বাংলাদেশ প্রতিবেদক: প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদ আনন্দ শেষে রাজধানী ঢাকাসহ আশপাশের জেলাগুলোতে ফিরতে শুরু করেছে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষ। ঘাটে যাত্রী ও যানবাহনের চাপ গত কয়েক দিনের তুলনায় কিছুটা স্বাভাবিক হলেও আজ সকাল থেকেই রয়েছে ঘাট এলাকায় ঢাকামুখী যাত্রীদের ঢল। বাংলাবাজার ঘাট থেকে শিমুলিয়াগামী প্রতিটি ফেরি, লঞ্চ ও স্পিডবোটই ছিল যাত্রীতে ভরপুর।

এদিকে অল্প সংখ্যক ফেরি চলাচল করায় ঘাট এলাকায় পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে অসংখ্য যানবাহন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, শনিবার (৭ মে) ভোর থেকেই লঞ্চ, স্পিডবোট ও ফেরিঘাটে উপচে পড়া ভিড়। সীমিত সংখ্যক ফেরি চলাচল করায় ঘাট এলাকায় যাত্রীদের ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে দেখা গেছে। তীব্র গরমে দীর্ঘসময় ঘাটে আটকে থেকে নারী, শিশুসহ যাত্রীরা ভোগান্তি পোহাচ্ছে। একই সাথে বাংলাবাজার ঘাটে পারাপারের জন্য শত শত যাত্রীবাহী, ব্যক্তিগত ও পণ্যবাহী যানবাহন ও কয়েক হাজার মোটরসাইকেল অপেক্ষা করছে।

বাংলাবাজার ঘাটে সকাল থেকে মোটরসাইকেল নিয়ে একের পর এক ফেরি ছেড়ে যাচ্ছে শিমুলিয়া ঘাটে। তারপরও ৪ নং ঘাটের কাছে মোটরসাইকেলের দীর্ঘ সারি অপেক্ষমাণ রয়েছে।

বাংলাবাজার ঘাট সূত্রে জানা যায়, শনিবার বেলা বাড়ার সাথে সাথেই রাজধানীমুখী যাত্রীদের ভিড় বাড়তে থাকে শিবচরের বাংলাবাজার ঘাটে। লঞ্চ ও স্পিডবোট ঘাটে হাজারো যাত্রীর ভিড়। সকালে লঞ্চগুলোতে ধারণ ক্ষমতার বেশি যাত্রী বহনের অভিযোগ ছিল। তবে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুন ও শিবচর উপজেলা
নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আসাদুজ্জামানের নেতৃত্বে প্রশাসনের টিমের তদারকিতে লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী বহন নিয়ন্ত্রণে আসে। এছাড়া স্পিডবোট ঘাটেও যাত্রীদের উপচেপড়া ভিড়। দীর্ঘক্ষণ সিরিয়ালে দাঁড়িয়ে থেকে টিকিট নিতে হচ্ছে যাত্রীদের। এদিকে প্রচুর গরমে অসুস্থ হয়ে পড়ছেন যাত্রীরা।

ঢাকা মিরপুরগামী যাত্রী ফরহাদ হোসেন জানান, পাঁচ ঘণ্টা হয় মোটরসাইকেল নিয়ে সিরিয়ালে দাঁড়িয়ে আছি। ‘মারাত্মক গরমে হাঁপিয়ে উঠেছি। ঢাকা যেতে পারলে হয়তো শরীরে জ্বর চলে আসবে। তারপরও যেতে হবে, কারণ কাল থেকে অফিস শুরু।

বরিশাল থেকে আসা যাত্রী খলিল মিয়া জানান, ‘ঈদ এলেই আমাদের দুর্ভোগে পড়তে হয়। ঘাটে এলে ফেরিতে উঠতে পারি না। লঞ্চে যাত্রীদের ব্যাপক চাপ। পা ফেলার জায়গা নেই। ভাড়া খুব বেশি না নিলেও যাত্রীদের চাপে শেষ হয়ে যাই। যদি লঞ্চে ট্রিপের সংখ্যা বাড়ানো যায়, তাহলে দুর্ভোগ কমবে। আর পুলিশ যদি লঞ্চের মালিকদের চাপ দেয় কম যাত্রী নিতে, তাহলে সমস্যা থাকে না।’

খুলনা থেকে আসা যাত্রী মাহফুজ আহমেদ বলেন, গরমে অসুস্থ হয়ে পড়েছি। ঘাটে প্রচুর চাপ। সেইসাথে গরম। ভিড়ের মধ্যে নারী-শিশুরা বিপাকে পড়েছে।

আরেকযাত্রী আলভী আক্তার বলেন, ‘পদ্মাসেতু চালু থাকলে ঘাটের দুর্ভোগ পোহাতে হতো না। সুবিধামতো সময়ে রওনা দিয়ে নির্বিঘ্নে ঢাকা যেতে পারতাম। এখন যানবাহনে বাড়তি ভাড়া, যাত্রীদের ভিড় মাথায় নিয়ে ছুটতে হচ্ছে।’

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) বাংলাবাজা লঞ্চঘাট সূত্রে জানা যায়, সকাল থেকেই যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড় রয়েছে। নৌরুটে ৮৭টি লঞ্চ চলছে। ঢাকাগামী যাত্রীদের চাপ বেশি থাকায় পাঁচ-সাত মিনিটের মাথায় একেকটি লঞ্চ ঘাট ছেড়ে যাচ্ছে। সেক্ষেত্রে শিমুলিয়া থেকে লঞ্চ আসার অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে
যাত্রীদের। লঞ্চে ধারণ ক্ষমতা মেনে যাত্রী পার করা হচ্ছে। তবে যাত্রীদের ভিড় বেশি থাকায় মাঝে মধ্যে বিপাকে পড়তে হচ্ছে। ভিড় বাড়লে একযোগে যাত্রীরা লঞ্চে উঠে যাচ্ছে। তবে বাড়তি যাত্রী বহন না করার ক্ষেত্রে কঠোর মনিটরিং করা হচ্ছে।

অপরদিকে স্পিডবোটে যাত্রীদের ভিড় রয়েছে। সিরিয়ালে দাঁড়িয়ে যাত্রীরা স্পিডবোটে উঠছেন। নৌরুটে নিবন্ধিত দেড় শতাধিক স্পিডবোট রয়েছে। শিমুলিয়া ঘাটে যাত্রী নামিয়ে দিয়েই স্পিডবোটগুলো বাংলাবাজার ঘাটে ফিরে আসছে।

বিআইডব্লিউটিএ’র বাংলাবাজার ঘাটের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর আক্তার হোসেন বলেন, ‘প্রতিবারই ঈদ শেষে ফেরার পথে যাত্রীদের চাপ একটু বেশি থাকে। নৌযানে যাত্রীদের প্রচুর চাপ রয়েছে রোববার সকাল থেকেই। ধারণক্ষমতা অনুযায়ী যাত্রীদের লঞ্চে উঠানো হচ্ছে। যাত্রীচাপ বেশি থাকায় দ্রুততার সঙ্গে লঞ্চ ঘাট ছেড়ে যাচ্ছে। শিমুলিয়া প্রান্তে যাত্রী নামিয়েই লঞ্চ আবার বাংলাবাজার ঘাটে ফিরে আসছে। গরমের কারণে যাত্রীদের দুর্ভোগ বেড়েছে।

বিআইডব্লিউটিসির বাংলাবাজার ঘাট ম্যানেজার মো. সালাউদ্দিন বলেন, ‘এই রুটে পাঁচটি ফেরি দিয়ে যাত্রী, জরুরি গাড়ি ও কাঁচামালবাহী গাড়ি পারাপার হচ্ছে। কিছু গাড়ি পারের অপেক্ষায় রয়েছে। প্রতিটি ফেরিতেই ব্যাপক চাপ। আমরা সিরিয়াল অনুযায়ী সব গাড়ি পার করছি। বাইকের জন্য পৃথক ঘাট করা হয়েছে।

Previous articleদুই প্রেমিকের মারামারি থামাতে গিয়ে আইসিইউতে ছাত্রলীগ নেতা
Next articleনাজিরপুরে স্ত্রীর মর্যাদার দাবিতে তরুণীর অবস্থান, স্বামীসহ সবাই পলাতক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।