সোমবার, জুলাই ১৫, ২০২৪
Homeজাতীয়দিনের পর দিন ক্লাস বন্ধ রাখা সহ্য করা হবে না : প্রধানমন্ত্রী

দিনের পর দিন ক্লাস বন্ধ রাখা সহ্য করা হবে না : প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: দুর্নীতির অভিযোগে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের অপসারণ দাবিতে আন্দোলনকারীদের প্রতি তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘অভিযোগ প্রমাণ করতে ব্যর্থ হলে অভিযোগকারীদের অবশ্যই শাস্তি পেতে হবে।’

আজ বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত সাংবাদিকদের পরিবারের পাশাপাশি অসুস্থ, আর্থিকভাবে অসচ্ছল ও আহত সাংবাদিকদের বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের আর্থিক সহায়তার চেক বিতরণকালে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। বার্তা সংস্থা ইউএনবি এ খবর জানিয়েছে।

এ সময় শেখ হাসিনা বলেন, ‘যদি তাঁরা (আন্দোলনকারীরা) অভিযোগ প্রমাণ করতে ব্যর্থ হয়, তবে তারা মিথ্যা অভিযোগ আনার জন্য শাস্তি পাবে, আমরা অবশ্যই এটি করব। কারণ, দিনের পর দিন ক্লাস বন্ধ রাখা সহ্য করা হবে না। মিথ্যা অভিযোগ উত্থাপন করা হলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

প্রধানমন্ত্রী জানান, তিনি এরই মধ্যে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অভিযোগকারীদের সব অভিযোগ, বক্তব্য ও ভিডিও ফুটেজ সংরক্ষণে রাখার নির্দেশনা দিয়েছেন।

অভিযোগকারীদের অবশ্যই অভিযোগের প্রমাণ দিতে হবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, ‘যদি কেউ প্রমাণ করতে ব্যর্থ হয়, তবে অভিযোগকারীকে একই শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে, যেহেতু আইনে এটি বর্ণিত আছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘তাঁরা ভিসিকে দুর্নীতিগ্রস্ত বলছেন। আমি দ্ব্যর্থহীনভাবে বলতে চাই যে, যাঁরা দুর্নীতির অভিযোগ আনছেন, তাঁদের এই অভিযোগ প্রমাণ করতে হবে এবং তথ্য সরবরাহ করতে হবে। যদি তাঁরা তথ্য সরবরাহ করতে পারেন, তবে আমরা অবশ্যই ব্যবস্থা নেব (দুর্নীতির বিরুদ্ধে)।’

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, ‘আন্দোলনের নামে উপাচার্যের বাড়ি, অফিস ভাঙচুরের পাশাপাশি ক্লাস ও বিশ্ববিদ্যালয় চালাতে বাধা দেওয়াও এক ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড।’

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী মো. মুরাদ হাসান, তথ্য মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান হাসানুল হক ইনু প্রমুখ।

দুর্নীতির বিভিন্ন অভিযোগ এনে ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’-এর ব্যানারে বেশ কয়েকদিন ধরে উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলামের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলন করছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। সম্প্রতি আন্দোলনকারী শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও ভিসিপন্থী শিক্ষক ও ছাত্রলীগের সংঘর্ষের ঘটনার পর ক্যাম্পাস অনির্দিষ্টকালের বন্ধ ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ। তবে আন্দোলনকারীরা প্রশাসনের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে উপাচার্য বিরোধী আন্দোলন অব্যাহত রেখেছেন।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments