২শ’ বছরের মুক্তাগাছা জমিদারবাড়ি

রাফী উল্লাহ: বাংলাদেশ থেকে জমিদারি প্রথার বিলোপ হয়েছে বহুদিন। তবে তাদের নির্মিত বহু মুল্যাবন স্থাপনাগুলো আজও মানুষকে মনে করিয়ে দেয় তাদের প্রভাব আর প্রতিপত্তির ইতিহাস। ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা জমিদার বাড়ি সেই ইতিহাসের একটি খন্ড চিত্র এখনও সমুন্নত রেখেছে ইতিহাসের পাতায় । ইতিহাস থেকে জানা যায়, জমিদার আচার্য চৌধুরী বংশ মুক্তাগাছা শহরের গোড়াপত্তন করেন। আচার্য চৌধুরী বংশ শহরের গোড়াপত্তন করে এখানেই বসতি স্থাপন করেন। আচার্য চৌধুরী বংশের প্রথম শ্রীকৃষ্ণ আচার্য চৌধুরী ছিলেন বগুড়ার বাসিন্দা। তিনি মুর্শিদাবাদের দরবারে রাজস্ব বিভাগে কর্মরত ছিলেন। তিনি ছিলেন নবাবের খুবই আস্থাভাজন। নবাবের দরবারে রাজস্ব বিভাগে কর্মরত থাকা অবস্থায় ১১৩২ সালে তিনি সেই সময়ের আলাপসিং পরগণার বন্দোবস্ত নিয়েছিলেন। উল্লেখ্য করা যেতে পারে যে, বর্তমানে মুক্তাগাছা শহরসহ মুক্তাগাছা উপজেলার বেশিরভাগই ছিল আলাপসিং পরগণার অন্তর্ভূক্ত। ১৭৫৭ সালে পলাশীর যুদ্ধ শেষ হওয়ার পর নানা কারণে শ্রীকৃষ্ণ আচার্য চৌধুরীর ৪ ছেলে বগুড়া থেকে আলাপসিং এস বসবাসের জন্য সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। শ্রীকৃষ্ণ আচার্য চৌধুরীর এই ৪ ছেলে হচ্ছে রামরাম, হররাম, বিষ্ণুরাম ও শিবরাম। বসতি স্থাপনের আগে তারা এ পরগণার বিভিন্ন স্থান ঘুরে ফিরে দেখেন এবং বর্তমান মুক্তাগাছা এলাকায় বসতি স্থাপনের জন্য মনস্থির করেন। সে সময়ে আলাপসিং পরগণায় খুব একটা জনবসতি ছিলনা। চারদিকে ছিলো অরণ্য আর জলাভূমি। শ্রীকৃষ্ণ আচার্যের ৪ ছেলে ব্রহ্মপূত্র নদের শাখা নদী আয়মানের তীরবর্তী স্থানে নৌকা ভিড়িয়ে ছিলেন। জমিদারদের পরিত্যাক্ত সেই বাড়ীটি সহজেই পর্যটকদের মন কারে। সতেরশ শতাব্দির মাঝামাঝি সময়ে নির্মাণ করা হয় মুক্তাগাছার জমিদার বাড়ি। ১৮শ শতাব্দিতে ভূমিকম্পে বাড়িটি ভেঙ্গে পড়লে লন্ডন আর ভারত থেকে কারিগর এনে ভূমিকম্প সহিষ্ণু করে পূণ:নির্মাণ করা হয়

