মাহমুদ আজহার: ঢাকা-১৬ আসনে বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী মহানগর উত্তরের সাধারণ সম্পাদক আহসান উল্লাহ হাসান। নির্বাচনী প্রচারণার তিন দিনেও তার দৃশ্যমান কোনো প্রচারণা চোখে পড়েনি। নানা কৌশলে প্রচারণার কথা বললেও বাস্তবতায় মাঠে নেই হাসান সমর্থকরা। রাজধানীতে প্রার্থী হিসেবেও অপেক্ষাকৃত দুর্বল তিনি। ঢাকা-১২ (তেজগাঁও-রমনা) আসনে বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী যুবদল সভাপতি সাইফুল আলম নীরব। গ্রেফতার আতঙ্কে এখনো আটঘাট বেঁধে মাঠেই নামতে পারেননি তিনি। তার কিছু সমর্থক বুধবার মাঠে নামলেও শেষ পর্যন্ত টিকে থাকতে পারেননি পুলিশি তাড়ায়। শুধু এই দুই প্রার্থীই নন, রাজধানীতে ধানের শীষ প্রতীকে অধিকাংশ প্রার্থীরই অবস্থা প্রায় একই। কেউ কেউ চেষ্টা চালিয়েও মাঠে নামতে পারছেন না। কেউ কেউ মাঠে নামার চেষ্টাও করেননি। আবার কেউ কেউ বলছেন, কৌশলগত কারণে বড় শোডাউন করা যাচ্ছে না। ঢাকা-১ আসনে বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী আবু আশফাক বুধবার সন্ধ্যায় প্রথমবারের মতো নিজ এলাকায় শোডাউন বের করলে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে অবশ্য তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। জানা যায়, ঢাকায় মোট ২০টি আসন। এর মধ্যে ঢাকা মহানগরেই ১৫টি আসন রয়েছে। রাজধানীতে বিএনপিতে হেভিওয়েট প্রার্থীর সংখ্যা কম। রাজধানীর বাইরের তুলনায় ঢাকায় অধিকাংশ প্রার্থীই দুর্বল। পড়াশোনা জানা প্রার্থীর সংখ্যাও কম। ভোটের প্রচারণায় প্রথম দিন ঢাকায় বিএনপির কোনো নেতাকে মাঠে দেখা যায়নি। দ্বিতীয় দিনে বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস ও তার সহধর্মিণী আফরোজা আব্বাসকে লিফলেট বিতরণ করতে দেখা যায়। প্রচারণা চালাতে গিয়ে আফরোজা আব্বাসসহ মহিলা কয়েকজন কর্মী সমর্থক আওয়ামী লীগ সমর্থকদের হাতে নাজেহালও হন। ঢাকা-২ আসনে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমানের ছেলে ইফরান ইবনে আমান অমিকে দেখা যায় বিশাল শোডাউন করতে। ঢাকা-৩ আসনেও বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের বিশাল শোডাউন লক্ষ্য করা যায়। ঢাকা-৪ আসনে সালাহউদ্দিন আহমেদ ও ঢাকা-৫ আসনে নবীউল্লাহ নবীকেও দৃশ্যমান প্রচারণায় দেখা যায়। এর বাইরে অধিকাংশ এলাকায় এখনো সেই অর্থে প্রচারণায় নামতে পারেনি বিএনপি জোট। রাজধানীতে বিএনপির কোনো প্রার্থীর সাদাকালো পোস্টারও দেখা যায়নি। ঢাকা-১৮ আসনে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী দেওয়া হয়েছে শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপনকে। তিনি জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক দল জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জেএসডির। এলাকায় তাকে কম লোকই চেনে। উত্তরা খিলক্ষেত বিমানবন্দর এলাকা বেষ্টিত ঢাকা-১৮ আসনের বিএনপি নেতা-কর্মীদের সঙ্গে তার যোগাযোগ নেই বললেই চলে। এখনো পর্যন্ত দৃশ্যমান প্রচারণায় তিনি