বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নির্বাচন কমিশনের আর্থিক অনিয়ম, দুর্নীতি ও নানা অভিযোগ নিয়ে রাষ্ট্রপতিকে আবারো চিঠি দিয়েছেন বিশিষ্ট নাগরিকরা। এ দফায় চিঠির সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছে মহা হিসাব নিয়ন্ত্রকের অডিট আপত্তি রিপোর্ট। একই সঙ্গে গণমাধ্যমে প্রকাশিত কমিশনের আর্থিক অসংগতির প্রতিবেদনও জমা দেওয়া হয় এ দফায়।

রোববার (৩০ জানুয়ারি) গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানান সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ড. শাহদীন মালিক।

বিজ্ঞপ্তিতে তিনি বলেন, গত ১৪ ডিসেম্বর ৪২ জন নাগরিকের পক্ষ থেকে রাষ্ট্রপতির কাছে বর্তমান নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে উত্থাপিত আর্থিক অনিয়ম, দুর্নীতি ও অর্থসংশ্লিষ্ট গুরুতর অসদাচরণ এবং নির্বাচনসংশ্লিষ্ট অনিয়ম ও অন্যান্য গুরুতর অসদাচরণের অভিযোগে চিঠি দেওয়া হয়। এটি তদন্ত করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ সংবিধানের ৯৬ অনুচ্ছেদের অধীনে সুপ্রিম জুডিশিয়াল গঠন করার আবেদন জানানো হয়। পরবর্তীতে ১৭ জানুয়ারি রাষ্ট্রপতির সিদ্ধান্ত গ্রহণে সহায়তা করার লক্ষ্যে উপরিউক্ত আবেদনের সংযুক্তি হিসেবে আরেকটি চিঠি প্রেরণ করা হয়।

চিঠির সঙ্গে নির্বাচন কমিশনের প্রশিক্ষণের জন্য বরাদ্দ করা অর্থ সম্পর্কিত অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে একটি বেসরকারি টেলিভিশনের সাত পর্বের ধারাবাহিক প্রতিবেদনের কপি সংযোজন করা হয়। আরও সংযোজন করা হয় একই বিষয়ে মহা হিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রকের (সিএজি) দফতর কর্তৃক উত্থাপিত অডিট আপত্তি নিয়ে গণমাধ্যমে প্রকাশিত কয়েকটি প্রতিবেদনের কপি।