বাংলাদেশ ডেস্ক: পানির পরিবর্তে থুতু দিয়ে চুল কাটার চেষ্টা করছিলেন এক ভারতীয় হেয়ার স্টাইলিস্ট। তিনি দেখাতে চেয়েছিলেন যে কিভাবে পানির অভাবে স্রেফ থুতু দিয়ে চুলের যত্ন নেওয়া যায়। এখন বিতর্কের মুখে পড়ে ক্ষমা চাইতে হয়েছে তাকে। শুক্রবার এমন সংবাদ প্রকাশ করেছে বিভিন্ন ভারতীয় গণমাধ্যম।

পানির অভাবে স্রেফ থুতু দিয়ে কিভাবে চুলের যত্ন নেয়া যায়!‌ প্রকাশ্য ওয়ার্কশপে তা শেখাতে গিয়ে ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটিয়ে ফেলেছেন ভারতের বিখ্যাত হেয়ার স্টাইলিস্ট জাভেদ হাবিব। এক নারীর চুলে থুতু ছেটানোয় এবার তার বিরুদ্ধে দায়ের হয়েছে এফআইআর। ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর ক্ষমা চেয়েও রেহাই পাননি তিনি। এখন গ্রেফতারও হতে পারেন হাবিব।

উত্তরপ্রদেশের বাগপতের যুবতী পূজা গুপ্তা গিয়েছিলেন মুজাফফরনগরে জাভেদ হাবিবের একটি ওয়ার্কশপে। পূজা নিজেও একটি পার্লারের মালিক, সেখানে নানা পরামর্শ দেয়ার মাঝে পূজাকে মঞ্চে ডেকে নেন হাবিব। জানান যে চুলের যত্ন নেয়ার একটি ‘ডেমো’ দেখাবেন। পূজা বেশ খুশি মনেই রাজি হয়েছিলেন। মঞ্চে উঠে তিনি হাবিবের কথা মতো বসে পড়েন চুল কাটার সিটে। কাজ শুরু করেন হাবিবও। কিন্তু কিছুক্ষণ পরেই ঘটে ওই আপত্তিকর ঘটনা। সোশ্যাল মিডিয়ায় পূজা জানিয়েছেন, ‘‌আমার চুল শ্যাম্পু করা ছিল না। উনি কাটতে কাটতে ঠিক আমার চুলের মাঝখানে থুতু ছেটালেন। তারপর বললেন–এ থুতুতে প্রাণ আছে।’‌ আসলে, হাবিব বোঝাতে চাইছিলেন, পানির অভাবে কিভাবে চুলের যত্ন করা যায়। আর তার জন্য তিনি অন্যের চুলে স্রেফ থুতু ছিটিয়ে ডেমো দেখাতে চাইছিলেন। কিন্তু এরপরই পূজা সেখান থেকে উঠে আসেন। এ তিক্ত অভিজ্ঞতা সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেন পূজা। তারপরই নেটিজেনরা সরব হন।

এদিকে, নারীর চুলে থুতু দেয়ার ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ার পর চাপে পড়ে ক্ষমা চান জাভেদ হাবিব। বিষয়টি উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ছিল না বলে আত্মপক্ষ সমর্থন করেন তিনি। একটি ভিডিওতে হাবিব বলেছেন, ‘সেমিনারে কিছু কথা বলেছি। হয়তো আমার কথায় কারো ভাবাবেগে আঘাত লাগতে পারে। একটা কথাই বলতে চাই, এগুলো পেশাদারী ওয়ার্কশপ। এখানে এ পেশার সাথে জড়িত মানুষরাই আসেন। এক একটি ওয়ার্কশপ দীর্ঘ সময় ধরে চলে। এ দীর্ঘ সময়ের মধ্যে একটু আধটু রসিকতাও চলে। কী আর বলব!’

তিনি আরো বলেছেন, ‘যদি কেউ সত্যিই আঘাত পেয়ে থাকেন, অন্তর থেকে তাদের কাছে ক্ষমা চাইছি। দয়া করে ক্ষমা করে দিন। আমি দুঃখিত।’

কিন্তু তাতেও মহিলার চুলে থুতু দেয়ার বিতর্কে জল ঢালা যায়নি। ভারতের জাতীয় মহিলা কমিশন বিষয়টি অত্যন্ত গুরুতর অপরাধ বলেই মনে করছে। কমিশনের চেয়ারপার্সন রেখা শর্মা উত্তরপ্রদেশ পুলিশের ডিজির কাছে চিঠি লিখে দাবি জানান, ভাইরাল ভিডিওতে যা দেখা যাচ্ছে, তা দ্রুত তদন্ত করে কড়া ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক। ওই মহিলাও থানায় অভিযোগ জানান। এরপরই হাবিবের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করে পুলিশ।

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা, আজকাল

Previous articleতাহিরপুরে তৃতীয় বারের মতো দলীয় প্রতীক নৌকা পেলেন বিশ্বজিৎ সরকার
Next articleআশা করবো বিএনপি টানেল থেকে বের হতে পারবে: তথ্যমন্ত্রী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।