বাংলাদেশ ডেস্ক: ইরানের সাবেক প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আহমাদিনেজাদ আবারও প্রার্থী হতে যাচ্ছেন। আগামী জুনে অনুষ্ঠেয় নির্বাচনের জন্য বুধবার (১২ মে) তিনি নিজের নাম নিবন্ধন করেছেন।

এ নির্বাচনকে দেশটির ধর্মতাত্ত্বিক শাসন ব্যবস্থার জন্য পরীক্ষা হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। এছাড়া মার্কিন নিষেধাজ্ঞায় জর্জরিত ইরানের অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক সংকট মোকাবিলায় এই নির্বাচনকে গণভোট হিসেবে দেখা হবে।

পাশ্চাত্যের দেশগুলোতে আহমাদিনেজাদকে নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে দেখা হয়েছে। ফিলিস্তিনে ইসরাইলি দখলদারিত্বের বিরুদ্ধে তার বক্তব্য ছিল আগ্রাসী। সাদামাটা জীবন যাপনের জন্য সবার শ্রদ্ধার পাত্র হয়ে আছেন তিনি।

২০১৩ সালে মেয়াদ শেষ হওয়ার পর প্রেসিডেন্ট পদ থেকে সরে দাঁড়ান আহমাদিনেজাদ। পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি ২০১৫ সালে ছয় বিশ্বশক্তির সঙ্গে পরমাণু চুক্তি করেন।

প্রার্থী তালিকায় নাম লেখানোর পর আহমাদিনেজাদ বলেন, ইরানের সিদ্ধান্ত-নির্ধারণ প্রক্রিয়ায় সাধারণ মানুষেরও অংশগ্রহণ থাকা উচিত। একটি মৌলিক পরিবর্তনের জন্য আমাদের সবাইকে প্রস্তুত থাকতে হবে।

আগামী ১৮ জুন ইরানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। প্রার্থীরা মঙ্গলবার থেকে তাদের নাম নিবন্ধন করতে শুরু করেছেন।

শনিবার প্রার্থী নিবন্ধন শেষ হবে। পরবর্তীতে রাজনৈতিক ও ইসলামী বৈশিষ্ট্য বিবেচনায় নিয়ে চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করবে ১২ সদস্যের গার্ডিয়ান কাউন্সিল। এই কাউন্সিলের ছয় সদস্যকে নিয়োগ দিয়েছেন ইরানের শীর্ষ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি।

২০১৮ সালে খামেনিকে লেখা এক চিঠিতে নির্বাহী, পার্লামেন্ট ও বিচারবিভাগ—সরকারের এই তিন বিভাগে মৌলিক সংস্কারের আহ্বান জানিয়েছিলেন আহমাদিনেজাদ।

Previous articleদেশে ফের বাড়ল করোনায় মৃত্যু
Next articleনরসিংদীতে বাস-মাইক্রোবাস সংঘর্ষে নিহত ৩
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।