বাংলাদেশ প্রতিবেদক: প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে (পিএমও) বাংলাদেশ ও ব্রুনাইয়ের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় আলোচনা শেষে তিনটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) ও একটি চুক্তি সই হয়েছে।

রোববার বিকেল ৩টা ৫০ মিনিটে শুরু হয়ে ৫টা ১৫ মিনিট পর্যন্ত এ আলোচনা চলে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৈঠকে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের এবং অপরদিকে ব্রুনাইয়ের পক্ষে সুলতান হাজী হাসানাল বলকিয়াহ নেতৃত্ব দেন।

দু’দেশের সম্পর্ককে নতুন উচ্চতায় নিতে আলোচনার পর তিনটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) ও একটি চুক্তি সই হয়।

এর আগে, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সুলতান পৌঁছালে টাইগার গেটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে স্বাগত জানান।

আলোচনার পর বাংলাদেশ ও ব্রুনাই দু’দেশের মধ্যে সরাসরি ফ্লাইট চালুর চুক্তিসহ তিনটি দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতা চুক্তি স্বাক্ষর করার সম্ভাবনা রয়েছে।

অন্য দুটি সহযোগিতার নথি বাংলাদেশী কর্মী নিয়োগ ও দু’দেশের নাবিকদের শংসাপত্রের স্বীকৃতি সংক্রান্ত।

প্রায় ১৫ হাজার বাংলাদেশী এখন তেল সমৃদ্ধ দেশ ব্রুনাইয়ে কাজ করছে।

শনিবার বিকেলে বাংলাদেশে প্রথম রাষ্ট্রীয় সফরে একটি বিশেষ ফ্লাইটে ব্রুনাইয়ের সুলতান ঢাকায় আসেন। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ২১ বন্দুকের স্যালুটের মধ্যে সুলতানকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান।

ব্রুনাই দারুসসালামের হাই কমিশনার হারিস বিন উসমান বলেন, ২০১৯ সালের এপ্রিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্রুনাইয়ের দারুসসালামে ঐতিহাসিক সফর করেন। যা এক নতুন মাইলফলক হিসেবে চিহ্নিত হয়। ওই সময় গ্যাস সরবরাহ, মৎস্য, কৃষি, পশুসম্পদ, যুব, শিল্প, সংস্কৃতি, খেলাধুলার মতো খাতসহ বিভিন্ন ধরনের সহযোগিতার জন্য বেশ কয়েকটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করা হয়।

Previous articleমুলাদীতে উদ্ধারকৃত অজ্ঞাতনামা মৃত দেহের পরিচয় শনাক্তকরণে সহায়তা চায় নৌ পুলিশ
Next articleপাঁচবিবিতে ট্রেনের ধাক্কায় যুবকের মৃত্যু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।