খালেদা জিয়ার মুক্তির ব্যাপারে সংলাপে আলোচনা প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘আমাদের ৭ দফা দাবির মধ্যে প্রথম দফাই ছিল বেগম জিয়ার মুক্তি। তারপর সরকারের পদত্যাগ, সংসদ নির্বাচন এবং একই সঙ্গে নির্বাচন কমিশনের পুনর্গঠন। এ বিষয়ে বৈঠকে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। বিষয়টি নিয়ে আমরা প্রস্তাব করেছি,আলোচনা চালিয়ে যেতে চাই।’বুধবার গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ১৪ দলীয় জোট ও ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের দ্বিতীয় দফা সংলাপ শেষে বিকেলে বেইলি রোডে সংবাদ সম্মেলন করেন ঐক্যফ্রন্টের নেতারা।নির্বাচন কমিশন বৃহস্পতিবার তফসিল ঘোষণা করতে যাচ্ছে-এ প্রসঙ্গে সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘তফসিলের সঙ্গে আলোচনার কোনো সম্পর্ক থাকবে না। প্রয়োজনে তফসিল আবার পরেও ঘোষণা করা যাবে। ওটাকে রিসিডিউল করা যেতে পারে।’দ্বিতীয় দফায় সংলাপ করে আপনারা কি পেলেন এমন প্রশ্নের উত্তরে নাগরিক ঐক্যের আহ্ববায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘আমরা সেখানে তফসিল ঘোষণা করতে মানা করেছি। তারপরও যদি তারা করে, তাহলে সেটা আমরা পছন্দ করবো না। আমরা আমাদের কর্মসূচিতে আগে বলেছিলাম, আমরা পদযাত্রা করবো নির্বাচন কমিশন অভিমুখে। এবং আমরা বলেছি, এটা বিরোধিতা, আমরা মানছি না। তফসিল তো আবারও করা যেতে পারে। রিসিডিউল করা যেতে পারে। সেই দাবি করা হয়েছে।’সংলাপ ফলপ্রসূ হয়েছে কি না জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল সাংবাদিকদের বলেন, ‘আপনি কী শুনলেন এতক্ষণ ধরে? ফলপ্রসূ হলো কি হলো না বোঝা যাবে না, কারণ আমরা বলেছি, এটা অব্যাহত আছে।’আপনারা কতটুকু আশাবাদী বা আশার আলো দেখছে কি না জানতে চাইলে ফখরুল বলেন, ‘জনগণ যদি আশার আলো দেখে, তাহলেই দেখা হবে। কালকে আমরা যাচ্ছি রাজশাহী এবং আমরা পরশু রাজশাহীতে জনসভা করছি।’এ সময় ঐক্যফ্রন্টের ৭ দফা দাবির মধ্যে কয়টি সরকার মেনেছে, কয়টি মানেনি জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা তো পুরোটাই বিবেচনা করবো। বিবেচনার পর যে বিষয়েই সিদ্ধান্ত হবে আমরা তা আপনাদের জানাবো।’খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তির ব্যাপারে কোনো কথা হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি আরও বলেন, ‘না, আমরা এ ধরনের কোনো কথা বলিনি। কোনো প্রস্তাবই দেইনি। সে বিষয়ে কোনো আলোচনা হয়নি। খালেদা জিয়ার মুক্তির ব্যাপারে অবশ্যই আলোচনা হয়েছে এবং সেই আলোচনায় আমরা জোর দিয়ে বলেছি,তিনি তো আইনগতভাবেই মুক্তি পাওয়ার যোগ্য, জামিন পাওয়ার যোগ্য।’ আগামীকাল তফসিল ঘোষণা করলে আপনারা কি নির্বাচন কমিশন অভিমুখে পদযাত্রা শুরু করবেন এমন প্রশ্নের উত্তরে ফখরুল বলেন, ‘আমাদের কর্মসূচি দেওয়া আছে।’তফসিল পিছিয়ে দেয়ার ব্যাপারে আ. লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সংবিধানের বাইরে তারা যাবে না। এ বিষয়টি জানিয়ে ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের প্রশ্ন করা হলে নাগরিক ঐক্যের আহ্ববায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘এই বিষয়টাই আমরা বলেছি। আমরা বলেছি যে সংসদ ভেঙে দিতে হবে। সংসদ ভেঙে দেওয়ার ৯০ দিন পরেই তো নির্বাচন হবে। সংসদ ভেঙে দেওয়াটা সংবিধানের অন্তর্গত। একই সঙ্গে দুটো সংসদ থাকবে এটা তো কোনো নিয়মেই হতে পারে না। ওনারা যদি বলে কোনো অবস্থা নাই, তাহলে সম্পূর্ণ ভুল বলেছেন। সংবিধানের মধ্যেই আছে, সেই ক্ষেত্রে ৯০ দিন পরে নির্বাচন হবে এটাই তো স্বাভাবিক।’