নামতেই পারেননি। ঢাকা-১৫ আসনে ধানের শীষ প্রতীক তুলে দেওয়া হয়েছে জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল ডা. মো. শফিকুর রহমানের হাতে। ওই এলাকায় বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনগুলোর সঙ্গে তার পরিচয় নেই বললেই চলে। তারও কোনো প্রচারণা দৃশ্যমান নেই। জামায়াতের পক্ষ থেকে বলা হয়, পুলিশ মাঠে নামতেই দিচ্ছে না। ঢাকা-১১ আসনে লড়ছেন উত্তর শাখা বিএনপির সভাপতি এম এ কাইয়ুমের সহধর্মিণী শামীম আরা বেগম। তাকে কোথাও কোথাও লিফলেট বিতরণ করতে দেখা গেছে। তবে বড় ধরনের কোনো শোডাউন দেখা যায়নি। বুধবার শামীম আরা বেগম যান ভাটারা থানা বিএনপির সিনিয়র সভাপতি মরহুম কফিল উদ্দিন আহমেদের বাসায়। মঙ্গলবার তার রহস্যজনক মৃত্যু হয়। পরিবার ও বিএনপির অভিযোগের তীর আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দিকে। ঢাকা-১৩ আসনে বিএনপির প্রার্থী আবদুস সালাম। তিনি এখনো মোহাম্মদপুর এলাকায় আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণা শুরুই করতে পারেননি। আজ শুক্রবার থেকে সক্রিয় প্রচারণা শুরু করবেন তিনি। বুধবার তিনি প্রচারণা চালাতে না পারার বিষয়টি নিয়ে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগও করে আসেন। ঢাকা-১৪ আসনে বিএনপির প্রার্থী সৈয়দ আবু বকর সিদ্দিক সাজু। তিনি বিএনপি নেতা এস এ খালেকের ছেলে। রাজনীতিতেও নতুন। নির্বাচনী এলাকায় পিতার প্রভাব থাকলেও এখনো বড় ধরনের কোনো শোডাউন করতে পারেননি সাজু। তবে পুলিশ ও আওয়ামী লীগের বাধার অভিযোগও তার। ঢাকা-১৭ আসনে এবার ধানের শীষের প্রার্থী বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি-বিজেপির ব্যারিস্টার আন্দালিভ রহমান পার্থ। গুলশান-বনানী-ক্যান্টনমেন্ট এলাকা বেষ্টিত এই এলাকায়ও ধানের শীষের দৃশ্যমান কোনো প্রচারণা দেখা যায়নি। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী নায়ক ফারুক ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদের সাদা কালো পোস্টার টানাতে দেখা যায় ওই এলাকায়। ঢাকা-৬ আসনে ধানের শীষের প্রার্থী গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী। এই আসনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকার সমর্থকই বেশি। সুব্রত চৌধুরীকে মাঝে মধ্যে লিফলেট বিতরণ করতে দেখা গেলেও বিএনপির নেতা-কর্মীরা সেই অর্থে এখনো তার পাশে নেই। একই অবস্থা ঢাকা-৭ আসনেও। সেখানেও ধানের শীষের প্রতীক দেওয়া হয়েছে গণফোরাম সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসীন মন্টুর হাতে। এই এলাকা বিএনপির মরহুম সাংগঠনিক সম্পাদক নাসির উদ্দিন আহমেদ পিন্টুর সমর্থকরাই বেশি। এ ছাড়াও বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী ছিলেন দলের সহ সম্পাদক মীর নেওয়াজ আলী নেওয়াজ। কোনো পক্ষের সঙ্গেই এখনো সমন্বয় হয়নি মন্টুর। ঢাকা-২০ আসনে ধানের শীষের প্রতীক পেয়েছেন তমিজউদ্দিন। এখনো তিনি আদালতের দ্বারে দ্বারেই ঘুরছেন।

সূত্রঃবিডিপ্রতিদিন