়েছে। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ওই দাবি কোনো ভিত্তি নেই। তখন মহামারির কারণে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে চীনের মানমর্যাদার বিষয়ে দেশটির নেতাদের মধ্যে উদ্বেগ ছড়িয়ে পড়ে।