বাংলাদেশ ডেস্ক: করোনাভাইরাসের নতুন ধরনের (স্ট্রেইন) আগামী মার্চে যুক্তরাষ্ট্রে শক্তিশালী রূপ নিয়ে তাণ্ডব চালাতে পারে, এমন সতর্কবার্তা দেশটির স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের। মার্কিন রোগনিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র (সিডিসি) জানিয়েছে আগামী সপ্তাহগুলোতে কোভিডের নতুন রূপ মারাত্মকভাবে যুক্তরাষ্ট্রে ছড়াতে পারে।

মার্কিন স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের মতে, চলমান শীতে কোভিডের তীব্রতা বাড়লে সংকটে থাকা স্বাস্থ্যব্যবস্থা আরও হুমকির সম্মুখীন হবে। এ প্রসঙ্গে নির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলছেন, তার শপথ নেওয়ার প্রথম ১০০ দিনে যুক্তরাষ্ট্রের ১০ কোটি মানুষকে ভ্যাকসিনের আওতায় আনার পরিকল্পনা। এর মধ্যে প্রথম সারির তালিকায় থাকবেন স্বাস্থ্যকর্মীসহ প্রবীণরা।

দেশটির সরকারি সূত্রমতে, এ পর্যন্ত এক কোটি দুই লাখ মানুষকে করোনার টিকার আওতায় আনা হয়েছে। কিন্তু বাইডেন এই পরিসংখ্যানের সমালোচনা করে জানান, অনেক রাজ্যে ৩ কোটি মার্কিনিকে টিকা দেওয়া হয়েছে। শুক্রবার ১৫ জানুয়ারি এক অনুষ্ঠানে বলেন, ‘মনে রাখতে হবে আমরা এখন ‘গভীর শীতে’ রয়েছি। তবে এই শীত চলে যাওয়ার আগেই করোনার পরিস্থিতি আরো অবনতি হতে পারে।’

মার্কিন রোগনিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্রের (সিডিসি) সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ব্রিটেনে শনাক্ত হওয়ার করোনার নতুন স্ট্রেইন আরো ছড়িয়ে পড়বে। জনস্বাস্থ্য ইংল্যান্ডের-পিএইচইর সর্বশেষ গবেষণায় এসেছে, বর্তমানে ব্রিটেনের বেশির ভাগ অঞ্চলে পূর্ববর্তী স্ট্রেনের চেয়ে ৩০ থেকে বেড়ে ৫০ শতাংশ বেশি সংক্রমণযোগ্য। নতুন ধরনের সংক্রমণে মানুষ আরো মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়ছে গবেষণায় এমন কিছু পাওয়া যায়নি। বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, করোনার নতুন ধরন মোকাবিলায় এখনকার বাজারের ভ্যাকসিন নাও কাজ করতে পারে।

বিবিসির সর্বশেষ তথ্যমতে, যুক্তরাষ্ট্রের ১০টি অঙ্গরাজ্যের ৭৬ জনের শরীরে নতুন ধরনের করোনা অস্তিত্ব মেলেছে, যা যুক্তরাজ্যের ধরনের সঙ্গে মিল রয়েছে। যুক্তরাজ্য, স্পেন, ইতালি, ব্রাজিল ও পর্তুগালসহ বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশে করোনার নতুন স্ট্রেন শনাক্ত হয়েছে।