বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ক্লাইমেট চেঞ্জ অ্যাডাপ্টেড আরবান ডেভেলপমেন্ট (সিসিএইউডি) তৃতীয় পর্যায়ের অধীনে আরবান ক্লাইমেট রেজিলিয়েন্ট ইনফ্রাস্ট্রাকচার প্রজেক্ট (ইউসিআরআইপি) শীর্ষক প্রকল্পে জার্মান সরকার ৩৩.৫ মিলিয়ন ইউরো অনুদান প্রদান করবে। এই প্রেক্ষিতে আজ ১৫ই নভেম্বর ২০২২ তারিখে বাংলাদেশ সরকার এবং জার্মান সরকার এর মধ্যে এক অনুদান চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সচিব শরিফা খান ও জার্মান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (কেএফডব্লিউ) বাংলাদেশ এর ডিরেক্টর মাইকেল সামসার অনুদান চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) অতিরিক্ত সচিব ও উইং চিফ উত্তম কুমার কর্মকার, যুগ্ম সচিব মোসলেমা নাজনীন, উপ-সচিব শাহ মোহাম্মদ হাবিবুল হাসান, এলজিইডির অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মোঃ নুরুল হুদা, জার্মান উন্নয়ন সংস্থা জিআইজেড এর কান্ট্রি ডিরেক্টর ড. এনড্রেয়াস কুক, ইউসিআরআইপি এর প্রকল্প পরিচালক মোহাম্মদ নাজমুল হাসান চৌধুরী, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার মোঃ মাকসুদুর রহমান ভূইয়া, কেএফডব্লিউ এর সেক্টর স্পেশালিস্ট দিবা ফারাহ হক প্রমুখ।

অনুদান চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সচিব শরিফা খান বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়নমূলক অগ্রযাত্রায় জার্মান সরকার এক বিশ্বস্ত বন্ধু এবং আজ পর্যন্ত জার্মান সরকার প্রায় ৩ বিলিয়ন ইউরো উন্নয়ন সহায়তা প্রদানে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়েছে। জার্মান সরকারের সমর্থন সামনের দিনগুলোতে আরও জোরদার হবে যা আমাদের উন্নয়ন অগ্রাধিকার এর সাথে সামঞ্জস্য রেখে অর্থনীতিতে ব্যাপক প্রভাব ফেলবে৷ অনুষ্ঠানে কেএফডব্লিউ এর কান্ট্রি ডিরেক্টর, মাইকেল সামসার, কেএফডব্লিউ-এর সাথে ইআরডি, এলজিআরডি মন্ত্রণালয়, এলজিইডি এবং স্থানীয় সংস্থাসমূহের দীর্ঘস্থায়ী ইতিবাচক সম্পর্ক রয়েছে বলে আনন্দ প্রকাশ করেন।

এলজিইডি ২০২৩ থেকে ২০২৮ সময়কালে ক্লাইমেট চেঞ্জ অ্যাডাপ্টেড আরবান ডেভেলপমেন্ট (সিসিএইউডি) তৃতীয় পর্যায়ের অধীনে আরবান ক্লাইমেট রেজিলিয়েন্ট ইনফ্রাস্ট্রাকচার প্রজেক্ট (ইউসিআরআইপি) শীর্ষক প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে। এই কর্মসূচির আওতায় জার্মান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক কেএফডব্লিউ এর মাধ্যমে জার্মান সরকার প্রদত্ত অনুদান বাংলাদেশের নগর জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নের জন্য ব্যবহৃত হবে। জলবায়ু-অভিযোজিত নগর অবকাঠামো বাস্তবায়নের মাধ্যমে সিটি কর্পোরেশন ও পৌরসভাসমূহ জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় সক্ষমতা অর্জন করবে।

কর্মসূচির বিভিন্ন পর্যায় বিভিন্ন এলাকায় বাস্তবায়িত হচ্ছে। প্রথম পর্যায়ে বরিশাল সিটি কর্পোরেশন (বিসিসি) ও সাতক্ষীরা পৌরসভা সহায়তাপ্রাপ্ত হয়, দ্বিতীয় পর্যায়ে খুলনা সিটি কর্পোরেশন (কেসিসি) সহায়তা পাচ্ছে এবং তৃতীয় পর্যায়ে গাইবান্ধা সদর পৌরসভা, ইসলামপুর পৌরসভা ও সিরাজগঞ্জ পৌরসভা এই সহায়তার অন্তর্ভুক্ত হবে।

যে সকল এলাকায় মানুষ স্বল্প, মাঝারি এবং দীর্ঘমেয়াদে জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সে সকল এলাকায় প্রকল্পটি জলবায়ু ঝুঁকি চিহ্নিত করবে এবং ভবিষ্যতে বন্যা এড়াতে সার্বিক পদ্ধতি অনুসরণ করবে।মোট অর্থের ৩১ মিলিয়ন ইউরো অনুদান ব্যবহার করা হবে বিনিয়োগ অনুদান হিসাবে এবং ২.৫ মিলিয়ন ইউরো অনুদান ব্যবহার করা হবে কারিগরি সহায়তা (বিশেষজ্ঞ/পরামর্শ সেবা, নকশা এবং পরিকল্পনা ইত্যাদি) প্রদান এবং জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাবের বিরুদ্ধে এলজিইডি ও পৌরসভার সক্ষমতা উন্নয়নে।

এছাড়া এনার্জি এফিসিয়েন্সি ‍এন্ড গ্রিড ইন্ট্রিগেশন অব রিনিউয়াবল এনার্জি-২ (ইইজিআইআরই-২), পলিসি এডভাইসরি ফর প্রোমোটিং এনার্জি এফিসিয়েন্সি এন্ড রিনিউয়াবল এনার্জি (পিএপি), হায়ার এডুকেশন এন্ড লিডারশিপ ডেভেলপমেন্ট ফর সাসটেইনেবল টেক্সটাইলস ইন বাংলাদেশ (এইচইএলডি) প্রকল্প সমূহের অনুদান চুক্তি স্বাক্ষর করেন অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সচিব শরিফা খান এবং জার্মান উন্নয়ন সংস্থা (জিআইজেড) এর কান্ট্রি ডিরেক্টর ড. এনড্রেয়াস কুক।

Previous articleকালিহাতীতে প্রতারণা মামলায় আওয়ামীলীগ নেতা কারাগারে
Next articleসুনামগঞ্জে আওয়ামী লীগের সম্মেলনের সাথে কারো মৃত্যুর কোনো সম্পর্ক নেই: ওবায়দুল কাদের
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।