বৃহস্পতিবার, মে ২৩, ২০২৪
Homeআইন-আদালতদুই হাজার কোটি টাকা পাচার: ফরিদপুরের দুই সহোদর রুবেল-বরকতসহ ৪৬ জনের বিরুদ্ধে...

দুই হাজার কোটি টাকা পাচার: ফরিদপুরের দুই সহোদর রুবেল-বরকতসহ ৪৬ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র গ্রহণ

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত ২ হাজার কোটি টাকার বেশি পাচারের মামলায় ফরিদপুরের দুই সহোদর ইমতিয়াজ হাসান রুবেল ও সাজ্জাদ হোসেন বরকতসহ ৪৬ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) গ্রহণ করেছেন আদালত।

ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আস সামছ জগলুল হোসেন সিআইডির দেওয়া সম্পূরক চার্জশিট আজ সোমবার গ্রহণ করেন। এ ছাড়া আদালত পলাতক রুবেল-বরকতের স্ত্রীসহ ৩৬ জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। একই সঙ্গে আগামী ৩০ মে গ্রেপ্তার সংক্রান্ত তামিল প্রতিবেদন দাখিলের জন্য পরবর্তী তারিখ ধার্য করেন আদালত।

মামলার অপর ১০ আসামির মধ্যে ইমতিয়াজ হাসান রুবেল, সাজ্জাদ হোসেন বরকত এবং এএইচ এম ফুয়াদ কারাগারে আছেন। এদিন তাদের আদালতে হাজির করা হয়। জামিনে থাকা সাবেক মন্ত্রী খন্দকার মোশারফ হোসেনের ভাই খন্দকার মোহতেশাম হোসেন ওরফে বাবর, সাংবাদিক মোহাম্মাদ আরিফুর রহমান দোলন, ফরিদপুর শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি খন্দকার নাজমুল হাসান লেভী ও শহর যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসিবুর রহমান ফারহান, ফাহাদ বিন ওয়াজেদ ওরফে ফাহিম, কামরুল হাসান ডেভিড ও তরিকুল ইসলাম নাছিম আদালতে হাজিরা দেন। সংশ্লিষ্ট আদালতের অতিরিক্ত পিপি তাপস কুমার পাল বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হওয়া আসামিরা হলেন- নিশান মাহমুদ ওরফে শামীম, বিল্লাল হোসেন, সিদ্দিকুর রহমান ওরফে সিদ্দিক, সাইফুল ইসলাম জীবন, অনিমেষ রায়, সামচুল আলম চৌধুরী, দিপক মজুমদার, সাবেক পৌর মেয়র শেখ মাহতাব আলী মেথু, সত্যজিত মুখার্জি, সহিদুল ইসলাম ওরফে মজনু, ফকির মো. বেলায়েত হোসেন, গোলাম মো. নাসির, জামাল আহমেদ ওরফে জামাল, বেলায়েত মোল্লা, আফজাল হোসেন খান ওরফে শিপলু, অমিতাভ বোস, চৌধুরী মো. হাসান, জাফর ইকবাল ওরফে হারুন মন্ডল, বরকতের স্ত্রী আফরোজা পারভীন, রুবেলের স্ত্রী সোহেলী ইমরোজ পুনম, সাহেব সারোয়ার, সাজ্জাদ হুসাইন বাবু, স্বপন কুমার পাল, জাহিদ ব্যাপরী, খলিফা কামাল, নাজিমুল হোসেন ওরফে তাপস, রিয়াজ আহমেদ শান্ত, আনোয়ার হোসেন আবু, মোহাম্মাদ মনিরুজ্জামান ওরফে মনিরুজ্জামান মামুন, মাহফুজুর রহমান মামুন, সুমন সাহা, আব্দুল জলিল সেখ ওরফে জলিল, রফিক মন্ডল, আজমল হোসেন খান ওরফে ছোট আজম, মোহাম্মাদ আলী ওরফে মিনার ও ঠিকাদার খন্দকার শাহীন আহমেদ ওরফে পান শাহীন।

প্রসঙ্গত, এ মামলায় বরকত ও রুবেলসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে প্রথম চার্জশিট দাখিল হয়। এরপর মামলাটি বিচারের জন্য ঢাকার ১০ নম্বর বিশেষ জজ আদালতে যায়। সেখানে এ মামলায় আদালতে স্বীকারোক্তি দেওয়া এবং স্বীকারোক্তিতে নাম আসা ৪২ জনকে বাদ দেওয়ায় রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনে মামলাটি অধিকতর তদন্তের আদেশ দেন আদালত। অধিকতর তদন্তের পর গত বছর ২৫ জুন আরও ৩৬ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে সম্পূরক চার্জশিট দাখিল করে পুলিশ।

২০২০ সালের ২৬ জুন রাজধানীর কাফরুল থানায় অর্থ পাচারের অভিযোগে বরকত ও রুবেলের বিরুদ্ধে সিআইডির পরিদর্শক এসএম মিরাজ আল মাহমুদ বাদী হয়ে মামলাটি করেন। মামলায় ওই দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে ২ হাজার কোটি টাকার সম্পদ অবৈধ উপায়ে উপার্জন ও পাচারের অভিযোগ আনা হয়। ২০১২ সালের মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন সংশোধনী-২০১৫-এর ৪ (২) ধারায় এ মামলা করা হয়। এজাহারে বলা হয়, ২০১০ সাল থেকে এখন পর্যন্ত ফরিদপুরের এলজিইডি, বিআরটিএ, সড়ক বিভাগসহ বিভিন্ন সরকারি বিভাগের ঠিকাদারি নিয়ন্ত্রণ করে বিপুল পরিমাণ অবৈধ সম্পদের মালিক হয়েছেন বরকত-রুবেল। এ ছাড়া মাদক কারবার, ভূমি দখল করে অবৈধ সম্পদের পাহাড় গড়েছেন তাঁরা। এসি, নন-এসিসহ ২৩টি বাস, ট্রাক, বোল্ডার, পাজেরো গাড়ির মালিক হয়েছেন। টাকার একটি অংশ হুন্ডির মাধ্যমে বিদেশে পাচার করেন এই সহোদর।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments