বাংলাদেশ প্রতিবেদক: সরকারিভাবে খোলা বাজারে বিক্রি (ওএমএস) ও খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি চালু হওয়ায় ইতোমধ্যে বাজারে চালের দাম কেজি প্রতি পাঁচ থেকে ছয় টাকা কমেছে। চালের দাম আরো কমবে বলে জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় নওগাঁর পোরশা উপজেলার সারাইগাছি মোড়ে ওএমএস কার্যক্রম পরিদর্শন শেষে তিনি সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, আমন ধানেও কৃষকরা যেন নায্যমূল্য পায় সেটা নিয়ে কাজ করা হচ্ছে। নায্যমূল্য নিশ্চিত করতে আমরা প্রস্তুত আছি।

মন্ত্রী আরো বলেন, ১ সেপ্টেম্বর থেকে সারাদেশে ওএমএস ও খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি শুরু হয়েছে। এ কর্মসূচির মাধ্যমে দেশের ৫০ লাখ হতদরিদ্র জনগোষ্ঠীকে ১৫ টাকা কেজি দরে প্রতি মাসে ৩০ কেজি চাল দেয়া হচ্ছে। এছাড়া ওএমএস সপ্তাহে পাঁচ দিন চলছে। সারাদেশে দু’হাজার ৩৭০ জন ডিলারের মাধ্যমে ওএমএস বিতরণ করা হচ্ছে। আগে একজন ওএমএসের ডিলার এক টন চালের বরাদ্দ পেতেন। এবার প্রত্যেক ডিলার দু’টন চাল বরাদ্দ পাচ্ছেন।

ওএমএস কেন্দ্রে টিসিবি কার্ডধারীদের অগ্রাধিকার দেয়া জানিয়ে তিনি বলেন, সমাজের পিছিয়ে পড়া ও তৃতীয় লিঙ্গের মানুষেরা অগ্রাধিকার পাবেন। টিসিবি কার্ডধারীরা কার্ড দেখিয়ে ও সাধারণ মানুষ জাতীয় পরিচয়পত্র দেখিয়ে মাসে দু’বার পাঁচ কেজি করে চাল কিনতে পারবেন। এক ব্যক্তি যাতে বার বার চাল কিনতে না পারেন সেটাও নিশ্চিত করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

এ সময় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ শাহ্মঞ্জুর মোরশেদ চৌধুরী, ইউএনও (ভারপ্রাপ্ত) জাকির হোসেন, জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আলমগীর কবির, ভাইস চেয়ারম্যান কাজীবুল ইসলাম, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক রওশানুল কাওছার, সরাইগাছি খাদ্য গুদামের ওসিএলএসডি তোরাব আলীসহ অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

পরে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার প্রধান অতিথি হিসাবে কাতিপুর কালিনগর উচ্চ বিদ্যালয়ে আয়োজিত পোরশা উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সম্মেলনে যোগ দেন।

Previous articleকলাপাড়ায় ভিক্ষুকের টাকা ছিনতাই
Next articleনোয়াখালীতে সাংসদ একরাম-শাহিন সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।