শনিবার, জুলাই ১৩, ২০২৪
Homeজাতীয়সংঘাত এড়াতে প্রয়োজন রাজনৈতিক সমঝোতা : রংপুরে বিভাগীয় কর্মশালায় বক্তারা 

সংঘাত এড়াতে প্রয়োজন রাজনৈতিক সমঝোতা : রংপুরে বিভাগীয় কর্মশালায় বক্তারা 

জয়নাল আবেদীন : মহান মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন একটি অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক ও ন্যায়ভিত্তিক রাষ্ট্র গঠন। কিন্তু সুস্থ ধারার আদর্শভিত্তিক জনকল্যাণমুখী রাজনীতি না থাকায় নির্বাচন যতোই ঘনিয়ে আসছে ততোই সাংঘর্ষিক পরিস্থিতির আশঙ্কা বাড়ছে। এ পরিস্থিতিতে রাজনৈতিক সংকট নিরসনে সংলাপের কোনো বিকল্প নেই।

 

অংশগ্রহণমূলক, প্রতিদ্বদ্বিতাপূর্ণ, শান্তিপূর্ণ তথা সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য একটি নির্বাচনের জন্য দেশের রাজনৈতিক দলসমূহের মধ্যে সংলাপ ও পারস্পারিক সমঝোতা প্রয়োজন। রাজনৈতিক দলসমূহকে আলাপ-আলোচনার মধ্য দিয়েই সমঝোতার জন্য গুরুত্বপূর্ণ বিষয়সমূহ এবং সমঝোতাসূত্র নির্ধারণ করতে হবে। সংলাপ ও সমঝোতা হলে দেশে সুষ্ঠু নির্বাচনের সহায়ক পরিবেশ তৈরি হবে।

 

সোমবার দুপুরে রংপুর আরডিআরএস ভবনের তিস্তা মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত ‘রাজনৈতিক দলসমূহের মধ্যে সংলাপ ও সমঝোতা’ শীর্ষক বিভাগীয় কর্মশালায় বক্তারা এসব কথা বলেন । দি হাঙ্গার প্রজেক্ট-বাংলাদেশ এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।এতে সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজন রংপুর জেলা সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আকবর হোসেনের সভাপতিত্বে সম্মানিত অতিথি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক রোবায়েত ফেরদৌস। প্রোগ্রাম ম্যানেজার দিলীপ কুমার সরকারের সঞ্চালনায় কর্মশালায় বক্তব্য রাখেন রংপুর মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আবুল কাশেম, মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক সামসুজ্জামান সামু, জেলা জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব হাজী আব্দুর রাজ্জাক, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি রংপুর জেলা সভাপতি নজরুল ইসলাম হক্কানী, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদের রংপুর জেলা আহ্বায়ক আব্দুল কুদ্দুস, বাংলাদেশ জাসদ রংপুর মহানগর সভাপতি শ্রী গৌতম রায়, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি রংপুর জেলা সম্পাদক কাফি সরকার, গণসংহতি আন্দোলনের জেলা সমন্বয়ক তৌহিদুর রহমান।

 

কর্মশালায় বক্তারা বলেন, উন্নয়ন দিয়ে নয় সুশাসন দিয়ে নির্বাচন হয়। সুশাসন প্রতিষ্ঠায় অসাম্প্রদায়িক বহুত্ববাদী গণতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থা গড়ে তুলতে হবে। বৈচিত্রের মাঝে ঐক্যের চেতনা বিকশিত করতে হবে। কারো প্রতিপক্ষ নয় কারো লেজুর নয়, রাজনৈতিক দলসমূহ এবং নেতাদের হতে হবে জনগণের কণ্ঠস্বর। রাজনীতিতে ধর্মের ব্যবহার নিষিদ্ধ করতে হবে। নিজেদের সমস্যা নিজেরাই সমাধান করতে উদ্যোগী হতে হবে। কারণ সংঘাতে কোনো সমাধান হয়নি বরং ক্ষতি ডেকে এনেছে। তাই সংঘাত এড়িয়ে সংলাপ ও সমঝোতার মাধ্যমে প্রকৃত সমাধানে রাজনৈতিক দলসমূহকে এগিয়ে আসতে হবে। এক্ষেত্রে বিরোধিতার নামে বিরোধিতার সংস্কৃতি থেকে রাজনৈতিক দলসমূহকে বেরিয়ে আসতে হবে।

 

কর্মশালায় রাজনৈতিক দলসমূহের মধ্যে সংলাপ ও সমঝোতার লক্ষ্যে ১৫টি প্রস্তাব তুলে ধরে একটি প্রস্তাবিত জাতীয় সনদ উপস্থাপন করা হয়। এসময় নির্বাচনকালীন সরকার, নির্বাচনকালে অংশীজনদের ভূমিকা ও নির্বাচন পদ্ধতি, নবনির্বাচিত সরকারের জন্য অগ্রাধিকার নির্ধারণ, গঠনমূলকভাবে বিরোধীদলের ভূমিকা পালন, রাজনৈতিক সংস্কৃতিতে পরিবর্তন, গণতান্ত্রিক ও স্বচ্ছ রাজনৈতিক দল, প্রাতিষ্ঠানিক সংস্কার, দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা, অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক ন্যায়ভিত্তিক ও কল্যাণমূখী রাষ্ট্রগঠন, নারীর ক্ষমতায়ন, তরুণদের জন্য বিনিয়োগ, পার্বত্য শান্তি চুক্তির বাস্তবায়তন, আলাপ-আলোচনার মধ্য দিয়ে সংকট মোকাবেলা ও জাতীয় সনদ সমুন্নত রাখার কৌশলগত পদ্ধতি, পরামর্শ ও আইনগতভিত্তি নিয়ে আলোচনা করা হয়। এ ছাড়াও বক্তব্য রাখেন কারমাইকেল কলেজ ছাত্রসংসদের সাবেক ভিপি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা আলাউদ্দিন মিয়া, সুজন লালমনিরহাট

 

জেলা সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. এস এম শফিকুল ইসলাম কানু, সঙ্গীতশিল্পী ও সংগঠক খ.ম আলী সম্রাট, মহানগর আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য আব্দুল্লাহ্ খান নান্নু।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerkagoj.com.bd/
Ajker Bangladesh Online Newspaper, We serve complete truth to our readers, Our hands are not obstructed, we can say & open our eyes. County news, Breaking news, National news, bangladeshi news, International news & reporting. 24 hours update.
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments