স্বপন কুমার কুন্ডু: ঈশ্বরদীতে নির্মাণাধীন রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের দ্বিতীয় ইউনিটের মূল যন্ত্র রিয়্যাক্টর প্রেশার ভেসেল (পারমানবিক চুল্লি) স্থাপন কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানকে ঘিরে ব্যাপক প্রস্তুতি চলছে। ১৯শে অক্টোবর বুধবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে এই রিঅ্যাক্টর চুল্লি স্থাপন উদ্বোধন করবেন। পারমানবিক চুল্লি স্থাপন অনুষ্ঠানকে ঘিরে ঈশ্বরদীর রূপপুরে সাজ সাজ রব পড়ে গেছে। সোমবার (১৭ অক্টোবর) এই অনুষ্ঠানকে বর্ণাঢ্য করার জন্য উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা থেকে শুরু করে সকলের মধ্যে কর্মব্যস্ততা দেখা গেছে। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন রাশিয়ার পরমাণু শক্তি সংস্থা রসাটমের মহাপরিচালক অ্যালেক্সি লিখাচেভ। তিনি বুধবার সকালে হেলিকপ্টারযোগে ঢাকা হতে অনুষ্ঠনস্থলে এসে পৌঁছাবেন বলে জানা গেছে।

রবিবার থেকে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান রূপপুরে অবস্থান করছেন। মন্ত্রণালয়ের সচিব, বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনের চেয়ারম্যান থেকে শুরু করে উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তারা সোমবারের মধ্যেই এসে পৌঁছাবেন। ইতোমধ্যে রাশিয়া থেকে বিভিন্ন পর্যায়ের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা ও রাশান সাংবাদিকরা আসতে শুরু করেছেন। সরাসরি রিয়্যাক্টর প্রেশার ভেসেল (পারমাণবিক চুল্লি) স্থাপন সম্প্রচারের জন্য প্রায় ৫০ জন সংবাদকর্মী ঢাকা থেকে আনা হচ্ছে বলে জানা গেছে। এছাড়াও বিদেশী সাংবাদিকরাও অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকছেন বলে প্রকল্প সূত্র জানিয়েছে।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান বলেন, বাংলদেশে পারমাণবিক প্রকল্প বাস্তবায়নে জাতির পিতা ও তাঁর কন্যার প্রতি বাংগালি জাতি কৃতজ্ঞ। রাশিয়া বাংলাদেশের দু:খের দিনের বন্ধু। রিয়াক্টর প্রেসার ভেসেল স্থাপনের কারণে বিশ্ব সভ্যতায় অনন্য অবস্থানে উন্নীত হবে বাংলাদেশ।

প্রকল্প পরিচালক ড. শৌকত আকবর বলেন, আমরা দ্রুততম সময়ের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য কাজ করছি। এরই মধ্যে প্রথম ইউনিটের ৭৫ ভাগ ভৌত-অবকাঠামো কাজ সম্পন্ন হয়েছে। একই সাথে দ্বিতীয় ইউনিটের কাজও দ্রুতগতিতে এগিয়ে নেয়ায় এখানে রিয়্যাক্টর প্রেশার ভেসেল স্থাপন হচ্ছে। প্রতিটি যন্ত্র সর্বোচ্চ পরীক্ষা-নিরীক্ষার ধাপ পেরিয়ে নকশা অনুযায়ী বসানো হচ্ছে। এজন্য নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের সনদ নিতে হয়েছে।

এরআগে ২০২১ সালের ১০ অক্টোবর ঢাকা থেকে ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রথম ইউনিটের রিয়াক্টর প্রেসার ভেসেল বা পরমাণু চুল্লিপাত্র স্থাপন উদ্বোধন করেছিলেন। বাংলাদেশের ইতিহাসে এটি দেশের সবচেয়ে বড় প্রকল্প। করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেও রূপপুরে কাজ একদিনের জন্য থেমে থাকেনি। প্রতিদিন তিন শিফটে দেশি-বিদেশি প্রায় ২৫-২৬ হাজার মানুষ এই প্রকল্পে দিনরাত কাজ করেছেন।

কি কি বসবে রিয়াক্টর ভবনে ?

প্রকল্প এলাকায় গোলাকৃতি যে দুটি ভবন সেগুলোই রিয়াক্টর ভবন। এদের মধ্যে একটিতে ২০২১ সালের ১০ অক্টোবর বসানো হয় প্রথম ইউনিটের রিয়াক্টর প্রেসার ভেসেল বা পরমাণু চুল্লিপাত্র।

রিয়াক্টর প্রেসার ভেসেল বিদ্যুৎ কেন্দ্রের হার্ট বা হৃদপিন্ড বলা যেতে পারে। এই ভবনের বিভিন্ন ধাপে বসানো হয়েছে নিউক্লিয়ার যন্ত্রপাতি। পাঁচ ধরনের যন্ত্রের মধ্যে ইতিমধ্যে প্রেসারাইজার, কুল্যান্ট পাম্প এবং হাইড্রো এক্যুমুলেটর বসানো সম্পন্ন হয়েছে। রিয়াক্টর প্রেসার ভেসেল স্থাপনের পরপরই স্থাপন করা হবে স্টিম জেনারেটর। এর মাধ্যমে সব ধরনের নিউক্লিয়ার যন্ত্রপাতি বসানো শেষ হবে।

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের পটভূমিঃ

১৯৬০ সালে পাকিস্তান সরকার আমলে পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহন করা হয়। এই উদ্যোগের প্রেক্ষিতে ১৯৬২ হতে ১৯৬৮ সালের মধ্যে পদ্মা নদীর তীরে ঈশ্বরদীর রূপপুরকে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের স্থান হিসেবে বেছে নেয়া হয়। এসময়কালে প্রকল্পের জন্য ২৬০ একর এবং আবাসনে জন্য ৩২ একর জমি অধিগ্রহন করে ভূমির উন্নয়ন, অফিস, রেষ্ট হাউজ, বৈদ্যুতিক সাব-ষ্টেশন এবং কিছু আবাসিক ইউনিটের নির্মাণ করা হয়। ১৯৬৯-৭০ সালের দিকে তৎকালীন পাকিস্তান সরকার ২০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের এই প্রকল্প বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে এটিকে পাকিস্তানের করাচীতে নিয়ে যায়। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭২-৭৪ সালের দিকে এখানে ২০০ মেগাওয়াট পারমাণবিক বিদ্যুৎ উৎপাদনের উদ্যোগ গ্রহন করেন। ১৯৭৫ সালে জাতির পিতাকে নৃশংসভাবে হত্যার পর এই প্রকল্প অঙ্কুরে বিনষ্ট হয়। এম এস সোপরাটম কর্তৃক ১৯৭৭-১৯৮৬ সালের মধ্যে ফিজিবিলিটি ষ্টাডি সম্পন্ন করে রূপপুর পারমাবিক কেন্দ্রটি তাড়াতাড়ি নির্মাণের পরামর্শ দেয়। ১৯৮৭-৮৮ সালে জার্মানী ও সুইজারল্যান্ডের দুটি কোম্পানীর উদ্যোগে আরেকটি ফিজিবিলিটি ষ্টাডি সম্পন্ন করা হয়। এই ষ্টাডি পূর্বের ষ্টাডিকেই সমর্থন করে। এসময় একনেক কর্তৃক ১২৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ প্রকল্প নির্মাণের অনুমোদন দেয়া হয়। কিন্তু অর্থের যোগান না থাকায় এটি স্থগিত হয়। অর্থ সংগ্রহের জন্য জার্মানির সাথে যৌথভাবে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের প্রস্তাব করা হয়। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতাসীন হওয়ার পর ‘জাতীয় জ্বালানী নীতি-১৯৯৬’ এ রূপপুর প্রকল্পটির বাস্তবায়নে সুপারিশ করে। এসময় দেশের বিশিষ্ঠ পরমাণু বিজ্ঞানী ড. এম এ ওয়াজেদ মিঞা প্রকল্পটির বাস্তবায়নে সক্রিয় ভূমিকা রাখেন। ১৯৯৭-২০০০ সালে বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনের চেয়ারম্যান ড. এম এ ওয়াজেদ মিঞা রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প নির্মাণে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। প্রকল্প বাস্তবায়ন কল্পে মানব সম্পদ উন্নয়ন এবং সরকার কর্তৃক বাংলাদেশ নিউক্লিয়ার পাওয়ার এ্যাকশন প্লানের অনুমোদন গ্রহন করা হয়। সেসময় ড. এম এ ওয়াজেদ মিঞা ঈশ্বরদীর রূপপুরে এসে পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করেন। প্রকল্প বাস্তবায়নকল্পে ড. এম এ ওয়াজেদ মিঞা রূপপুরে এলে রূপপুরবাসী তাঁকে বিপুল সংবর্ধনা প্রদান করেন। ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতাসীন হওয়ার পর আবারো প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ স্তিমিত হয়।

রূপপুর প্রকল্প বাস্তবায়নে আওয়ামী লীগ সরকারের সম্পাদিত কার্যাবলীঃ

২০০৮ সালের আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়নের অঙ্গিকার করা হয়। এই অঙ্গিকারের ভিত্তিতে ২০০৯ সালে বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন এবং রাশিয়ান ফেডারেশনের স্টেট এ্যাটোমিক এনার্জি কমিশন (রোসাটোম) ‘পারমাণবিক শক্তির শান্তিপূর্ণ ব্যবহার’ বিষয়ক ‘সমঝোতা স্মারক’ স্বাক্ষর করেন। ২০১০ সালে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার এবং রাশিয়ান ফেডারেশন সরকারের মধ্যে ‘ফ্রেমওয়ার্ক এগ্রিমেন্ট’ স্বাক্ষরিত হয়। প্রকল্প সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়নের জন্য প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে একটি জাতীয় কমিটি গঠন করা হয়। প্রকল্পের অগ্রগতি তত্তাবধানে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রীর সভাপতিত্বে কারিগরি কমিটি এবং সচিবের নেতৃত্বে একটি ওয়ার্কিং গ্রুপ ও আটটি সাব গ্রুপ গঠন করা হয়। ২০১০ সালের ১০ই নভেম্বর জাতীয় সংসদে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প নির্মাণের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। ২০১১ সালের ২রা নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে রাশিয়ান ফেডারেশন ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মধ্যে প্রকল্প নির্মাণে সহযোগিতা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের নির্মাণ কাজ শুরুর অধ্যায় :

২০১৪ সালের ২রা অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রকল্পের প্রথম পর্যায়ের কাজের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন করেন। এসময় রাশিয়ান ফেডারেশনের সাবেক প্রধানমন্ত্রী সের্গেই কিরিয়েঙ্কো এবং বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী উপস্থিত ছিলেন। উদ্বোধনের পর হতেই দেশের প্রথম পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের নির্মাণে মহাকর্মযজ্ঞ চলছে। প্রকল্পে কর্মরত সকল পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী প্রধানমন্ত্রীর দিক নির্দেশনায় দিন-রাত অকান্ত পরিশ্রম করে কাজ দ্রুত এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান প্রতি মাসেই ১-২ বার স্বশরীরে ঈশ্বরদীর রূপপুরে এসে প্রকল্পের কাজের অগ্রগতি পর্যবেক্ষণ করছেন।

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় সংস্থা আণবিক শক্তি করপোরেশন রসাটমের সহযোগিতায় ঈশ্বরদীর রূপপুরে দেশের প্রথম পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ হচ্ছে । চুক্তি অনুযায়ী থার্ড প্লাস জেনারেশনের ১২০০ + ১,২০০ ইউনিটের মোট ২৪০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা সম্পন্ন দুটি ইউনিটের কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে নেওয়া হচ্ছে। ২০২৫ সালের ডিসেম্বরে প্রকল্প শেষ করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

Previous articleসেবা প্রত্যাশী নারীকে অশ্লীল গালাগাল: ভিডিও ভাইরাল, এসআই ক্লোজড
Next articleকলাপাড়ায় ১১ বছরের কন্যা শিশুকে ধর্ষণ চেষ্টা, অভিযুক্ত গ্রেফতার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।