জমিদার বাড়িটি। ১০০ একর জায়গার ওপর নির্মিত এই রাজবাড়িটি প্রাচীন স্থাপনাশৈলীর অনন্য নিদর্শন। ময়মনসিংহ শহর থেকে মাত্র ১৬ কি. মি. দূরে মুক্তাগাছায় এই জমিদার বাড়ি। মুক্তাগাছা জমিদারবাড়ি সংস্কার হওয়ায় পর্যটকদের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। বর্তমান সরকার পর্যটনের অপার সম্ভাবনার কথা বিবেচনা করে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন প্রতœতত্ত্ব বিভাগের মাধ্যমে প্রায় ১ কোটি টাকা ব্যয়ে জমিদারবাড়ি সংস্কারের কার্যক্রম হাতে নেয়। সংস্কারের ফলে ফিরে আসতে থাকে বাড়িটির আগের চেহারা। প্রতœতত্ত্ব বিভাগ বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে সংস্কার কাজের সময় বৃদ্ধি করে চালিয়ে যাচ্ছেন কাজ। জানা যায়, একসময় নিন্মাঞ্চল ছিল মুক্তাগাছা শহর। জমিদাররা বসতি স্থাপনের আগে জমিদার বিষ্ণু আচার্য চৌধুরীর নামে বিশাল পুকুর (দিঘী) কেটে শহরকে উঁচু করেন । এরপর দীর্ঘ আড়াইশ’ বছর ধরে বন্যামুক্ত হয় মুক্তাগাছা । মুক্তাগাছার জমিদার বাড়িতে একটি সুড়ঙ্গপথ পাওয়া যায়। ধারণা করা হয় এই সুড়ঙ্গপথেই গোপনে ময়মনসিংহের শশী লজে যাওয়ার ব্যবস্থা ছিল। উল্লেখ্য, শশী লজের এক স্নানঘরে এই রকম একটি সুড়ঙ্গ পথ পাওয়া যায়। বিবির ঘর ছাড়া ও বিশাল আকারের পুকুর বিষ্ণু সাগর, প্রাচীন স্থাপনা যুগল মন্দির, চাঁন খার মসজিদ, সাত ঘাটের পুকুর, জলটং, রসুলপুর বনসহ অসংখ্য দর্শনীয় জায়গা রয়েছে এখানে। মুক্তাগাছায় জমিদারগণ অবস্থানকালে বহু স্থাপনা সৃষ্টি করেন। রোপন করেন বিরল প্রজাতির গাছ পালা। জমিদারগণ আজ নেই রেখে গেছেন তাদের স্মৃতি মূল্যবান বহু স্থাপনা । আজ যা পর্যটন সুমৃদ্ধ। জমিদারদের অত্যাচার থেকে পরিত্রাণ পেতে এই বনে গড়ে তোলা হয় বিদ্রোহী ফকির সণ্যাসী বাহিনীর কার্যক্রম। খাজুলিয়া এলাকায় বিবির ঘর নামের বাড়ি বানিয়ে তাদের দাবী আদায়ে অনেক জমিদারকে অপহরণ করে রাখে বিদ্রোহীরা । ঐতিহাসিক বিবির ঘর আজ পর্যটন কেন্দ্র ।

১৯৪৭ সালের পর মুক্তাগাছার জমিদারদের প্রতিষ্ঠাতা শ্রীকৃষ্ণ আচার্য চৌধুরীর ১৬ জন বংশধরের প্রায় সবাই চলে যান ভারতে। পরিত্যক্ত হয়ে পড়ে তাদের নির্মিত ১৬ টি বাড়ি। ক্রমান্বয়ে এই বাড়িগুলিতে (রাজবাড়ি ব্যতিত) গড়ে তোলা হয় শহীদ স্মৃতি সরকারী কলেজ, আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন ক্যাম্প, সাব রেজিস্ট্রি অফিস, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, নবারুণ বিদ্যানিকেতনসহ বিভিন্ন সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্ঠান।

জমিদারদের কয়েকটি বাড়ি এখনও বেদখল করে অবৈধভাবে ঝুঁকিপূর্ণ বসবাস করে আসছেন অনেকেই।

এখানে রয়েছে বেশ কয়েকটি বিরল প্রজাতির গাছ। ময়মনসিংহ- টাঙ্গাইল সড়কের মুক্তাগাছার রসুলপুর বনে বিশাল শাল গজারি গাছ আর লাল মাটিতে আনারস বাগান পর্যটকদের আকৃষ্ট করে। পর্যটকদের আরেক আকর্ষণ মুক্তাগাছার প্রসিদ্ধ ম-া। আজ থেকে ২শ’ বছর আগে গোপাল পাল এই ম-া তৈরি করেন। কথিত আছে স্বপ্নে এক সাধু তাকে এই ম-া তৈরির কলাকৌশল শেখান। গোপাল পালের বংশধররা এই ম-ার ঐতিয্য ধরে রেখেছেন। দেশ বিদেশে এই ম-ার অনেক সুনাম রয়েছে।