সংলাপ শেষে সুনির্দিষ্টভাবে ওবায়দুল কাদের বলেছেন আপনাদের সভা-সমবেশের অনুমতি এবং গায়েবি মামলা না দেওয়ার ব্যপারে আশ্বস্ত করা হয়েছে বাকি দাবি সংবিধানপরিপন্থী সুতরাং সেগুলো মেনে নেওয়ার সুযোগ নেই্।  এ অবস্থায় গতকাল ঐক্যফ্রন্ট জানিয়েছিল দাবি না মানলে আন্দোলন করবে। এ বিষয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা আন্দোলনে আছি তো। আমরা কালকেই ঘোষণা দিয়েছি আগামীকাল আমরা রোডমার্চ করব এই সাত দফা দাবিতে। আমরা রাজশাহীতে জনসভা করব এবং আগামীকাল নির্বাচন কমিশন তফসিল ঘোষণা না করে নির্বাচন কমিশন অভিমুখী আমাদের পদযাত্রা হবে। আমরা আন্দোলনেই আছি।’মূল দাবির কোনোটাই সরকার মানেনি, এই সংকট সংলাপেই নিরসন সম্ভব কিনা সংবাদিকদের এমন প্রশ্নে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আমরা সব সময় সংলাপ আন্দোলনের অংশ হিসেবে নিয়েছি। পার্ট অব আওয়ার মুভমেন্ট। এখন পর্যন্ত বিশ্বাস করি আলোচনার মাধ্যমেই সমস্যার সমাধান হওয়া উচিত। কিন্তু সরকার যদি সেই পথে না আসে, সরকার যদি আলোচনার একটা জায়গায় না পৌঁছতে চায় তবে সেটার দায়-দায়িত্ব সরকারের ওপর বর্তাবে।’এ সময় মান্না বলেন, ‘আর একটা কথা বলি শোনেন প্রধানমন্ত্রী এটাও আশ্বস্ত করেছেন-আর কোনো ‍গ্রেপ্তার হবে না, আর কোনো নতুন মামলা দেওয়া হবে না। উনি আশ্বস্ত করেছেন এ ব্যাপারে।’নির্বাচনকালীন সরকারের ১০ জন উপদেষ্টা এবং একজন প্রধান উপদেষ্টা। এটা ২০১৪ সালের নির্বাচনের আগে প্রত্যাখ্যান করে নির্বাচন করেছেন- এ ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘এটা আসার প্রশ্ন না। এটা আমরা চাচ্ছি জনগণের দাবি হিসেবে। এটা যদি সরকার না মানে তবে আমরা আন্দোলনের মাধ্যমে আদায় করার চেষ্টা করব।’প্রথম সংলাপে আপনার সন্তুষ্ট না, দ্বিতীয় সংলাপে আপনারা কি পেলেন? এ প্রশ্নে বিএনপির এ নেতা বলেন, ‘পাওয়ার ব্যাপারটা একটা রিলেটিভ ব্যাপার। আমরা আমাদের দাবি-দাওয়া নিয়ে সরকারের কাছে গেছি। সরকার বলেছে, তারা ভবিষ্যতে এগুলো নিয়ে আলোচনা করে দেখতে পারে। সুযোগ আছে আলোচনার। আমরা আমাদের দাবি নিয়ে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করে আমরা এ আন্দোলন সফল করব।’প্রথম দফার আলোচনায় অসন্তুষ্ট, তবে দ্বিতীয় দফার সংলাপে আপনি সন্তুষ্ট কিনা এমন প্রশ্নে ফখরুল বলেন, ‘সন্তুষ্ট-অসন্তুষ্টের ব্যাপার এখন বলতে চাচ্ছি না। আমরা এখন জনগণের কাছে যেতে চাচ্ছি। জনগণকে দিয়েই আমরা সন্তোষ আদায় করব।’রাজনীতির গতিপ্রকৃতি সমঝতার দিকে যাচ্ছে না শন্তিপূর্ণ অবস্থায় থাকবে এমন প্রশ্নের জবাবে ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম নেতা ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল বলেন, ‘এর দায়দায়িত্ব সরকারের। আমরা তো সেই চেষ্টা করেই গেছি, করেই যাচ্ছি, করেই যাবো যে একটা স্থিতিশীল-শান্তিপূর্ণ অবস্থার মধ্যে এটা হোক। তবে দায়িত্ব সরকারের।’তৃতীয় দফা সংলাপের চিঠি কবে দিচ্ছেন এ ব্যাপারে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এ ব্যাপারে বলতে পারব না। এটাতো প্রশ্ন নয়।’আপনারা সংসদ ভেঙে দিয়ে নির্বাচনকালীন সরকারের কথা বলছেন এটার সুযোগ নেই এবং নির্বাচন পেছানোর ষড়যন্ত্র করছেন। ওবায়দুল কাদেরের এমন অভিযোগের ব্যাপারে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘এই কথা বলার অর্থই হচ্ছে জনগণের সাথে তাদের কোনো সম্পর্ক নেই। জনগণের যে দাবি তাদের প্রতি তাতে শ্রদ্ধা নেই। সেই কারণে তারা এই কথা বলতে পারছে। আজকে নির্বাচন পেছানোর দাবি করছি একটা অর্থবহ নির্বাচনের জন্য। একটা ইফেক্টিভ, একটা ফলপ্রসূ একটা আলোচনার মাধ্যমে, সংলাপের মাধ্যমে আসে সেটাই চেষ্টা করছি। এটা পেছানোর জন্য না, মানুষের দাবি নিয়ে আমার এগোচ্ছি।’