জীবিত দিসা মণিকে ‘গণধর্ষণ ও হত্যার’ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির রহস্য উদঘাটনে হাইকোর্টে আবেদন

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: জীবিত দিসা মণিকে ‘গণধর্ষণ ও হত্যার’ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির রহস্য উদঘাটনে হাইকোর্টে আবেদন করেছেন পাঁচজন আইনজীবী। ওই আইনজীবীদের পক্ষে অ্যাডভোকেট শিশির মনির মঙ্গলবার বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও মোঃ মোস্তাফিজুর রহমানের দ্বৈত বেঞ্চে এ আবেদন করেন।
ওই আবেদনে তারা প্রশ্ন তুলেছেন, আসামিরা কীভাবে ধর্ষণ ও হত্যা সম্পর্কিত স্বীকারোক্তি দিয়েছে। যেখানে দিসা অক্ষত অবস্থায় ফেরত এসেছে?

অ্যাডভোকেট শিশির মনির সংবাদমাধ্যমকে জানান, রিভিশনে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় দায়েরকৃত মামলা এবং মামলা পরবর্তী প্রক্রিয়ার শুদ্ধতা, বৈধতা এবং যৌক্তিকতা সম্পর্কে প্রশ্ন তোলা হয়েছে। উক্ত আবেদনে আদালতে উক্ত মামলার নথি তলব করে পরীক্ষাপূর্বক উপযুক্ত আদেশ প্রদানের প্রার্থনা করা হয়েছে। আবেদনটিতে নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক, চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ সুপার, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা, বাদি এবং আসামিগণকে বিবাদি করা হয়েছে।
আদালতে আবেদনকারী পাঁচ আইনজীবী হলেন মোঃ আসাদ উদ্দিন, মোঃ জোবায়েদুর রহমান, মোঃ আশরাফুল ইসলাম, মোঃ আল রেজা আমির এবং মোঃ মিসবাহ উদ্দিন।

‘ধর্ষণ ও হত্যার শিকার’ কিশোরীর ফেরা যেভাবে

‘প্রেমিকের সঙ্গে ঘুরতে বেরিয়ে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছিল ১৫ বছরের কিশোরী। এরপর অপরাধ গোপন করতে মেয়েটিকে শ্বাসরোধে হত্যার পর লাশ নদীতে ফেলে দেওয়া হয়। পুলিশের তদন্তে মেয়েটির কথিত প্রেমিক আবদুল্লাহ, তার বন্ধু রাকিব ও নৌকার মাঝি খলিলকে গ্রেপ্তার করা হয়। তারা আদালতে মেয়েটিকে ধর্ষণ ও হত্যার পর লাশ শীতলক্ষ্যা নদীতে ফেলে দেওয়ার কথা স্বীকারও করে।’ এ পর্যন্ত সবই ঠিক ছিল। কিন্তু নিখোঁজের এক মাস ২০ দিন পর রোববার ওই কিশোরীর হদিস পায় তার পরিবার। ইকবাল নামে এক যুবককে বিয়ে করে সংসার করছিল সে। টাকার জন্য মাকে ফোন করলে ঘটনা ফাঁস হয়। জানা যায়, ওই কিশোরী খুন হয়নি। গতকাল সোমবার ঘটনাটি জানাজানি হলে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।

নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম সংবাদমাধ্যমকে বলেন, প্রকৃত ঘটনা কী, তা জানতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিবি) জাহেদ পারভেজকে প্রধান করে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। একই সঙ্গে মামলাটির নতুন তদন্ত কর্মকর্তাও নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তিনি আরও বলেন, বিষয়টি নিয়ে তিনি একজন ম্যাজিস্ট্রেটের সঙ্গে কথা বলেছেন। অপরাধ না করেও গ্রেপ্তার তিনজন কেন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিল, তা জানার জন্য তাদের আবারও রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। ধারণা করা হচ্ছে, ওই তিনজন এ ধরনের অপরাধ অন্য কোনো মেয়ের সঙ্গে করেছে। তা না হলে পৃথক ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে তিনজনের জবানবন্দি কেন একই ধরনের হবে।

গ্রেপ্তার তিনজনের পরিবারের দাবি, পুলিশের নির্যাতনের মুখে আবদুল্লাহ, রাকিব ও খলিল মাঝি আদালতে দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে। এখন ‘নিহত’ ওই কিশোরী ফিরে আসায় ওই তিনজন যে নিরপরাধ, তা প্রমাণ হয়েছে। তিনজনের পরিবার আরও অভিযোগ করে, পুলিশ তাদের কাছ থেকে ৪৭ হাজার টাকা নিয়েও তাদের খুনের মামলায় ফাঁসিয়ে দিয়েছে। এই ঘটনার সুবিচার দাবি করেন তারা। আসামিদের পরিবারের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার কথা অস্বীকার করেছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই শামীম। তিনি সংবাদমাধ্যমকে বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে আসামিরা স্বীকার করেছে তারা মেয়েটিকে ধর্ষণের পর হত্যা করে লাশ নদীতে ফেলে দিয়েছে। তাদের নিয়ে ঘটনাস্থলেও গিয়েছি। তা ছাড়া ওই কিশোরীর মায়ের মোবাইল ফোনের কললিস্ট যাচাই করেই রাকিব, আবদুল্লাহ ও খলিল মাঝিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

ওই কিশোরীর মা সংবাদমাধ্যমকে বলেন, তিন আসামিকে গ্রেপ্তার এবং তাদের স্বীকারোক্তি থেকে জানতে পারি আমার মেয়েকে তারা খুন করে লাশ নদীতে ফেলে দিয়েছে। আমরা মেয়ের লাশ দেখতে চেয়েছিলাম। কিন্তু রোববার বিকেলে অপরিচিত একটি নম্বর থেকে ইকবাল নামে এক যুবক জানায়, সে আমার মেয়েকে বিয়ে করেছে। মেয়ে কথাও বলতে চায়। পরে মেয়ে ফোনে জানায়, তার চার হাজার টাকা লাগবে। পরে বিষয়টি এসআই শামীমকে জানালে পুলিশের সহায়তায় মেয়েকে বন্দর থেকে উদ্ধার করি। এ সময় ইকবালকেও আটক করা হয়। তিনি আরও বলেন, তার দুই মেয়ের মধ্যে এই মেয়ে ছোট। সে স্থানীয় একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী। শারীরিক একটু অসুবিধা থাকায় সে লেখাপড়ায় বেশি এগোতে পারেনি।

ওই কিশোরীর বাবা জানান, গত ৪ জুলাই বাসা থেকে বের হয়ে মেয়েটি নিখোঁজ হয়। খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে ১৭ জুলাই সদর মডেল থানায় সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) করেন তিনি। এরপর ৬ আগস্ট পুলিশ তিনজনকে গ্রেপ্তার করলে ওইদিনই থানায় একটি অপহরণ মামলা করা হয়। পরে ৯ আগস্ট আসামিরা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোস্তাফিজুর রহমান সংবাদমাধ্যমকে বলেন, মেয়েটিকে উদ্ধারের পর আমরা জানতে পেরেছি, আসলে তাকে ধর্ষণ করা হয়নি। ৪ জুলাই সে আবদুল্লাহকে ফোন করে। আবদুল্লাহ তাকে শহরের একটি বাজারে আসতে বলে। কথা অনুযায়ী মেয়েটি সেখানে যায় এবং একটি চিপস খেতে চায়। আবদুল্লাহ চিপস আনতে গিয়ে আর ফিরে আসেনি। ফলে মেয়েটি তার সাবেক প্রেমিক ইজিবাইক চালক ইকবালকে ফোনে তাকে নিয়ে যেতে বলে। ইকবাল এসে মেয়েটিকে নিয়ে যাত্রাবাড়ি তার ভাইয়ের বাসায় যায়। পরে মেয়েটিকে নারায়ণগঞ্জের গোগনগর এলাকায় ইকবালের খালাতো ভাই সুজনের বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে বন্দরের কুশিয়ারা এলাকায় বাসা ভাড়া নেয় এবং মেয়েটিকে বিয়ে করে সেখানেই রাখে।

পুলিশি নির্যাতনের মুখে আসামিরা ধর্ষণ ও হত্যার কথা স্বীকার করেছে- আসামির স্বজনদের এমন অভিযোগের বিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান সংবাদমাধ্যমকে বলেন, এখন ওই মেয়ে সুস্থ ও স্বাভাবিকভাবে ফিরে এসেছে। বলছে, এক ছেলের সঙ্গে পালিয়ে গিয়েছিল। এ ঘটনায় তদন্ত চলছে। পুলিশের বিরুদ্ধে এমন কোনো অভিযোগ বা দায়িত্বে অবহেলা পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Previous articleস্বামীকে মারধরের প্রতিবাদ করায় গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা, আটক ৩
Next articleডা. সিরাজুল ইসলাম মেডিকেলে র‍্যাবের অভিযান
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।