সদরুল আইন: সংরক্ষিত মহিলা আসনে নির্বাচনের পর মন্ত্রীসভার কলেবর বৃদ্ধি পাবে বলে জানা গেছে। সরকারের বিভিন্ন সূত্র থেকে প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, সংরক্ষিত মহিলা আসরে নির্বাচনের পর মন্ত্রীসভার কলেবর বেড়ে ৬০ সদস্যের হতে পারে।

জানা গেছে শরিক দল থেকে ৩/৪ জন এবং আ’লীগ থেকে ৬ /৭ জনকে মন্ত্রীসভায় অন্তর্ভূক্ত করে মন্ত্রীসভার আকার বৃদ্ধি করা হতে পারে। তবে সূত্র মতে, এসব মন্ত্রী নির্বাচন করা হবে তরুণ নেতৃত্বের মধ্য থেকে।

কোনভাবে অতীতে যারা মন্ত্রী ছিলেন এমন কাউকেই নতুন করে মন্ত্রীসভায় অন্তর্ভূক্ত করবে না দলটি।

প্রতিটি মন্ত্রণালয়ে কাজে গতিশীলতা আনতে মন্ত্রীসভার কলেবর বাড়ছে বলে জানা গেছে।

দীর্ঘদিন ধরে ঐক্যবদ্ধভাবে রাজনীতি করছে ১৪ দল। এছাড়াও সরকার গঠনে ভুমিকা রেখেছিলো ১৪ দল।

এজন্য বিলম্ব হলেও ১৪ দলের অন্তত দুইজনকে মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত করার সিদ্ধান্ত আসতে পারে বলে আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্র জানিয়েছে।

আর এ ব্যাপারে মহিলা সংরক্ষিত আসনের নির্বাচনের পর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হতে পারে। তবে জাতীয় পার্টি বিরোধী দল হিসেবেই থাকবে।

আওয়ামী লীগের ঘনিষ্ঠ সূত্র বলছে, ১৪ দলের যারা গত দুই মেয়াদে মন্ত্রী ছিলেন তাদের বাদ দিয়ে নতুন মুখ মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত করা হতে পারে।

প্রথম মেয়াদে মন্ত্রিসভায় ছিলেন সাম্যবাদী দলের দিলীয় বড়ুয়া এবং পরে হাসানুল হক ইনুকে মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

দ্বিতীয় মেয়াদে তিনি এবং রাশেদ খান মেনন মন্ত্রিসভায় ছিলেন। প্রধানমন্ত্রী যেহেতু তার দলের মধ্যেই সিনিয়র নেতাদের মন্ত্রিসভা থেকে বাদ দিয়েছেন, সেজন্য এসব সিনিয়র নেতাদের মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত করার সম্ভাবনা খুবই কম।

তবে তাদের বদলে অপেক্ষাকৃত তরুণ এবং যারা কাজ করতে পারবে এমন নেতৃত্বকে মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত করার চিন্তা ভাবনা চলছে বলে জানা গেছে।

এদের মধ্যে জাসদের সাধারণ সম্পাদক শিরীন আক্তার এবং ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা ফজলে হোসেন বাদশার বিষয়টি বিবেচনা করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।

আওয়ামী লীগের একটি সূত্র বলছে যে, মহিলা আসনে নির্বাচনের পর মন্ত্রিসভার অবয়ব আরেকটু পরিবর্তন হবে।

আরও কিছু নতুন মুখ অন্তর্ভুক্ত হবে। এবং তখন ১৪ দলকে মন্ত্রিসভায় আনার বিষয়টি বিবেচনা করা হবে বলে জানা গেছে।