কাগজ প্রতিবেদক: বিরোধী দলের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সংলাপ হবে তা কখনও বলেননি বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সেতু ও পরিবহন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আজ মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে রাজধানীর ধানমন্ডির হোয়াইট হল কনভেনশন সেন্টারে আওয়ামী লীগ ঢাকা মহানগর উত্তর শাখার বর্ধিত সভায় তিনি এ কথা বলেন।

গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ সংসদ নির্বাচনের ফল প্রত্যাখ্যানের পর জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নতুন নির্বাচনের পথ তৈরি করতে সংলাপের আহ্বান জানায়। এর পর গত রোববার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগ সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশের সব রাজনৈতিক দলকে সংলাপের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। ঐক্যফ্রন্ট ও যুক্তফ্রন্টসহ ৭৫টি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে গণভবনে সংলাপ হয়েছিল। এখন নির্বাচন শেষ হয়েছে, নেত্রী গতকাল (শনিবার) আমাদের সঙ্গে ওয়ার্কিং কমিটি ও উপদেষ্টা পরিষদের যৌথ বৈঠকে বলেছেন যে, যাদের সঙ্গে সংলাপ হয়েছে তাদেরকে আমন্ত্রণ করবেন, আহ্বান করবেন, নিমন্ত্রণ করবেন। তাদের সঙ্গে কিছু মতবিনিময় করবেন এবং তাদের আপ্যায়নের ব্যবস্থা থাকবে। এ ব্যাপারে আমরাও সবাই একমত, যারা সংলাপ এসেছিলেন তাদেরকে আবারও নেত্রী সংলাপে আমন্ত্রণ জানাচ্ছেন।’
তবে এখন সংলাপের বিষয়টি অস্বীকার করে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জাবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমি কখনও সংলাপের কথা বলিনি, যার অডিও-ভিডিও রয়েছে। এরপরও কেন ধুম্রজাল সৃষ্টি করা হচ্ছে। এখানে সংলাপের কোনো বিষয় নেই। নির্বাচন নিয়ে সংলাপ হাস্যকর।’

আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জোটগত নয়, দলীয় প্রতীকেই ভোট হবে বলে জানান আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেন, ‘দলীয় প্রতীকেই উপজেলা নির্বাচন হবে। সংশ্লিষ্ট উপজেলা ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি তাদের স্বাক্ষরসহ সম্ভাব্য তিনজন প্রার্থীর নাম কেন্দ্রে পাঠাবেন। সেখান থেকে উপজেলা নির্বাচন মনোনয়ন বোর্ড একজন প্রার্থীকে মনোনয়ন দেবেন। এছাড়া নেত্রীর জরিপ হয়েছে, সেই জরিপে যারা এগিয়ে এবং যোগ্য তাদের মনোনয়ন দেওয়া হবে।’

আগামী ১৯ জানুয়ারি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠেয় আওয়ামী লীগের বিজয় সমাবেশ সফল করতে আজকের এ বর্ধিত সভার আয়োজন করা হয়। সভায় ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।