ভারতের নর্দমার পানি ঢুকছে বাংলাদেশে, স্বাস্থ্যঝুঁকিতে ১৫ গ্রামের মানুষ

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ভারতের আগরতলার নর্দমার পানি খালের মাধ্যমে ঢুকছে বাংলাদেশে। যা নদী ও কৃষিজমিতে মিশে নষ্ট হচ্ছে জীব বৈচিত্র্য, দূষিত হচ্ছে পরিবেশ এবং দেখা দিচ্ছে রোগবালাই। এতে চরম স্বাস্থ্য-ঝুঁকিতে আখাউড়া উপজেলার ১৫টি গ্রামের মানুষ। বার বার তাগাদার পরও ব্যবস্থা নিচ্ছে না ত্রিপুরা সরকার। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় দ্রুত দূষণ রোধের দাবী সংশ্লিষ্টদের।

গেল কয়েক দশক ধরে কালন্দি খালের মাধ্যমে, প্রতিবেশী দেশ ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের আগরতলা থেকে দূষিত পানি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া দিয়ে দেশে ঢুকছে। প্রায় ১৫ ফুট প্রশস্ত এই খালের পানিতে বিষাক্ত কেমিকেল, সোয়ারেজ বর্জ্য, পলিথিন ও বিভিন্ন খাবার-জাত প্যাকেট, পরিত্যক্ত প্লাস্টিক ও কাঁচের বোতল এবং অন্যান্য পচনশীল দ্রব্যের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে।
এক সময় খালটি মিঠা পানির অন্যতম উৎস ছিল। বর্তমানে দূষিত পানির কারণে কালো রঙ ধারণ করায় ‘কালন্দী’ খাল নামে পরিচিতি পেয়েছে। এর ফলে সীমান্তবর্তী ১৫টি গ্রামের মানুষ চরম স্বাস্থ্য-ঝুঁকিতে রয়েছে। সেই সাথে ১৫শ’ হেক্টর ধানের জমির উর্বরা শক্তিও দিন দিন নষ্ট হচ্ছে।
এলাকাবাসী জানান, আগরতলায় যত বসতবাড়ি আছে তাদের টয়লেটের বর্জ্যসহ অন্যান্য সব বর্জ্য এই নদীতে ফেলে। এটা পরিবেশ এবং স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ক্ষতিকর এতে করে প্রচুর পরিমাণ মশা জন্মাচ্ছে। তারা বলেন, তাদের নরদমার পানি দিন দিন বাড়ছেই। নদীর পানিটা যদি শুধন করে দেয় তা হলে আমাদের জন্য ভালো।
জেলা প্রশাসক জানান, বিষাক্ত এ পানি বাংলাদেশে প্রবেশের আগে পরিশোধন করতে ইটিপি স্থাপনের আশ্বাস দিলেও এখন পর্যন্ত কিছুই করেনি ত্রিপুরা রাজ্য সরকার।
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক হায়াত উদ দৌলা খান জানান, তারা আমাদের আশ্বস্ত করেছেন আগামী ১ বছরের মধ্যে সকল কাজ সম্পূর্ণ করে এবং বাংলাদেশে যেনও দূষিত পানি প্রবেশ না করে সে বিষয়ে তারা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন এবং এই লক্ষ্যে একটা রেজুলেসন উভয় পক্ষ সম্মত হয়ে স্বাক্ষর করেছেন।
দুর্গন্ধযুক্ত দূষিত পানির কারণে নষ্ট হচ্ছে পরিবেশের ভারসাম্য। এলাকায় পশু পাখির বিচরণও দিন দিন কমে যাচ্ছে। আখাউড়া বাসি দ্রুত এই সমস্যা থেকে মুক্তি চান।