শুক্রবার, জুলাই ১৯, ২০২৪
Homeশিক্ষাজগন্নাথপুরে মানা হচ্ছেনা শিক্ষা অধিদপ্তরের নির্দেশ, প্রভাষক বহাল তবিয়তে প্রিন্সিপালের দায়ীত্বে, বিস্তর...

জগন্নাথপুরে মানা হচ্ছেনা শিক্ষা অধিদপ্তরের নির্দেশ, প্রভাষক বহাল তবিয়তে প্রিন্সিপালের দায়ীত্বে, বিস্তর অভিযোগ

ওয়াহিদুর রহমানঃ সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নে প্রতিষ্ঠিত শাহজালাল মহা-বিদ্যালয়ের এমপিও তালিকা থেকে বহিঃস্কৃত সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক আব্দুল মতিনএর বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাৎ, শিক্ষার্থীর সাথে অশালীন আচরণ,শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শ্রেণী কক্ষে স্ব-পরিবারে বসবাস করা,নির্বাচনী পরিক্ষিায় অকৃতকার্য ছাত্র-ছাত্রীদের নিকট থেকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে পূনঃরায় ফরম ফিলাপের সুযোগ করে দেওয়া সহ বিস্তর অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

অধ্যক্ষ আব্দুল মতিনের নানাবিধ অনিয়ম ও দুর্নীতি সম্পর্কে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তিনি ২০০৩ ইং সনের ২৩ মার্চ শাহজালাল মহা-বিদ্যালয়ের প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। ২০১০ ইং সনে প্রতিষ্ঠানটি এম,পি,ও ভুক্ত হলে মোঃ আব্দুল মতিন সমাজবিজ্ঞানের প্রভাষক হিসেবে এমপিও ভুক্ত হন।
সরকারী নিয়ম মোতাবেক প্রভাষক থেকে একজন অধ্যক্ষ হতে হলে প্রথমত শিক্ষাগত যোগ্যতা দ্বিতীয়ত ১০বছরের বাধ্যতামূলক অভিজ্ঞতার প্রয়োজন রয়েছে।কিন্তু মহ-বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ পদ শূন্য থাকায় মাত্র ১ বছরের অভিজ্ঞতায় সঠিক তথ্য গোপন করে বিদ্যালয় গভর্নিং কমিটিকে ম্যানেজ করে অধ্যক্ষের পদে নিয়োগ পান আব্দুল মতিন।

অথচ প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ প্রাপ্ত একজন সহকারী অধ্যাপক কর্মরত থাকা সত্ত্বেও প্রভাষক আব্দুল মতিন অধ্যক্ষ পদে এম,পি,ও ভুক্তির জন্য আবেদন করলে কাম্য যোগ্যতা না থাকায় মাউশি থেকে তার আবেদন প্রত্যাখ্যান করা হয়।পুনরায় ২০১৮ ইং সনে আব্দুল মতিন সহকারী অধ্যাপক পদে নিয়োগের আবেদন করলে মাউশির সিলেট আঞ্চলিক উপ-পরিচালক তদন্ত সাপেক্ষে তার অধ্যক্ষ পদে অবৈধ নিয়োগপ্রাপ্তির কারণে আবেদনটি বাতিল করেন।

এ-দিকে এলাকাবাসী অধ্যক্ষ মতিনের নানাবিধ দুর্নীতি,টাকা আআত্মসাৎ সহ অপকর্মের বিস্তর একটি লিখিত অভিযোগ সুনামগঞ্জ দুদক উপ-পরিচালক বরাবরে দায়ের করেন।অভিযোগের সূত্রধরে তদন্তে অধ্যক্ষ আব্দুল মতিনের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হওয়ায় মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর উপ-পরিচালক (সাধারণ প্রশাসন) হাবিবুর রহমান স্বাক্ষরিত একটি আদেশ পত্র প্রেরণ করা হয়।ওই পত্রে জনবল কাঠামো ও এম.পি.ও নীতিমালা-২০২১ এর ১৮.১ধারা মোতাবেক ২৩ জুলাই ২০২৩ইং তারিখে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে অধ্যক্ষ মতিনের এম,পি,ও স্থগিত করার নির্দেশ প্রদান করা হয়।

কিন্তু শিক্ষা অধিদপ্তরের নির্দেশনার কোন প্রকার তুয়াক্কা না করে বহাল তবিয়তে প্রিন্সিপালের দায়ীত্বে থেকে তার খেয়াল খুশি মতো বিদ্যালয়ের দপ্তরিক কার্যবিধি পরিচালনা করা। শিক্ষার্থীদের হয়রানি,অনিয়ম,স্বেচ্ছাচারীতা তার দৈনন্দিন রুটিনের অংশ হয়ে উঠেছে। ইতোপূর্বে শিক্ষার্থীদের সাথে ক্ষমতার অপব্যবহার,নানা প্রকার ভয়ভীতি দেখানো,অশালীন কথাবার্তাসহ নানাবিধ অশুভ আচরণে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা অধ্যক্ষ মতিনের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে বেশ কয়েকদিন ধরে প্রতিষ্ঠানের ক্যাম্পাসে তার পদত্যাগ ও দুর্নীতির উপযুক্ত বিচার দাবি করে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করে আসছে শিক্ষার্থীরা।

কিন্তু অদৃশ্য ইঙ্গিতে অদ্যাবধি সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নির্দেশকে পাত্তা না দিয়ে বহাল তবিয়তে শাহজালাল মহা-বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষের মসনদে বসে রয়েছে আব্দুল মতিন। যার ফলে দিন-দিন শাহজালাল মহা-বিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া অনিশ্চয়তার দিকে ধাবিত হচ্ছে।

বিদ্যালয়টি নিয়ম অনুসারে পরিচালনা,শিক্ষার মান উন্নয়নে প্রকৃত দোষিদের  বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যথাযথ আইনানুগ ব্যাবস্থা গ্রহন করে বিদ্যালয়টির শিক্ষারমান অক্ষুন্ন রাখতে এলাকাবাসী সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আশু দৃষ্টি কামনা করছেন।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerkagoj.com.bd/
Ajker Bangladesh Online Newspaper, We serve complete truth to our readers, Our hands are not obstructed, we can say & open our eyes. County news, Breaking news, National news, bangladeshi news, International news & reporting. 24 hours update.
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments