সদরুল আইন: খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যা মামলার আসামি অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলার স্ত্রী ও তার পরিবারের সদস্যদের। তালা ঝুলছে ফেনীর পাঠানবাড়ী এলাকায় অবস্থিত সিরাজউদ্দৌলার ‘ফেরদৌস মঞ্জিল’ নামে দোতলা বাড়িটির দরজায়।

সিরাজউদ্দৌলার ব্যাংক হিসাব থেকে তার স্ত্রী ফেরদৌস আক্তার ১৮ লাখ টাকা তুলে নিয়ে উধাও হয়ে গেছেন।

গতকাল (রোববার) অধ্যক্ষ সিরাজের পরিবারের খোঁজে সে বাড়িতে স্থানীয় সাংবাদিকরা গেলে বাড়িটির সদর দরজায় তালা ঝুলতে দেখেন।

স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, ওই পরিবারের সদস্যরা কয়েকদিন আগে ঘরে তালা দিয়ে পালিয়ে গেছেন।

কোথায় গেছেন প্রশ্নে প্রতিবেশিরা কিছু বলতে পারেননি। তবে তারা ধারণা করেছেন, ফেনীতেই কোনো নিকটাত্মীয়ের বাড়িতে গিয়ে উঠেছেন অধ্যক্ষ সিরাজের পরিবারের সদস্যরা।

স্ত্রী ফেরদৌস আক্তারসহ অধ্যক্ষ সিরাজের পরিবারে ২ ছেলে ও ২ মেয়ে রয়েছে। বড় ছেলে একটি বেসরকারি মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থী।

ছোট ছেলে ফেনী সরকারী কলেজে অনার্স পড়ছেন। মেয়েরাও স্থানীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী। নুসরাত হত্যা ঘটনার পর এদের কাউকেই আর এলাকায় দেখা যাচ্ছে না।

এদিকে নুসরাত জাহান রাফির বাবা-মা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেছেন। সোমবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে যান নুসরাতের বাবা একেএম মুসা ও মা শিরিনা আক্তারসহ দুই ভাই।

এসময় প্রধানমন্ত্রী নুসরাতের পরিবারের প্রতি সান্ত্বনা ও গভীর সমবেদনা জানান। তিনি বলেন, দুষ্কৃতকারীরা কেউই আইনের হাত থেকে রেহাই পাবে না। প্রধানমন্ত্রী তাদের সব প্রকার সহযোগিতা করার আশ্বাসও দেন।

গত ৬ এপ্রিল সকালে আলিম পরীক্ষা দিতে সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসায় যান নুসরাত জাহান রাফি। মাদ্রাসাছাত্রী তার বান্ধবী নিশাতকে ছাদের ওপর কেউ মারধর করছে এমন সংবাদে তিনি ছাদে যান।

সেখানে বোরকাপরা ৪-৫ জন তাকে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলার বিরুদ্ধে করা শ্লীলতাহানির মামলা তুলে নিতে চাপ দেয়।

অস্বীকৃতি জানালে তারা রাফির গায়ে আগুন দিয়ে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় সোমবার রাতে অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলার ও পৌর কাউন্সিলর মুকছুদ আলমসহ আটজনের নাম উল্লেখ করে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা করেন অগ্নিদগ্ধ রাফির বড় ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান।

গত ২৭ মার্চ ওই ছাত্রীকে নিজ কক্ষে নিয়ে শ্লীলতাহানি করেন অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলা। এ ঘটনায় ছাত্রীর মা শিরিন আক্তার বাদী হয়ে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা করেন।

ওই দিনই অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলাকে আটক করে পুলিশ। সে ঘটনার পর থেকে তিনি কারাগারে আছেন।

এদিকে নুসরাত হত্যার দায় স্বীকার মামলার দ্বিতীয় নুর উদ্দিন ও তৃতীয় আসামি শামীম জবানবন্দি দিয়েছেন।

Previous articleবর্ণাঢ্য আয়োজনে পাবনার সাঁথিয়ায় বাংলা নববর্ষ পালিত
Next articleরংপুরে বেসরকারি টিভি চ্যানেল মাইটিভি‘র দশম বর্ষে পর্দাপন অনুষ্টান
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।