খালেদাকে প্যারোলে মুক্তির চেষ্টায় জিয়া পরিবার

সদরুল আইন: বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য তার পরিবার তৎপরতা শুরু করেছে। খালেদা জিয়ার ভাই শামীম ইস্কান্দার ও তার বোন সরকারের বিভিন্ন পদস্থ কর্মকর্তার সঙ্গে খালেদা জিয়ার মুক্তির ব্যাপারে দেন দরবার করছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

গতকাল বেগম খালেদা জিয়ার প্রধান আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেছেন, আইনগতভাবে খালেদা জিয়ার মুক্তির কোন সম্ভাবনা নেই। খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে বর্তমানে ৩৮টি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে দুটি মামলায় তিনি নিম্ন আদালতে দণ্ডিত হয়েছেন।

জিয়া অরফানেজ দুর্নীতি মামলায় হাইকোর্ট তার নিম্ন আদালতের দণ্ড বাড়িয়ে দিয়েছে। অন্য মামলাগুলোর মধ্যে বেগম জিয়া ১৮টি মামলায় জামিন পেলেও বাকি মামলাগুলোতে জামিন এখনও নিষ্পত্তির অপেক্ষায় রয়েছে। এই প্রেক্ষিতে বেগম খালেদা জিয়ার আইনগত লড়াইয়ের মাধ্যমে মুক্তির কোন সম্ভাবনা নেই বলেই আইনজীবীরা মনে করছেন।

খালেদা জিয়ার ঘনিষ্ঠ আত্মীয়রা মনে করছেন যে, আইনী পথে না গিয়ে বরং সরকারের সঙ্গে সমঝোতার মাধ্যমে খালেদা জিয়ার মুক্তিই একমাত্র পথ। সে লক্ষ্যেই তারা কাজ শুরু করেছেন। এর আগেও শামীম ইস্কান্দার সরকারের সঙ্গে খালেদা জিয়ার প্যারোলের ব্যাপারে সরকারের সঙ্গে সমঝোতার চেষ্টা করেছেন। সমঝোতার প্রায় চূড়ান্ত পর্যায়ে সেটি বাতিল হয়ে যায়। সেসময় তারেক জিয়া প্যারোলের ব্যাপারে আপত্তি প্রকাশ করেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানাচ্ছে, বেগম খালেদা জিয়া এখন অসুস্থ। বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য আজ খালেদা জিয়া কারা কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেছেন। এই আবেদনটি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যাবে এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিবেচনা করবে তাকে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠানো হবে কি না?

বেগম জিয়ার পারিবারিক সূত্রগুলো বলছে যে, খালেদা জিয়ার যে ধরনের শারীরিক সমস্যা তার জন্য দীর্ঘমেয়াদী চিকিৎসা এবং ফিজিওথেরাপির প্রয়োজন, যেটা কেন্দ্রীয় কারাগারে সম্ভব নয়। তারা সরকারের কাছে একটি আবেদন করার চিন্তাভাবনা করছে। আবেদনে খালেদা জিয়াকে প্যারোলে মুক্ত করে কারাগারের বাইরে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হবে। প্যারোলে মুক্তির ক্ষেত্রে সরকারের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হলেও সরকার কিছু শর্ত আরোপ করতে পারে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। এই শর্তগুলোর ব্যাপারে রাজি হলেই কেবল খালেদা জিয়ার প্যারোলের বিষয়ে আনুষ্ঠানিক আলোচনা শুরু হতে পারে সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো মনে করে।

এর আগে বেগম খালেদা জিয়ার প্যারোলের ব্যাপারে যে আলোচনা হয়েছিল, সেখানে বেগম জিয়াকে যে শর্তগুলো দেয়া হয়েছিল তার মধ্যে ছিল: (১) তিনি রাজনীতি থেকে অবসরের ঘোষণা দেবেন; (২) তিনি চিকিৎসার জন্য বিদেশ যাবেন ও (৩) বিদেশ থেকে তিনি সরকার বা রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে কোনো রকম রাজনৈতিক বক্তব্য রাখবেন না। তবে শেষ মুহূর্তে প্যারোলের এই উদ্যোগ ভেস্তে গিয়েছিল। এবারও যদি খালেদা জিয়ার প্যারোল নিয়ে তার পরিবার কোন আলাপ-আলোচনা করতে চায় তাহলে এই তিনটি শর্তের ভিত্তিতেই তাদেরকে আলাপ-আলোচনা করতে হবে বলে জানা গেছে।

খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দার এখন যে কোন মূল্যে, যে কোন শর্তে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির ব্যাপারে আগ্রহী। তিনি গতকাল বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন এবং তাকে বলেন যে, খালেদা জিয়ার ‍মুক্তিই এখন তাদের পরিবারের কাছে প্রধান বিষয়। রাজনৈতিক আন্দোলন করে আদালতের মাধ্যমে এই মুক্তি সম্ভব নয়।

মির্জা ফখরুলও তাকে আশ্বস্ত করেছেন যে, সরকারের সঙ্গে দেন দরবারে এ ব্যাপারে যদি তার কোন সহযোগিতা দরকার হয় তিনি তা করবেন। কিন্তু নির্বাচনের পর সরকার এখন খালেদা জিয়ার মুক্তির ব্যাপারে বা প্যারোলের ব্যাপারে কতটা আগ্রহী হবে সেটাই দেখার বিষয়।