সদরুল অাইন: আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মহাজোটের একক প্রার্থীর বিরুদ্ধে এখনো যারা বিদ্রোহী হিসেবে মাঠে অবস্থান করছেন আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়ে তাদের নির্বাচনী মাঠ থেকে সরে দাঁড়াতে দু’দিনের আল্টিমেটাম দিয়েছে আওয়ামী লীগ।

আগামীকাল সোমবারের মধ্যে সরে না দাঁড়ালে বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে কঠোর সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে।

একই সঙ্গে দলের নির্দেশ অমান্য করে একক প্রার্থীর বিরোধিতা করলেও দল থেকে বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে আওয়ামী লীগ।

জানা গেছে, এবার আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ছিলেন ৭৯ জন। এরমধ্যে নির্বাচন কমিশনের যাচাইয়ে ৩২ জন বাদ পড়েন। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার আহ্বানে সাড়া দিয়ে ২৩ জন বিদ্রোহী স্বেচ্ছায় প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেন। বর্তমানে মাঠে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সংখ্যা মাত্র ১৪ জন।

গত ৮ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনোনয়নবঞ্চিত ৩৭৮৩ জনের কাছে খোলা চিঠি পাঠান। নির্বাচনে নিজ দলের যারা বিভিন্ন আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন, তাঁদের প্রার্থিতা প্রত্যাহার করতে চিঠিতে বিশেষ অনুরোধ জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘ঐক্যবদ্ধ নির্বাচন অনুষ্ঠানের স্বার্থে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে আপনারা মহাজোটকে বিজয়ী করতে কাজ করুন।

আমি নিশ্চিতভাবে বলতে পারি, আওয়ামী লীগ যদি ঐক্যবদ্ধ থাকে, তাহলে নৌকা মার্কাকে পরাজিত করার সাংগঠনিক শক্তি আর কারো নেই।’

প্রথমে বোঝানো, পরে দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনার চিঠি এবং বারবার হুঁশিয়ারি দিয়েও কাজ না হওয়ায় দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিরুদ্ধে এবার কঠোর ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ।

শনিবার নিজের নির্বাচনী এলাকা নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে যাওয়ার পথে ফেনীর দাগনভূঞায় যাত্রাবিরতির সময় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘আপনারা অপেক্ষা করুন, দ্রুত বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

ঠিক একই সময়ে ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের পক্ষে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে দলটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, ‘আওয়ামী লীগ বা মহাজোটের কোনো বিদ্রোহী প্রার্থী নেই। কিছু স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছে। এটা দেড় ডজন নয়, আরও অনেক কম।’

তিনি বলেন, ‘নির্বাচনের মাঠে নিজ দল আওয়ামী লীগ বা মহাজোটের প্রার্থীর বিরুদ্ধে যারা এখনো রয়েছেন তাদের ১৭ ডিসেম্বরের মধ্যে সরে দাঁড়াতে হবে এবং সরে দাঁড়ানোর বিষয়টি জানাতে সংবাদ সম্মেলন করতে হবে মহাজোটের এ সব বিদ্রোহী প্রার্থীকে।

তাদের অবশ্যই আওয়ামী লীগ বা মহাজোটের প্রার্থীর সপক্ষে ভোটের মাঠে কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে। নতুবা আমরা সাংগঠনিকভাবে কঠোর ব্যবস্থা নেব।’

উল্লেখ্য, আওয়ামী লীগের নির্বাচনকালীন সাংগঠনিক শৃঙ্খলা রক্ষায় দায়িত্বপ্রাপ্ত চার নেতার একজন জাহাঙ্গীর কবির নানক।